চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী জব্বারের বলী খেলা আজ

533

।দেশরিভিউ-চট্টগ্রাম৷  

নগরীর লালদীঘি এলাকা গত দুই দিন ধরেই বেশ জমজমাট। কারণ ঐতিহাসিক জব্বারের বলী খেলার আরো একটি আসর বসতে যাচ্ছে আজ। এটি এই ঐতিহ্যের ১১০ তম আসর। গতকাল বিকেলে লালদীঘি মাঠে মঞ্চ তৈরির কাজ করছিল শ্রমিকরা। যে মঞ্চে দাঁড়িয়ে আজ নিজের শ্রেষ্ঠত্ব ঘোষণা করবে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা বলীরা। তবে বলী খেলার মূল লড়াই আজ হলেও গতকালও হাজারো উৎসুক চোখ খুঁজে ফিরেছে মঞ্চের দিকে। কেমন হবে এই মঞ্চে জব্বারের বলী খেলার শ্রেষ্ঠত্বের লড়াই। কার গলায় পড়বে সেরার মালা।

প্রতি বছর ১২ বৈশাখ এই খেলার আয়োজন করা হয়। ১৯০৯ সালে স্থানীয় আব্দুল জব্বার সওদাগর লালদীঘির ময়দানে আয়োজন করেন এই কুস্তি বা বলী প্রতিযোগিতা, যা পরবর্তীতে চট্টগ্রামসহ সারা দেশের মানুষের কাছে জব্বারের বলীখেলা নামে পরিচিত হয়ে ওঠে।

আজ থেকে একশ’ দশ বছর আগে নগরীর বদরপাতি এলাকার আবদুল জব্বার সওদাগর যে লক্ষ্য নিয়ে এই বলী খেলার প্রচলন করেছিলেন সেটা অনেক আগেই পূরণ হয়ে গেছে। এদেশ থেকে ব্রিটিশরা চলে গেছে। এরপর চলে গেছে পাকিস্তানিরাও। কিন্তু জব্বারের বলী খেলার আবেদন যেন দিন দিন বেড়েই যাচ্ছে। ক্রমশ বিস্তারিত হচ্ছে এর ব্যাপ্তি। এখন সারা দেশের বলীদের চোখ থাকে এই জব্বারের বলী খেলার দিকে। যুগে যুগে অনেক বলী এখান থেকে সেরার মুকুট পরে গেছেন। কেউ আবার অখ্যাত থেকে হয়েছেন একেবারে বিখ্যাত। কেউ আবার শাসন করেছেন বছরের পর বছর। আবার কেউ একজন এসে নিজেকে নতুন হিরো হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। কেউ আবার তার সিংহাসন হারিয়েছেন। এমনই হাজারো আনন্দ বেদনার গল্প রচিত হয়েছে এই জব্বারের বলী খেলায়। আজ হয়তো আরো একটি তেমনই গল্প রচিত হবে। আজ কি তাহলে আগের বারের চ্যাম্পিয়ন চকরিয়ার তারিকুল ইসলাম জীবন আবার গাইবেন তার জয়গান। নাকি গত আসরে হার মানা কুমিল্লার শাহজালাল কেড়ে নেবেন শ্রেষ্ঠত্ব। নাকি নতুন আরেকজন এসে ভাগ বসাবেন সেরার মুকুটে। আয়োজকরা জানিয়েছেন গতকাল বিকেল পর্যন্ত আগের আসরের চ্যাম্পিয়ন রানার্স আপসহ প্রায় অর্ধ শতাধিক বলী তাদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করেছেন। এবারের আসরে প্রতিযোগীর সংখ্যা বাড়বে বলেও মনে করছেন আয়োজকরা।

এক সময়ের খাল, নদী বিদৌত চট্টগ্রাম আজ কালের পরিক্রমায় পরিণত হয়েছে ইট পাথরের নগরীতে। একে একে হারিয়ে যেতে বসেছে সবগুলো ঐতিহ্য। এক সময়ের সবুজে ঘেরা এই নগরী আজ একটুখানি সবুজের জন্য হাহাকার করছে। এমনই ঐতিহ্য বিচ্যুতির মিছিলের মাঝে ঠিকই মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছে জব্বারের বলী খেলা। আজ যার ১১০তম আসর। ডিজিটাল এ যুগেও যে শত বছরের গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য বলী খেলা এখনো মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়ে আছে সেটা বিশাল একটি ব্যাপার। আয়োজকরা জানিয়েছেন, শত বছরের বেশি সময় ধরে চলে আসা জব্বারের বলী খেলা সময় যত গড়াচ্ছে ততই জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। দেশের গণ্ডি পেরিয়ে আজ দেশের বাইরেও ঐতিহ্য হিসেবে জায়গা করে নিয়েছে জব্বারের এই বলী খেলা। ১০৯ বছর আগের ছোট্ট পরিসরের বলী খেলাটি আজ যেন ফুলে ফলে ভরা এক মহীরুহ।

আজ বিকাল তিনটায় লালদীঘি মাঠে বলী খেলার উদ্বোধন করবেন পুলিশ কমিশনার মাহবুবর রহমান। আর পরে প্রধান অতিথি হিসেবে পুরষ্কার বিতরণ করবেন সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন। বরাবরের মত এবারের আসরেও চ্যাম্পিয়নের জন্য থাকছে ট্রফি এবং মেডেলসহ নগদ ১৫ হাজার টাকা পুরষ্কার। রানার্স আপের জন্য থাকছে ট্রফি এবং মেডেল সহ নগদ ১০ হাজার টাকার পুরষ্কার। তবে পুরষ্কারের চাইতে এই ঐতিহ্যের সাক্ষী হয়ে নিজের শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণ করাতেই যেন দেশের বিভিন্ন প্রান্তের সেরা বলীদের সবচাইতে বড় স্বপ্ন।

শতবর্ষী এই খেলায় পৃষ্ঠপোষকতা করছে গ্রামীণফোন। এক বিবৃতিতে কোম্পানিটি জানিয়েছে, দেশের সবচেয়ে বিস্তৃত নেটওয়ার্ক হিসেবে আমরা মনে করি বাংলাদেশের কৃষ্টি, ঐতিহ্য আর সংস্কৃতিকে সবার কাছে তুলে ধরা আমাদের দায়িত্ব। জব্বার এর বলী খেলা ছাড়াও ঐতিহ্যবাহী খুলনার নৌকা বাইচ, লোক সঙ্গীতের মিলনমেলা ঢাকা ফোকফেস্ট-এর মতো জনপ্রিয় উৎসবগুলোর সাথে থেকে গ্রামীণফোন চেষ্টা করে সারাদেশের মানুষের কাছে ছড়িয়ে দিতে।
আজ বিকাল ৪টায় জব্বারের বলী খেলা সরাসরি প্রচারিত হবে চ্যানেল আই পর্দায় এবং মোবাইলে খেলা দেখা যাবে বায়োস্কোপ অ্যাপে।

SHARE