চট্টগ্রামের বুটিক হাউসগুলোতে চলছে ঈদ উৎসব

95


।।দেশরিভিউ-ফরিদ নেওয়াজ।।
ঈদ উপলক্ষে ব্যস্ততা বেড়েছে চট্টগ্রামের বুটিক হাউসগুলোর। ডিজাইনে নতুনত্বের পাশাপাশি গরমে আরামের বিষয়টিও গুরুত্ব দিয়ে ভাবছে ফ্যাশন ডিজাইনাররা। ঈদের পোশাকে সেরা উপাদানটি ব্যবহার করে গ্রাহকদের আকৃষ্ট করতে চান তারা। আর তাই গতানুগতিক পোশাকের চেয়ে ভিন্ন কিছুর জন্য ক্রেতারা ছুটছেন এসব হাউসগুলোতে। চট্টগ্রামে ছোট-বড় মিলিয়ে অর্ধশতাধিক বুটিক হাউস রয়েছে। এসব বুটিক হাউসে ঈদ মওসুমে কেনাবেচা হয় কয়েক কোটি টাকার পণ্য।
প্রতিযোগিতাপূর্ণ বাজারে দেশি-বিদেশি ব্রান্ডের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বর্তমানে অনেকটা শক্ত অবস’ানে পৌঁছেছে নগরীর বুটিক হাউসগুলো। দেশীয় এবং আধুনিকতার সংমিশ্রণে এবার ঈদের পোশাক তৈরি করা হচ্ছে বলে জানালেন চট্টগ্রামের ফ্যাশন ডিজাইনরা। কোনো কোনো ফ্যাশন হাউস এরই মধ্যে মডেলদের দিয়ে ফটোশুট করিয়ে ক্রেতা আকর্ষণ করতে আপ্রাণ চেষ্টা করছে।

নগরীতে স্বনামধন্য ও আলোচিত যেসব ফ্যাশন ও বুটিক হাউস রয়েছে সেগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে শৈল্পিক, রওশনস, ডলস হাউস, মিয়াবিবি, বাঙালি বাবু, নিডেল ওয়ার্ক, ক্র্যাফট ক্যাসেল, পিণন, নক্ষত্র, অঞ্জনস, মুনমুন বুটিকস। এসব ফ্যাশন হাউস এখন চট্টগ্রামের সীমানা ছাড়িয়ে পরিচিতি পেয়েছে সারা দেশের মানুষের কাছে। চট্টগ্রামের বেশ কয়েকটি ফ্যাশন হাউস দেশের বড় শহরগুলোতে তাদের শো-রুম খুলেছে। এই সাফল্যের পথ ধরে চট্টগ্রামে উঠে আসছে আরো নতুন নতুন ফ্যাশন হাউস। এই ফ্যাশন হাউসগুলো এবারের ঈদ সামনে রেখে আধুনিক ও বৈচিত্র্যময় পোশাকের সমাহার এনেছে।

পোশাকে যদি নতুনত্ব বা আধুনিকতার ছাপ না থাকে সেক্ষেত্রে ঈদ উদযাপনে থেকে যায় অপূর্ণতা। আর ফ্যাশনের ক্ষেত্রে পুরুষের পাশাপাশি এক ধাপ এগিয়ে থাকে নারীরা। তাই নারীদের কথা মাথায় রেখে নিজস্ব ডিজাইনে, দেশীয় ও আধুনিকতার মিশ্রণে আকর্ষণীয় সব পোশাক তৈরিতে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে বুটিক হাউসগুলো। চট্টগ্রাম ডিজাইনারস ফোরামের সভাপতি ডিজাইনার আহমেদ নেওয়াজ বলেন, আমরা অনেক দিন ধরে ঢাকার ওপর নির্ভরশীল হয়ে আসছি। কিন্তু বর্তমানে ঢাকার দেখাদেখি চট্টগ্রামেও অনেক বুটিক হাউস, ফ্যাশন হাউস এবং ফ্যাশন ডিজাইনাররা কাজ করছে। সুতরাং সেই হিসেবে আমি বলবো ঢাকার চেয়ে চট্টগ্রাম কোনো অংশে পিছিয়ে নেই বরং অনেক এগিয়ে আছে।

অন্য এক বুটিক হাউসের মালিক এ প্রসংগে বলেন, এক্সক্লুসিভ পোশাক তৈরি করতে গেলে ভাল দেশীয় কাপড় ব্যবহার করি। এতে আমাদের কষ্টটাও বেশি হয়। আবার ক্রেতার সামর্থ্যের কথাও চিন্তা করে ড্রেসের মূল্য নির্ধারণ করতে হয়। ফলে ঈদকে ঘিরে আমাদের ব্যবসা হয় বছরের অন্যদিনের চেয়ে অনেক ভাল। আশাকরি তা কয়েক কোটি টাকা ছড়াবে। উৎসবের বিশেষত্ব ও সময় বিবেচনা করে পোশাক বানানোর কারণে বুটিক হাউসগুলোর প্রতি মেয়েদের আকর্ষণ থাকে সবচেয়ে বেশি। ঈদের সময় কিছুটা গরম থাকবে; তাই সে সব কথা মাথায় রেখেই পোশাক তৈরি করা হচ্ছে বলে জানালেন ফ্যাশন ডিজাইনাররা।

ডিজাইনার আইভি হাসান বলেন, আমরা সব সময় উৎসব আর ঋতুর কথা মাথায় রাখি। এবারের ঈদ যেহেতু বেশ গরম অনুভব হবে, সেভাবেই আমরা কাপড়গুলো পছন্দ করেছি। যে কাপড় পরে স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করবে না তাতে তো ঈদ আনন্দের হবে না। ফলে ডিজাইনের সাথে কাপড় কথা অবশ্যই আমাদের নজরে রাখতে হয়।
অনেকটা কম দাম ও সাশ্রয়ী মূল্যেই ঈদের বিশেষ পোশাক পাওয়া যাচ্ছে বলে দাবি বুটিক মালিকদের। শুধু যে বুটিক হাউসগুলোতেই পোশাক পাওয়া যাচ্ছে তা নয়, অনলাইনেও অর্ডার দিয়ে সহজেই পাওয়া যাচ্ছে পছন্দের পোশাকটি।

 

SHARE