চট্টগ্রামে চিকিৎসার অভাবে আওয়ামী লীগ নেতার মৃত্যু

662

।।নিজস্ব প্রতিনিধি, দেশরিভিউ।।

বুকের প্রচণ্ড ব্যথা নিয়ে চিকিৎসার জন্য এক হাসপাতাল থেকে অন্য হাসপাতালে ঘুরে অবশেষে মৃত্যুকে বরন করলেন চট্টগ্রাম মহানগরের বায়েজিদ থানা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক সফিউল আলম সগীর। মঙ্গলবার সফিউল আলম সগীরের মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে চট্টগ্রামের রাজনৈতিক অঙ্গনে।

স্বজন ও দলীয় নেতাকর্মীদের অভিযোগ, বুকে প্রচন্ড ব্যাথা নিয়ে বেলা ১২ টায় নগরীর জিইসি মোড়ে মেডিকেল সেন্টার হাসপাতাল এবং মেট্টোপলিটন হাসপাতালে গিয়েও চিকিৎসকদের সামান্যতম সহায়তা পাননি আওয়ামী লীগ নেতা সফিউল আলম সগীর। এসময় হৃদযন্ত্রের প্রচন্ড ব্যাথায় কাতর দেখেও দুই হাসপাতালের চিকিৎসকরা প্রাথমিক চিকিৎসা দিতেও অপরাগতা প্রকাশ করেন। পরে নগরীর পাঁচলাইশ মোড়ে পার্ক ভিউ হাসপাতালে নিয়ে গেলে দায়িত্বরত চিকিৎসকরা আওয়ামী লীগ নেতা সফিউল আলম সগীরকে মৃত ঘোষনা করেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে নগরীর ২নং জালালবাদ ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক হারুন জালালাবাদী দেশ রিভিউকে বলেন, বুকে ব্যথা অনুভব করায় বেলা ১২টায় মেডিকেল সেন্টার হাসপাতালে নিয়ে গেলে তারা রোগী গ্রহন করেনি। পরে চট্টগ্রাম মেট্টোপলিটন হাসপাতালে গেলে তারাও সিট খালি নেই জানিয়ে দিয়েছে। এরপর আমরা অসহায়ের মতো অনেককে ফোন করে হাসপাতালের খোঁজ করতে থাকি।
এসময় ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক হারুন জালালাবাদী বলেন, পাঁচলাইশ মোড়ের পার্ক ভিউ হসপিটালে সিট খালি আছে খবর পেয়ে আমরা সেখানে গেলে চিকিৎসকরা পরীক্ষা নিরিক্ষা করে সগীর ভাইকে মৃত ঘোষনা করেন। ছাত্রজীবন থেকে সাধারন মানুষের জন্য রাজনীতি করে আসা সগীর ভাই বিনা চিকিৎসায় মারা গেলেন।

কখনো ফেসবুক ব্যবহার না করলেও আওয়ামী লীগ নেতা সফিউল আলম সগীর মারা যাওয়ার দুইদিন আগে নিজের নামে ফেসবুক আইডি খুলে করোনা দূর্যোগে চট্টগ্রামের বেহাল চিকিৎসা দশা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন জানিয়ে হারুন জালালাবাদী বলেন, তিনি ফেসবুকে প্রথম স্ট্যাটাসে বর্তমান করোনা মহামারীতে চট্টগ্রামে একজন মহিউদ্দিন চৌধুরীর অভাবের কথা লিখেছিলেন।

এদিকে সফিউল আলম সগীরের মৃত্যুতে চট্টগ্রামের বেসরকারী হাসপাতালের চিকিৎসা নৈরাজ্যের বিষয়টি আবারো সামনে উঠে এসেছে। অনেকেই ক্ষোভ প্রকাশ করে বেসরকারী হাসপাতালের চলমান নৈরাজ্যের পেছনে দায়ীদের গ্রেফতারের দাবীও করেছেন। চট্টগ্রামের বিশাল জনগোষ্টিকে করোনা রোগ ছাড়াও সাধারন চিকিৎসা সেবা না দেওয়ার অভিযোগ আছে চট্টগ্রামের অর্ধতাধিক বেসরকারী হাসপাতাল ক্লিনিকের বিরুদ্ধে।

SHARE