চট্টগ্রামে তিনটি পাহাড়ে ধস, জেলা প্রশাসনের প্রস্তুতিতে প্রাণহানি হয়নি

426
নগরীর লালখান বাজার সংলগ্ন পোড়া কলোনি পাহাড়, এ.কে খান কৈবল্যধম টাংকি পাহাড় এবং ফয়েসলেক এলাকার একটি পাহাড়ে মাটিধসের ঘটনা ঘটেছে।

।।দেশরিভিউ, নিউজরুম চট্টগ্রাম।।

মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে চট্টগ্রামে গত কয়েকদিন টানা ভারী বর্ষন হচ্ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় ৯৬ দশমিক ৮ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করেছে আবহাওয়া অফিস। ভারি বর্ষণে বুধবার রাত থেকে বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত নগরে অন্তত তিনটি পাহাড়ধসের খবর পাওয়া গেছে। নগরীর লালখান বাজার সংলগ্ন পোড়া কলোনি পাহাড়, এ.কে খান কৈবল্যধম টাংকি পাহাড় এবং ফয়েসলেক এলাকার একটি পাহাড়ে মাটিধসের ঘটনা ঘটেছে। তবে এতে হতাহতের কোন ঘটনা ঘটেনি।

জানা গেছে, আবহাওয়া অধিদপ্তর কর্তৃক চট্টগ্রামে ভারী বর্ষনের কারনে পাহাড়ধসের সতর্কতা জারির পর থেকে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন নগরীর ১৭টি ঝুঁকিপূর্ণ পাহাড়ের পাদদেশ ও চূড়া থেকে মৃত্যুঝুঁকি নিয়ে বসবাসরতদের সরিয়ে নিতে দিনরাত মাইকিং ও উচ্ছেদ অভিযান চালিয়েছে। পাশাপাশি নগরের ৯টি স্থানে অস্থায়ী আশ্রয়কেন্দ্র চালু করে তাতে প্রয়োজনীয় ত্রান সামগ্রী বিতরন করে আসছে।

নগরীর কাট্টলী সার্কেলের সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মো. তৌহিদুল ইসলাম দেশরিভিউকে বলেন, ভারি বর্ষণে পাহাড় ধস হতে পারে এমন পূর্বাভাসের পর চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন জরুরী ভিত্তিতে পাহাড়ের পাদদেশ, চূড়া থেকে ঝুঁকিপূর্ণভাবে বসবাসরত কয়েকহাজার মানুষকে সরিয়ে নিয়েছে। পাঁচ শতাধিক ঘরবাড়ি উচ্ছেদও করা হয়েছে এসময়। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে দূর্যোগকালীন সময়ের জন্য আশ্রয়কেন্দ্র চালু করে সরকারের ত্রান সুবিধা সুষ্ঠভাবে বিতরন করা হয়েছে। যার ফলে বিগত বছরগুলোর মতো এবারো পাহাড়ধসের ঘটনা ঘটলেও প্রানহানীর কোন ঘটনা এখনো পর্যন্ত হয়নি।

জেলা প্রশাসনের এ কর্মকর্তা এসময় বলেন, সরকার পাহাড়ে আর লাশের মিছিল দেখতে চাইনা। জেলা প্রশাসন কর্তৃক পাহাড়ে উচ্ছেদ অভিযান অব্যাহত থাকবে জানিয়ে তিনি বলেন, আমরা পাহাড়কে তার চিরায়িত রুপে প্রকৃতির মাঝে ফেরত পাঠাতে কাজ করছি।

 

SHARE