চট্টগ্রামে নাছিরের জুয়ার ফাঁদ: পৈত্রিক সম্পত্তি হারিয়ে সর্বস্বান্ত অনেকে

579


।।দেশরিভিউ, চট্টগ্রাম।।
পাঁচ বছর আগেও নগরীর আগ্রাবাদের পানওয়ালা পাড়ায় ভাড়া বাসাতে থাকতেন নাছির উদ্দিন। দোকানের কর্মচারী সেই নাছির উদ্দিনের এখন পৌষ মাস।

অনলাইন ভিত্তিক বেটিং সাইট Bet365 এর বিশাল জুয়ার আসর বসিয়ে নিজের নামে বাড়ি, গাড়ি সহ বিপুল অর্থ সম্পত্তির মালিক হয়েছেন নাছির উদ্দিন। নাছির উদ্দিনের টাকার খেলা দেখে এলাকাবাসীও তাকে ‘ডলার নাছির’ নামে ডাকতে শুরু করেছে। শরীরে রাজনৈতিক সাইনবোর্ডও লেগেছে এই অল্পসময়ে। টাকার জোরে এখন নামের পাশে রয়েছে সেচ্ছাসেবক লীগ নেতা।

জানা গেছে, নগরীর ২৪নং উত্তর আগ্রাবাদ ওয়ার্ডে সেচ্ছাসেবক লীগের বৈধ কোন কমিটি না থাকলেও নাছির উদ্দিন নিজেকে যুগ্ম আহবায়ক দাবী করেন। ধর্মীয় ও রাজনৈতিক দিবসসমূহে আগ্রাবাদ এলাকায় সিটি মেয়র আ. জ. ম. নাছির উদ্দিনের অনুসারী হিসাবে মেয়রের ছবি সম্বলিত ব্যানার তুলেন জুয়াড়ি নাছির উদ্দিন প্রকাশ ডলার নাছির। জুয়ার টাকায় ডলার নাছিরের নামডাক এখন আগ্রাবাদ, দেওয়ানহাট, পানওয়ালাপাড়া, মিস্ত্রিপাড়া, কদমতলী থেকে হালিশহর পর্যন্ত ছড়িয়েছে।

জানা গেছে, জুয়াড়ি নাছির উদ্দিনের হাত ধরে আন্তর্জাতিক বেটিং সাইট Bet365 এ জুয়া খেলে সর্বস্বান্ত হয়েছে স্থানীয় ব্যবসায়ীসহ বহু বিত্তশালী। এলাকায় এলাকায় জুয়ার নেশা ছড়িয়ে পড়ায় সম্প্রতি নাছির উদ্দিনের গ্রেফতারের দাবীতে মানববন্ধনও করেছে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী।

জুয়াড়ি নাছির উদ্দিনের(ডলার নাছির) গ্রেফতারের দাবীতে এলাকবাসীর মানববন্ধন।

এলাকাবাসী বলছে, বিভিন্ন সময় চলা ক্রিকেট-ফুটবল খেলায় জুয়ার আসর বসিয়ে মানুষকে ঠকানোই তার কাজ। নাছিরের কৌশল বুঝতে না পেরে অনেকেই পড়েছেন সেই ফাঁদে। কৌশলে জুয়ার ফাঁদে ফেলে মানুষের বাড়ি গাড়ি লিখে নেওয়ার অভিযোগও আছে নাছিরের বিরুদ্ধে।

নাছির উদ্দিনের ফাঁদে পড়ে নিজের বাড়ি হারিয়েছেন গার্মেন্টস ব্যবসায়ী আলম। নিজের বাড়ি নাছির উদ্দিনের কাছে বিক্রি করে দিতেও বাধ্য হয়েছেন তিনি। এ বিষয়ে জানতে চাইল ব্যবসায়ী আলম বলেন, নাছিরের পাল্লায় জুয়া খেলে প্রথমে নিজের বাড়ির উপরের দুই তলা বিক্রি করে দিয়েছিলাম। সর্বশেষ খেলায় আমার কাছে ১৬ লাখ টাকা পাওনা হয় নাছির। কিন্তু টাকা দিতে বিলম্ব হওয়ায় সে বিভিন্নভাবে চাপ প্রয়োগ করতে থাকে। পরবর্তীতে চাপ দিয়ে বাড়ির নিচতলা ৩০ লাখ টাকা মূল্য নির্ধারণ করে লিখে নেয় সে। কিন্তু আমাকে ১৬ লাখ টাকা বাদ দিয়ে বাকি ১৪ লাখ টাকা দিবে বললেও পরে আর দেয়নি। ওই বাড়ির দ্বিতীয় এবং তৃতীয় তলা যাদের কাছে বিক্রি করেছি, বর্তমানে তারাও ওই বাসা নাছিরের হুমকিতে অল্প টাকায় বিক্রি করে দিয়েছে শুনলাম।

নাছিরের জুয়ার ফাঁদে পড়ে পৈত্রিক সম্পত্তি হারিয়ে এখন অন্য এলাকায় গিয়ে ভাড়া বাসায় থাকছেন জাফর সাদেক নামের আগ্রাবাদের আরেকজন বাসিন্দা। এ বিষয়ে জানতে চাইলে জাফর সাদেক বলেন, আইপিএল ক্রিকেটে নাছিরের সাথে বাজিতে বসে কয়েক ম্যাচ হেরে গিয়ে চলে আসতে চাইলেও সে আবার খেলতে বসায়। এরপর এক ম্যাচ দুই ম্যাচ হারতে থাকলে আমি আবার চলে আসার চেষ্টা করি। কিন্তু সে ক্রমাগত টাকার চাপ দিয়ে আমাকে খেলতে বাধ্য করে। এভাবে একসময় আমার কাছে প্রচুর টাকা পাওনা হয়। যার কারণে আমার পৈত্রিক সম্পত্তি যা ছিল, তা বিক্রি করে তাকে সুদে আসলে এক কোটি টাকা পরিশোধ করেছি।কিছু টাকা বাকি ছিল বলে সে আমাকে বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি দেখিয়ে মারধর করার চেষ্টাও করেছে।

এদিকে স্থানীয়রা জানায়, বছর দু’য়েক আগে থেকে এলাকায় বহিরাগত নিয়ে এসে আধিপত্য বিস্তার শুরু করে নাছির। এলাকার তরুণ যুবকদের টাকা পয়সা অনুদান দিয়ে হাত করতে থাকে এসময়। এলাকায় এলাকায় তরুনদের মাঝে অনলাইন জুয়ার নেশা ডুকিয়ে বিশাল বাহিনীও গড়ে তুলেছে সে। নিজেকে রাজনৈতিক নেতা পরিচয় দিয়ে পুলিশের সাথে ভালো সম্পর্ক থাকার বিষয়টিও নানাভাবে মানুষের কাছে উপস্থাপন করে নাছির।

এলাকাবাসী বলছে, মোটরসাইকেল, প্রাইভেট কার নিয়ে এলাকায় এলাকায় মহড়া দিয়ে থাকেন নাছির। যাতে করে এলাকাবাসী তাকে আরও ভয় পায়। তাই কেউ তার বিরুদ্ধে কথাও বলতে সাহস করেনা।

SHARE