105

দেশরিভিউ: ফ্রিজ ভর্তি রান্না করা নানা পদের তরকারি। ছোট ও মাঝারি আকারের একাধিক কৌটার কোনটিতে মাছ, কোনটিতে মুরগি, কোনটিতে গরু কিংবা ছাগলের মাংস। সপ্তাহ খানেক আগে রান্না করা এসব তরকারিই গরম করে পরিবেশন করা হচ্ছে ক্রেতাদের কাছে!

বৃহস্পতিবার ১০ জানুয়ারি ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে ক্রেতাদের বাসি খাবার পরিবেশনের এমন চিত্র ধরা পড়লো নগরের জামালখান এলাকার দাওয়াত রেস্টুরেন্টে। ভেজাল খাদ্যবিরোধী এ অভিযানে নেতৃত্ব দেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মারুফা বেগম নেলী।জামালখান এলাকায় ভেজাল খাদ্যবিরোধী অভিযান পরিচালনার সময় ভ্রাম্যমাণ আদালত দাওয়াত রেস্টুরেন্টে অভিযান পরিচালনা করে। এ সময় রেস্টুরেন্টের ফ্রিজ থেকে এক সপ্তাহ আগে রান্না করা বিপুল পরিমাণ বাসি মাছ, মাংস ও তরকারি জব্দ করা হয়। তিনি বলেন, রেস্টুরেন্ট কর্তৃপক্ষ এসব বাসি খাবার গরম করে ক্রেতাদের কাছে পরিবেশনের কথা স্বীকার করেছে। এ জন্য রেস্টুরেন্টের মালিককে ৬০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। ভেজাল খাদ্যবিরোধী এ অভিযানে দাওয়াত রেস্টুরেন্ট ছাড়াও লাইসেন্স না থাকা এবং নোংরা ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে খাবার পরিবেশনের দায়ে জামালখান এলাকার গ্র্যান্ড সিকদার হোটেল মালিককে ২০ হাজার টাকা এবং মোগল হোটেল মালিককে ৭ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। একই অপরাধের দায়ে লাভ লেইন এলাকার স্বপ্নীল হোটেল মালিককে ৩ হাজার টাকা এবং মন সুন্দর হোটেল কর্তৃপক্ষকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

SHARE