চট্টগ্রাম নগরীর বেশিরভাগ রাস্তা হকারদের দখলে বাড়ছে দুর্ঘটনা, জনদুর্ভোগে সাধারণ মানুষ

144

।।দেশরিভিউ, চট্টগ্রাম।।

বন্দরনগরী চট্টগ্রামের ফুটপাতের পাশাপাশি রাস্তার বিশাল অংশও হকারদের দখলে চলে যাওয়ায় যানবাহন চলাচলে চরম প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি হচ্ছে। ফুটপাত না পেয়ে পথচারীদের চলতে হচ্ছে রাস্তার উপর দিয়ে। এতে বেড়েই চলেছে দুর্ঘটনা। তবে কোটি কোটি টাকা চাঁদা আদায়ের সুযোগ থাকায় রাজনৈতিক বলয়ের হকার নেতারা দীর্ঘদিন ধরে ফুটপাত নিয়ন্ত্রণ করছে। তাই বারবার উদ্যোগ নিয়েও তাদের উচ্ছেদ করা যাচ্ছে না বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।

নগরীর নিউ মার্কেট থেকে আমতল হয়ে তিন পোলের মাথা যাওয়ার পুরোটা পথ এখন অনেকটা হকারদের দখলে। ফুটপাত জুড়ে যেমন ভ্রাম্যমাণ হকারদের পণ্য রয়েছে, তেমনি রাস্তার একটি অংশেও হকার বসে গেছে। বলা চলে মাঝ রাস্তা দিয়ে চলতে হচ্ছে ব্যস্ততম সড়কের পথচারীদের। শুধু নিউ মার্কেট নয়। নগরীর অধিকাংশ গুরুত্বপূর্ণ সড়কের এমন চিত্র।

সিডিএর প্রধান নগর পরিকল্পনাবিদ স্থপতি শাহীনুল ইসলাম খান বলেন, রাস্তায় হাঁটার কারণে গাড়ির গতি কমে যায় এবং দুর্ঘটনার সম্ভাবনা বেড়ে যায়।

সিএমপির উপ-কমিশনার তারেক আহমেদ বলেন, ফুটপাত শুধুমাত্র পথচারীদের জন্যই থাকা উচিত। আমাদের লোকবলের কিছুটা সংকট রয়েছে। আমরা হকারদের তাড়িয়ে দিলে আবার চলে আসে।

তবে হকারদের দাবি, সিটি মেয়রের অনুমতি নিয়েই তারা এখন বিকেল ৩টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত ফুটপাতে বসছেন। আর প্রশাসনের অনুমতি থাকায় ফুটপাতের হকারদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিতে পারছে না পুলিশ।

সিএমপির কোতোয়ালি থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ মহসিন বলেন, সড়ক আইনে যেমন জরিমানা বাড়িয়ে দেয়া হয়েছে সেভাবে যদি রাস্তা দখলের বিরুদ্ধেও কঠোর আইন করা হয় তাহলে তাদের উচ্ছেদ করা সহজ হবে।

নগরীর ফুটপাতের হকারদের কাছ থেকে নানাভাবে প্রতি মাসে কোটি কোটি টাকা আয় হয় হকার নেতাদের রাজনৈতিক সিন্ডিকেটগুলোর। তাই হকারদের ফুটপাত দখলে উৎসাহ দেয় বলে অভিযোগ নগর পরিকল্পনাবিদ প্রকৌশলী সুভাষ বড়ুয়ার।

তিনি বলেন, টাকা তোলার জন্য একটা সিন্ডিকেট তৈরি হয়েছে। এ কারণে হকাররা বেশি সাহস পাচ্ছে।

চট্টগ্রামে তিনটি সংগঠনের ব্যানারে ৫০ হাজারের বেশি হকার রয়েছে নগর জুড়ে। এর মধ্যে নিউ মার্কেট এবং তার আশপাশের এলাকা, আগ্রাবাদ ও ইপিজেড এলাকায় রয়েছে সবচেয়ে বেশি হকার।

SHARE