চন্দনাইশের আলোচিত ছাত্রলীগ সভাপতি রিকনের বিরুদ্ধে এবার চাঁদাবাজি মামলা

389

।দেশরিভিউ নিউজ। 

চন্দনাইশের আলোচিত শীর্ষ সন্ত্রাসী বৈলতলী ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি রিকন জেল থেকে বের হয়ে আবারো বেপরোয়া। ডজন খানেক মামলার আসামী আজিজুল হক চৌধুরী রিকন চন্দনাইশ থানার বৈলতলী ইউনিয়নের জাফরাবাদ এলাকায় সোমবার (২৩ মার্চ) রাত সাড়ে ১১টায় জমি দখল ও ৫লাখ টাকা চাঁদা আদায়ে ব্যর্থ হয়ে নুর এলাহী বাবুল নামের একজনের জায়গায় মাছের প্রজেক্টের টিনের ঘেরাও দেয়া বাউন্ডারি ও ঘরবাড়ি ভাঙচুর করেছে। এ ঘটনায় বানু মিয়া নামের এক আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

আজিজুল হক চৌধুরী রিকন বৈলতলী ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি হওয়ার পর থেকেই এলাকায় বিভিন্ন সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালিয়ে আসছিল। তার বিরুদ্ধে নারী নির্যাতন, ধর্ম অবমাননাসহ নানা অভিযোগে বিভিন্ন থানায় ডজন খানেক মামলা রয়েছে।

স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, তালিকাভুক্ত রাজাকার মো: ছৈয়দ পুত্র রিকন দীর্ঘদিন ধরে বাবুলের জায়গা দখলের চেষ্টা করছিল। মাসখানেক আগে জেল থেকে বেরিয়ে এসে আবারো বাবুলের কাছে ৫ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে । বাবুল এজন্য ১০-১২দিন আগে রিকনের নামে চন্দনাইশ থানায় একটি অভিযোগ করেন। চাঁদা না পাওয়ায় সোমবার (২৩ মার্চ) রাত সাড়ে এগারোটায় তার চারভাই এলিন, রিটন, টিংকু, রিংকু সহ মোরশেদ, আকাশ কবির তুষার, আবু হানিফ, ইমরুল কায়েস, বানু মিয়া সহ আরো ১০-১২ জনের একদল সন্ত্রাসী নিয়ে বাবুলের মাছের প্রজেক্টের বাউন্ডারি ও টিনের ঘর ভাঙচুর শুরু করে। এ সময় তারা প্রজেক্টের চারপাশে দেওয়া টিনের বেড়া সহ ঘরে ভাঙচুর করে। খবর পেয়ে বাবুলের পরিবার বাধা দিতে গেলে তাদের অস্ত্র উঁচিয়ে হত্যার হুমকি দেয় রিকন। স্থানীয় মেম্বার মুহিব চৌধুরী বিষয়টি ফোনে চন্দনাইশ থানায় অবহিত করলে পুলিশ আসার খবর পেয়ে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়। পরে বাবুল বাদী হয়ে রিকন সহ আরো দশজনকে আসামি করে থানায় চাঁদাবাজি মামলা দায়ের করেন। ঘটনার পর থেকে রিকনসহ অন্যান্য আসামীরা পলাতক রয়েছে।

এ ব্যাপারে নুর এলাহী বাবুল বলেন, ‌‘রিকন আমার কাছে দীর্ঘদিন ধরে চাঁদা দাবি করে আসছিল, চাঁদা না দিলে জমি দখল নেওয়ার হুমকি দেয়। জেল থেকে বেরিয়ে আবারো চাঁদা দাবি করলে আমি থানায় একটি অভিযোগ করি। সোমবার রাতে হঠাৎ করে আমার মাছের প্রজেক্টে ভাঙচুর শুরু করে। আমি আমার নিরাপত্তা নিয়ে চিন্তায় আছি। ’

চন্দনাইশ থানার অফিসার ইনচার্জ কেশব চক্রবর্তী বলেন, ‘এ ঘটনায় থানায় মামলা করার পর আমরা বানু মিয়া নামের একজনকে আটক করি। রিকন সহ অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারে চেষ্টা চলছে।’

SHARE