চমেকে অবৈধ ছাত্রলীগের দাপট, সংঘর্ষের ঘটনায় মামলা

498


।।দেশরিভিউ সংবাদ।।
চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষের ঘটনায় ১৬ জনকে আসামী করে মামলা  দায়ের করা হয়েছে। চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের ছাত্র খোরশেদুল ইসলাম  বাদী হয়ে পাঁচলাইশ থানায় সোমবার রাতে মামলাটি দায়ের করেন। মামলার আসামীরা সবাই নগর আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দিনের অনুসারী।

পাঁচলাইশ থানা সূত্রে জানা গেছে, দায়েরকৃত এজাহারে ১৬ জনকে আসামি করা হয়েছে। আসামীদের মধ্যে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি, সেক্রেটারি, ছাত্র সংসদের ভিপি, জিএস এজিএস, ইন্টার্ন ডক্টর অ্যাসোশিয়নের আহ্বায়ক, সচিবের নাম রয়েছে। তবে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ বলছে, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ছাত্রলীগের কোন বৈধ কমিটি নেই। দুষ্কৃতিকারীরা ছাত্রলীগের নাম ব্যবহার করে উত্তেজেনা সৃষ্টি করছে।

সোমবার রাতে দায়েরকৃত মামলার বিষয়ে পাঁচলাইশ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কাশেম ভূইয়া বলেন, ‘চমেকের সংঘর্ষের ঘটনায় খোরশেদুল ইসলাম  নামে একজন বাদি হয়ে মামলা করেছেন। আমরা মামলাটি রেকর্ড করে তদন্ত করছি।

এদিকে ছাত্রলীগের অভ্যন্তরীন কোন্দল ও সংঘর্ষের বিষয়ে জানতে চাইলে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সহ সভাপতি মাহমুদুল হাসান তুষার দেশরিভিউকে বলেন, মেডিকেল কলেজে কমিটি দেওয়ার এখতিয়ার রাখে শুধুমাত্র বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটি। চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ অনুমোদিত কোন বৈধ কমিটি নেই জানিয়ে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের এই নেতা বলেন,
যারা সংঘর্ষের ঘটনায় জড়িত তাদের বিরুদ্ধে পুলিশ ব্যবস্থা গ্রহন করুক।

প্রসঙ্গত, গত রোববার (১২ জুলাই) সকালে চমেক হাসপাতালে হাই ফ্লু নজেল ক্যানুলা দিতে শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মুহিবুল হাসান নওফেল এবং মেয়র প্রার্থী রেজাউল করিম চৌধুরী যান। তারা হাসপাতাল ত্যাগ করার পর স্লোগান দেওয়াকে কেন্দ্র করে ব্যারিস্টার মুহিবুল হাসান নওফেলের অনুসারীদের উপর নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিনের অনুসারীরা অতর্কিত হামলা করার অভিযোগ উঠে।
 

SHARE