চমেক হাসপাতালে নিয়ম করেই হচ্ছে অনিয়ম: চলছে সীমাহীন সিট বাণিজ্য

188


।।আকতার হোসেন, দেশরিভিউ।।
চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ম করেই হচ্ছে অনিয়ম। হাসপাতালে রোগীদের সিট সংকট থাকলেও টাকার বিনিময়ে এখানে সিট ব্যবস্থা করে দিচ্ছে হাসপাতালের কর্মচারীরা। কোনভাবেই সিট বানিজ্য বন্ধ করা সম্ভব হচ্ছে না চমেক হাসপাতালে। এতে করে চমেক হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের দুর্ভোগও কমছে না। বন্ধ হচ্ছে না রোগী ভর্তিতে অতিরিক্ত অর্থ আদায়সহ সিট (রোগীদের শয্যা) বাণিজ্য।

জানা গেছে, নানা অভিযোগের প্রেক্ষিতে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অবৈতনিক সাড়ে তিনশ’ আয়া-ওয়ার্ডবয় অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। এরপরও টাকা ছাড়া মিলছে না রোগীদের বিনামূল্যের চিকিৎসাসেবা।

সড়ক দূর্ঘটনায় আহত হয়ে নগরীর সিটি কলেজের ছাত্র সুমন ভর্তি হয়েছিলো চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। চিকিৎসকদের পরামর্শে তাকে ওয়ার্ডে স্থানান্তর করা হলেও সিট পেতে ওয়ার্ড বয়কে দিতে হয় ৫০০ টাকা। এদিকে সবচেয়ে বেশী অভিযোগ চমেক হাসপাতালের নিচতলায় অবস্থিত বাতব্যথা প্যারালাইসিস চিকিৎসা ও পুনর্বাসন বিভাগে (ফিজিক্যাল মেডিসিন অ্যান্ড রিহ্যাবিলিটেশন) চিকিৎসা নিতে যাওয়া রোগীদের। ওয়ার্ড বয়দের টাকা দেওয়া ছাড়া কোন চিকিৎসায় এ বিভাগে পাওয়া যাচ্ছেনা বলছে ভূক্তভোগীরা।

চিকিৎসা নিতে আসা রোগী ও তাদের আত্মীয়স্বজনদের সাথে কথা বলা জানা গেছে, রোগীদের ট্রলি বা চেয়ারে করে ওয়ার্ডে নিয়ে যাওয়া-নিয়ে আসা, লিফটে রোগী নিয়ে উঠা-নামা, সিটের ব্যবস্থা করতে টাকা ছাড়া কাজ হয়না চমেক হাসপাতালে। এছাড়াও প্রতিটি ওয়ার্ডের গেইটম্যানদের চাঁদাবাজিতে অতিষ্ট রোগীদের দর্শনার্থীরাও। পুরো হাসপাতাল জুড়ে ঔষধের ফার্মেসি ও রোগ নিরাময় কেন্দ্রের দালালচক্র সক্রিয় রয়েছে।

তবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছে, লোকবলের অভাবে এই হাসপাতালে চিকিৎসাসেবা দিতে বেগ পেতে হচ্ছে তাদের। জানা গেছে, এক হাজার ৩১৩ শয্যার চমেক হাসপাতালে প্রতিদিন চিকিৎসা নিতে আসেন তিন হাজারেরও বেশি রোগী। চট্টগ্রামের আশপাশের ও তিন পার্বত্য জেলার বাসিন্দা এই হাসপাতালের ওপর নির্ভরশীল।

SHARE