চাকরিচ্যুতির আদেশ উঠানো হয়নি জবি শিক্ষক নাসিরের

271

প্রকাশনা জালিয়াতির অভিযোগে চাকরিচ্যুত জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) ইংরেজি বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান সহযোগী অধাপক নাসির উদ্দিনকে করা চাকরিচ্যুতির আদেশ উঠানো হয়নি এবং তা কোনো আন্দোলনের দ্বারা উঠানো হবে না বলে জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. মীজানুর রহমান।

রবিবার (৬ মে) দুপুর ২টায় উপাচার্যের অফিস কক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

উপাচার্য বলেন, ‘ছাত্র প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠকে বলা হয়েছে তাকে (নাসির উদ্দিন) আবেদন করতে হবে। সেটা তিনি যেভাবে (পুনর্বিবেচনা বা ক্ষমাপ্রার্থনা) চাইবেন সেভাবেই সিন্ডিকেট তা বিবেচনা করবে। এর বাইরে কোনোভাবেই তাকে চাকরিতে বহালের সুযোগ নেই। এছাড়া তার আবেদনের প্রেক্ষিতে তাকে আবারও চাকরিতে বহাল করা হবে এমন নিশ্চয়তাও আমরা দিচ্ছি না।’

তিনি বলেন, ‘সিন্ডিকেটের সিদ্ধান্ত মোতাবেক তাকে চাকরিচ্যুত করা হয়েছে, কিন্তু শাস্তির সর্বশেষ ধাপ অর্থাৎ বহিষ্কার করা হয়নি। চাকরিচুত্য করার ফলে এখন তিনি বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে চাকরি করতে পারবেন ও কিছু সুযোগ-সুবিধাদি পাবেন। তাকে বহিষ্কার করা হলে সে সুযোগ থাকতো না। তাকে সে সুযোগটি দেওয়া হয়েছে।’

নাসির উদ্দিনের চাকরিতে ফেরা বা ক্লাস নেওয়াকে গুজব আখ্যা দিয়ে উপাচার্য মীজানুর রহমান বলেন, ‘অনেকে বলছেন ছাত্র প্রতিনিধির সঙ্গে বৈঠকে তাকে চাকরিতে বহাল করে ক্লাস নেওয়ার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। তবে আমি আপনাদের জানাচ্ছি— এখন কোনোভাবেই সিন্ডিকেটের সিদ্ধান্ত ছাড়া তাকে চাকরিতে বহাল করা হবে না। তার আবেদনের পর পরবর্তী সিন্ডিকেট সভায় এটি নিয়ে আলোচনা করার পর এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।’

এর আগে সকাল থেকে শিক্ষার্থীরা ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করে আন্দোলন কর্মসুচি পালন করতে থাকেন। এসময় প্রায় ২০ থেকে ২৫টি বিভাগের সেমিস্টার ফাইনাল বর্জন করে শিক্ষার্থীরা। বেলা ১২টার দিকে উপাচার্যের সঙ্গে তার কনফারেন্স কক্ষে আলোচনায় বসেন ১৫ সদস্যের ছাত্র প্রতিনিধি দল।

প্রায় একঘণ্টা বৈঠক শেষে তারা তাদের আন্দোলন সফল হয়েছে দাবি করে জানান,  উপাচার্য তাদের আশ্বাস দিয়েছেন শিগগিরই নাসির উদ্দিনকে চাকুরিতে বহাল করা হবে এবং ওই শিক্ষককে ক্লাসে ফিরবেন।

এরপর পরই আজকের মতো আন্দোলন কর্মসূচি স্থগিত করেন তারা।

দেশরিভিউ/শিমুল

SHARE