চুরি করতে গিয়ে ফ্ল্যাটেই থাকলেন, ঘুমালেন এসির বাতাসে

185

।। দেশরিভিউ, সংবাদ ।।

মাসুম গুলশানের এক ব্যক্তির ভাড়া বাসার ফ্ল্যাটের গ্রিল কেটে চুরি করতে যান। কিন্তু চুরি করতে গিয়ে তিনি ওই বাসাতেই থাকার সিদ্ধান্ত নেন। প্রথমত তাঁর নিজের কোনো বাসা নেই। থাকেন রাস্তায় রাস্তায়। দ্বিতীয়ত, মাসুমের আগে থেকেই জানা ছিল ওই বাসায় বর্তমানে কেউ থাকে না।

ওই বাড়ির ভাড়াটিয়া গুলশানের নর্থ অ্যান্ড কফির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মার্কিন নাগরিক রিচার্ড হাবার্ড। তিনি বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রে বসবাস করছেন। মাসুম বন্ধ ঘরের ওই বাসায় আরাম-আয়েশে দিন-রাত্রি যাপন শুরু করেন। খেতেনও ওই বাসায় ফ্রিজে গচ্ছিত থাকা খাবার। টিভি দেখতেন আর ঘুমাতেন এসির বাতাসে। কিন্তু বিপত্তি বাঁধল তখন যখন ওই বাসার সিসিটিভির ফুটেজে মাসুমকে দেখা গেল।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বসেই রিচার্ড হাবার্ড তাঁর গুলশানের বাসার সিসিটিভির ভিডিওতে দেখতে পান, এক অযাচিত ব্যক্তি সেখানে থাকছেন। এরপর তিনি ব্যাপারটি বাসার নিরাপত্তাকর্মীকে জানান। ওই নিরাপত্তাকর্মী ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গুলশান থানায় গিয়ে বিষয়টি জানান। এরপর শনিবার দিবাগত গভীর রাতে পুলিশ ওই বাসা থেকে মাসুমকে গ্রেপ্তার করে।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে বিষয়টি গুলশান জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার (এসি) রফিকুল ইসলাম। তিনি বলেন, ‘মাসুম নিয়মিত বিভিন্ন বাসায় চুরি করে বেড়ান। মূলত তার টার্গেট বিদেশিরা থাকেন এমন বাসা। মাসুমের থাকার জায়গা নেই। থাকেন রাস্তায় রাস্তায়। গুলশানের রিচার্ড হাবার্ডের ওই বাসায় লোকজন নেই জেনেই তিনি চুরি করতে যান। গিয়ে প্রথমে গ্রিল কাটেন। এরপর দরজা ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করেন। ওই বাসায় লোকজন না থাকায় তিনি আরামে থাকতে শুরু করেন।
খেতেও থাকেন ওই বাসায় থাকা খাবার। ঘুমাতেনও এসির বাতাসে। তিনি ভেবেছিলেন, যেহেতু কেউ তাঁকে দেখছে না, সেহেতু আরো কিছুদিন তিনি সেখানেই থাকবেন।

রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘ফ্ল্যাটে মাসুমের খোঁজ প্রথম পান রিচার্ড হাবার্ড। তিনি সিসিটিভির ফুটেজে এই দৃশ্য দেখেন। তারপর তিনি নিরাপত্তাকর্মীকে জানান। নিরাপত্তাকর্মী আমাদের জানালে আমরা মাসুমকে গ্রেপ্তার করি। এই মাসুমকে আমরা তিন মাস আগে থেকে খুঁজছি। তার বিরুদ্ধে আরো কয়েকটি বাসায় চুরির অভিযোগ আছে। এই চুরির একটি মামলায় একবার মাসুম দীর্ঘদিন জেলও খেটেছেন।’

ডিএমপির পুলিশ কর্মকর্তা আরো বলেন, ‘গুলশানের আরেকটি বাসায় তিনি চুরি করেছিলেন। পরে ওই চুরির ঘটনায় তাঁর বিরুদ্ধে মামলা হয়। ওই ভবনের সিসিটিভির ফুটেজে আমরা দেখতে পাই, মাসুম নাচছিলেন। তারপর থেকে আমরা তাঁকে খুঁজছি। এর ভেতরে এক ইতালীয় নাগরিকের ভাড়া বাসায়ও তিনি চুরি করেছেন। মাসুম মূলত বিদেশিদের ভাড়া বাসা টার্গেট করে চুরি করে থাকেন। সব তথ্য নিয়ে মাসুম চুরি করতে যেতেন।

রফিকুল ইসলাম আরো বলেন, ‘যে বাসা থেকে মাসুমকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে তিনি ওই বাসায় দুই রাত তিন দিন ছিলেন। তবে মাসুমের বিরুদ্ধে নর্থ অ্যান্ড কফির ব্যবস্থাপনা পরিচালক রিচার্ড হাবার্ড মামলা দায়ের করতে চাননি। তাই অন্য চুরির মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে আজ সোমবার তাঁকে আদালতে রিমান্ড চেয়ে পাঠানো হয়েছে। মাসুমের গ্রামের বাড়ি বরিশালে।’

SHARE