ছাত্রলীগের প্রতিবাদে পালিয়ে যাওয়া সিলিন্ডারের অবৈধ ব্যবসায়ী ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে ধরা!

154

।। দেশরিভিউ, চট্টগ্রাম ।।

বড় সিলিন্ডার থেকে অবৈধ প্রক্রিয়ায় ছোট সিলিন্ডারে অক্সিজেন রিফিল করে বিক্রি করতো বিসমিল্লাহ এন্টারপ্রাইজের স্বত্তাধিকারী শহিদুল ইসলাম। শুধু তাই নয়, করোনার সময় দাম বাড়িয়ে গ্রাহক থেকে নিয়েছেন প্রতি সিলিন্ডারে অতিরিক্ত ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা! অথচ অক্সিজেন সিলিন্ডার বিক্রি করতে লাইসেন্সও নেই তার।

মানুষের জীবনরক্ষাকারী অক্সিজেন করোনার সময় অতিরিক্ত দামে অবৈধভাবে বিক্রি করে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়া ব্যবসায়ী শহিদুল ইসলামের শেষ রক্ষা হল না এবার। চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. উমর ফারুকের জালে আটকাতে হল তাকে।

মানুষের জীবনরক্ষাকারী অক্সিজেন করোনার সময় অতিরিক্ত দামে অবৈধভাবে বিক্রি করে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়া ব্যবসায়ী শহিদুল ইসলামের শেষ রক্ষা হল না এবার। চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. উমর ফারুকের জালে আটকাতে হল তাকে।

মঙ্গলবার (৯ জুন) দুপুর বারটায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. উমর ফারুকের নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে আটক করা হয় শহিদুল ইসলামকে। পরে তাকে ৪ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। জরিমানা আদায়ের পর ছেড়ে দেওয়া হয় তাকে।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. উমর ফারুক দেশরিভিউকে বলেন, ‘চকবাজার থানার কাতালগঞ্জ এলাকার সার্জিস্কোপ হাসপাতালের সামনে বিসমিল্লাহ এন্টারপ্রাইজে অভিযান চালানো হয়। এই প্রতিষ্ঠানের স্বত্তাধিকারী শহিদুল ইসলাম বড় সিলিন্ডার থেকে ছোট সিলিন্ডারে রিফিল করে বিক্রি করেন অক্সিজেন। যা সম্পূর্ণ অবৈধ। করোনা আক্রান্তসহ মুমূর্ষু রোগীর জন্য অক্সিজেন সিলিন্ডারের চাহিদা বাড়লে শহিদ প্রতি সিলিন্ডারে ১৫-২০ হাজার টাকা দাম বাড়িয়ে দেন।

তিনি আরও বলেন, ‘বিসমিল্লাহ এন্টারপ্রাইকের শহিদুল ইসলামের অক্সিজেন সিলিন্ডার বিক্রির জন্য বিস্ফোরক অধিদপ্তরের লাইসেন্সও নেই। অভিযানের খবর পেয়ে শহিদুল ইসলাম পালিয়ে যায়। পরে তাকে কল করে দোকানে এনে আটক করা হয়।লাইসেন্সবিহীন অক্সিজেন বিক্রি ও অতিরিক্ত দামে অক্সিজেন বিক্রির দায়ে বিসমিল্লাহ এন্টারপ্রাইজকে ৪ লাখ টাকা জরিমান করা হয়। পরে আটক শহিদুলকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

উল্লেখ্য এর আগে গত ৭ জুন আকাশছোঁয়া দামে অক্সিজেন বিক্রি, ছাত্রলীগ আসার খবরে পালালো দোকানদার’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ করা হয়েছিল দেশরিভিউতে।

SHARE