ছাত্রলীগ নেতা সুদীপ্ত হত্যা মামলার বিচার শুরু হচ্ছে

68

।। স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট , চট্টগ্রাম ব্যুরো ।।

চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগ নেতা সুদীপ্ত বিশ্বাস হত্যা মামলার বিচার শুরুর জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার চট্টগ্রাম মহানগর দায়রা জজ শেখ আশফাকুর রহমান এর আদালতে মামলাটি বিচার শুরুর জন্য দ্বিতীয় অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালতে স্থানান্তর করেছেন।

এর আগে মামলার পলাতক চার আসামি দীর্ঘদিন পলাতক থাকার পর আত্মসমর্পন করে জামিন আবেদন করলে তাদের জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেয় আদালত।

কারাগারের পাঠানো চার আসামি হলেন-আমজাদ হোসেন বোক্কা, মিজানুর রহমান রাকিব, আবু জিহাদ সিদ্দিকী ও মামুন।

চট্টগ্রাম মহানগর পিপি বীর মুক্তিযোদ্ধা অ্যাডভোকেট ফখরুদ্দিন চৌধুরী দেশরিভিউকে বলেন, ‘সুদীপ্ত হত্যা মামলাটি বিচার শুরুর জন্য প্রস্তুত করে মহানগর দায়রা জজ আদালত থেকে দ্বিতীয় অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালতে স্থানান্তর করার আদেশ দিয়েছেন। চার আসামি আত্মসমর্পন করে জামিন আবেদন করলে রাষ্ট্রপক্ষ জামিনের বিরোধিতা করেন। উভয়পক্ষের শুনানি শেষে আদালত তাদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।’

২০১৭ সালের ৬ অক্টোবর নগরীর দক্ষিণ নালাপাড়ার বাসা থেকে ডেকে নিয়ে ছাত্রলীগ নেতা সুদীপ্তকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। সে মহানগর ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক ছিলেন। চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগ নেতা দিদারুল আলম মাসুমসহ ২৪ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশিট জমা দেয় পুলিশ।

চার্জশিটে উল্লেখ করা হয়, আসামি আইনুল কাদের নিপু, মোরশেদ আলম নিপু, চশমা রুবেল, বাপ্পি, খায়ের, বাবু, রুবেল, শামিম, জাহেদ, এসএইচ মুরাদ, জিস, সালাহউদ্দিন, জাহেদ, কবির সবাই মিলে লালখান বাজারের মিটিং করে। নিপু অপারেশন চালানোর বিষয়ে একটি ম্যাপ দেয় সবাইকে। মোবাইলে সেই ম্যাপের একটি ছবি তুলে রাখে সবাই। ম্যাপে নালাপাড়ার একটি নীল গেইট চিহ্নিত করে সবাইকে দেখায়।

ঘটনার দিন সবাই পূর্বপরিকল্পনা মতো সিএনজি ও মোটরসাইকেলে করে নালাপাড়ায় যায়। চশমা রুবেল, মুরাদসহ তিন জন সুদীপ্তকে বাসা থেকে ঢেকে টেনেহিঁচড়ে বের করে নিয়ে আসে। তাকে লোহার পাইপ দিয়ে পিটিয়ে মোটা নিপু, দাঁড়িওয়ালা নিপু, রুবেলসহ আরও দুই-তিনজন খুন করে। অবশেষে সেই মামলার বিচার শুরু হল।

SHARE