জামায়াতী অধ্যক্ষের যৌন হয়রানীর বর্ননা: পুলিশকে অগ্নিদগ্ধ ছাত্রীর জবানবন্দী(ভিডিও)

5446

Exclusive ভিডিওটি দেখুন: 

||দেশরিভিউ/ফেনী||

ফেনীতে অগ্নিদগ্ধ হওয়া নুসরাত জাহান রাফিকে অভিযুক্ত জামায়াতী শিক্ষক ও মাদ্রাসা অধ্যক্ষ সিরাজ-উদ- দৌলা দীর্ঘদিন ধরে যৌনহয়রানী ও কুপ্রস্তাব দিয়ে আসছিলেন। গত ২৭ মার্চ  অধ্যক্ষ মাওলানা সিরাজ উদদৌলা নিজ কক্ষে ডেকে নিয়ে ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে শ্লীলতাহানিও করেন। এ ঘটনার বর্ননা তখন স্থানীয় থানায় দিয়েছিলেন ভিকটিম নুসরাত জাহান রাফি। সেই বর্ননায় উঠে এসেছে মাদ্রাসা অধ্যক্ষ সিরাজের যৌন হয়রানীর বিষদ বর্ননা। যৌন হয়রানী ও শ্লীতাহানির ঘটনায় ঐদিন থানায় মামলা হওয়ার পর থেকে আটক অধ্যক্ষের লোকজন ভিকটিম ছাত্রীকে নানা ভাবে হুমকি দিতে থাকে।

ভিডিওতে ছাত্রীকে বলতে দেখা যায়, ‘ফার্স্ট ইয়ারে থাকতে আমাকে তিনবার ডাকছিল। আমি এক হুজুরকে বলছি যে, হুজুর আমাকে প্রিন্সিপাল হুজুর এইগুলা কথা বলতিছে, খারাপ খারাপ কথা। উনার নাকি আমাকে ভালো লাগে। উনি আমাকে শক্ত হতে বলেছে। তারপর আমি উনাকে (প্রিন্সিপালকে) বলেছি, আমার জীবনে একটা কলঙ্ক হয়ে গেছে আমি জানিও না। উনিও ওইটার সুযোগ নিছে। উনি বলেছে যে, তোকে আর কেউ বিশ্বাস করবে না। তোর লাইফে তো আগে একটা কলঙ্ক আছে। তুই আমার সাথে থাক।’
‘উনি আমাকে পিয়ন দিয়ে ডাকছে। পিওনের নাম নুর আলম। উনি আমাকে বলেছে পরীক্ষার আগে প্রশ্ন দিবে।’
অধ্যক্ষ সিরাজ উদ্দৌলার বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ এটিই প্রথম নয়। এছাড়াও এলাকাবাসীর কাছ থেকে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ রয়েছে।
সোনাগাজী পৌরসভার মেয়র মো. রফিকুল ইসলাম খোকন বলেন, ‘গবিন্দপূর্বদা মাদ্রাসা থেকে তাকে নৈতিক অবক্ষয়ের জন্য ভাগিয়ে দিয়েছে। তিনজন মেয়ে তার অপকর্মের কথা বলেছে।’

উল্লেখ্য ২৭ মার্চের ঘটনায় নুসরাতের মায়ের করা মামলায়  অধ্যক্ষ এখন কারাগারে। পুলিশ অধ্যক্ষকে আটকের পর থেকে তার তার লোকজন মামলা তুলে নিতে বিভিন্ন ধরনের হুমকি-ধমকি দিয়ে আসছিল।

আরো পড়ুন:

গায়ে আগুন দেয়ার বর্ণনা দিলেন অগ্নিদগ্ধ সেই পরীক্ষার্থী (অডিও সহ)

SHARE