জামায়াতের পৃষ্ঠপোষকতায় নতুন রাজনৈতিক মোর্চা, নেতৃত্বে ২০ দলীয় জোট নেতা

1559

||দেশরিভিউ, ঢাকা||

বিএনপির একটি শরিকদলের নেতৃত্বে, জামায়াতের পৃষ্ঠপোষকতায় আত্মপ্রকাশ ঘটতে যাচ্ছে নতুন আরেকটি রাজনৈতিক প্ল্যাটফর্মের। সরাসরি সামনে না এসে এ উদ্যোগের পেছন থেকে সব ধরনের সহায়তা দিবে জামায়াত। খালেদা জিয়ার মুক্তি তথা সরকারের বিরুদ্ধে রাজপথে আন্দোলন গড়ে তোলার লক্ষ্যে নতুন প্ল্যাটফর্মটি গঠনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

আগামী বৃহস্পতিবার (২১ জুন) জাতীয় প্রেস ক্লাবে আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে নতুন এ প্ল্যাটফর্মের ঘোষণা দেওয়া হবে। নতুন এ প্ল্যাটফর্মের প্রধান উদ্যোক্তা একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে ‘নির্বাচনকালীন সরকারের’ মন্ত্রী হতে চেয়েছিলেন। কিন্তু ‘নির্বাচনকালীন সরকার’ গঠন না হওয়ায় তার স্বপ্ন ভঙ্গ হয়।

 

২০ দলীয় জোটের নেতৃত্ব দেওয়ার স্বপ্নে বিভোর থাকা ঐ নেতা, নির্বাচনের আগে নিজ থেকেই জোটের নেতৃত্বে দেওয়ার আগ্রহও দেখিয়েছিলেন যা নিয়ে বিএনপির মধ্যে চরম অসন্তোষ সৃষ্টি হয়েছিল। ২০ দলীয় জোটের কয়েকটি বৈঠকে নেতৃত্ব দিয়ে কয়েকদিনের জন্য বিএনপি জোটের প্রধান সমন্বয়ক বনে যাওয়া ঐ নেতা নির্বাচনের পর ২০ দলীয় জোটের নেতৃত্ব তো দূরের কথা, কোনো বৈঠকেও ডাক পাননি।

 

 

‘খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলনে বিএনপি নেতৃবৃন্দ ষোল আনা ব্যর্থ’ — এমন ইস্যু সামনে এনে জোটের এই শীর্ষ নেতা জামায়াতের পৃষ্ঠপোষকতায় বিএনপির বিকল্প দল হিসেবে নতুন একটি রাজনৈতিক প্ল্যাটফর্ম দাঁড় করানোর চেষ্টা করছেন। মহান স্বাধীনতাযুদ্ধের একজন খেতাবপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা হয়েও নেতৃত্বের লোভে স্বাধীনতাবিরোধী জামায়াতের সঙ্গে তিনি নিবিড় সম্পর্ক গড়ে তুলছেন বলে মনে করছেন রাজনৈতিক সচেতন মহল।

 

যুদ্ধাপরাধের দায়ে অভিযুক্ত জামায়াতের শীর্ষ নেতাদের নিয়ে গত ১৫ মে জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক গোলটেবিল বৈঠকে মিলিত হন মহান মুক্তিযুদ্ধের ওই বীরবিক্রম। এর একদিন পর গত ১৭ মে রাজধানীর লেডিস ক্লাবে লোকচক্ষুর আড়ালে থাকা জামায়াতের সেক্রেটারি জেনারেল ডা. শফিকুর রহমান, কেন্দ্রীয় নেতা তাসনীম আলম, মাওলানা আব্দুল হালিম, জামায়াতের সাবেক সংসদ সদস্য হামিদুর রহমান আজাদকে পাশে বসিয়ে  ইফতার পার্টির আয়োজন করে তুমুল সমালোচনার মুখে পড়েছিলেন বিএনপি সরকারের সাবেক এই মন্ত্রী।

 

 

 

একাধিক দায়িত্বশীল সূত্রে জানা গেছে, শুধু গোলটেবিল আর ইফতার পার্টি নয়, মহাখালীর ডিওএইএস’র বাসায় জামায়াত নেতাদের সঙ্গে নিয়মিত বৈঠক করছেন নতুন  প্ল্যাটফর্মের উদ্যোক্তা। রোববার (১৬ জুন) রাতেও নিজের বাসায় জামায়াত নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেন তিনি। ওই বৈঠকেই ঠিক করা হয় আগামীদিনের কর্মপন্থা।

 

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ক্ষমতাসীন জোটে ঢোকার চেষ্টা ব্যর্থ হওয়া, বিএনপি জোটে মূল্যায়ন না পাওয়া এবং বিএনপির কাছে ঐক্যফ্রন্টের গুরুত্ব বেড়ে যাওয়ায়  আলোচনায় আসার জন্য নতুন এ প্ল্যাটফর্ম দাঁড় করানোর উদ্যোগ নিয়েছেন তিনি। আর এই উদ্যোগের গুরুত্ব বাড়াতে ইস্যু হিসেবে নিয়েছেন সরকার বিরোধী আন্দোলন আর খালেদা জিয়ার মুক্তি।

 

অন্যদিকে দীর্ঘদিন যাবৎ জামায়াতও চেষ্টা চালাচ্ছিলো চাচ্ছিল কোনো একজন খেতাবপ্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধা বা মুক্তিযোদ্ধার নেতৃত্বে থাকা রাজনৈতিক দলকে সামনে রেখে প্রকাশ্য রাজনীতিতে ফেরার। এভাবে দুইপক্ষের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য মিলে যাওয়ায় নতুন প্ল্যাটফর্ম দাঁড় করানোর উদ্যোগ বাস্তবে রূপ নিতে যাচ্ছে আগামী বৃহস্পতিবার (২১ ‍জুন)।

 

সূত্র মতে, এ উদ্যোগকে গ্রহণযোগ্য কাঠামোয় দাঁড় করানোর জন্য বিএনপির সংস্কারপন্থী হিসেবে পরিচিতি নেতাদের ডাকা হচ্ছে নতুন ওই প্ল্যাটফর্মে। দলটিতে অবমূল্যায়নের শিকার বিভিন্ন নেতাদেরকেও বিভিন্ন প্রলোভনে ডাকা হচ্ছে সেখানে।

 

পাশাপাশি ২০ দলীয় জোটের শরিক জাতীয় পার্টির (কাজী জাফর) মহাসচিব মোস্তফা জামাল হায়দার, বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান সৈয়দ মোহম্মদ ইবরাহিম, খেলাফত মজলিসের মহাসচিব ড. আহমেদ আব্দুল কাদের, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির (এনপিপি) চেয়ারম্যান ড. ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টির (জাগপা) চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার তাসমিয়া প্রধান, জাতীয় দলের চেয়ারম্যান এহসানুল হুদাকেও আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে ওই প্ল্যাটফর্মের আত্মপ্রকাশ অনুষ্ঠানে।

 

অবশ্য জামায়াতের সার্বিক সহযোগিতা ও অর্থায়নে দাঁড় করাতে যাওয়া নতুন এই প্ল্যাটফর্ম নিয়ে জামায়াত, ২০ দলীয় জোটের শরিকদল এবং এর প্রধান উদ্যোক্তা গণমাধ্যমে কোনো কথা বলতে রাজি হননি।

 

তবে এই উদ্যোগের সঙ্গে সম্পৃক্ত ২০ দলীয় জোটের একজন শীর্ষ নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে সারাবাংলাকে বলেন, ‘ নেতৃত্বের লোভ সকলের থাকে, সবাই চায় নেতৃত্বের আসনে থাকতে। নতুন এই প্ল্যাটফর্মের উদ্যোক্তাও হয়তো সেটিই চাচ্ছেন। তবে বিএনপিকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে কোনো কিছু করলে কয়েকদিনের জন্য হয়ত মিডিয়া কাভারেজ পাওয়া যাবে। কিন্তু লক্ষ্যে পৌঁছানো যাবে না।’

SHARE