জামায়াতের ১৪ নারী নেত্রী আটক, জানা গেছে গোপন আস্তানার চাঞ্চল্যকর তথ্য

85

জামায়াতের ১৪ নারী নেত্রী আটক। জানা গেছে গোপন আস্তানার চাঞ্চল্যকর তথ্য

দেশরিভিউ করেন্সপন্ডেন্ট: একটি ফ্লাট বাসা থেকে জামায়াতে ইসলামীর ১৪ জন নারী নেত্রীকে আটক করতে কুমিল্লা জেলা পুলিশ। ছোট তিন কক্ষের বাসা থেকে এতো নারী আটকের পর খোদ এলাকাবাসী বিষয়টি চাঞ্চল্যকর হিসাবে মন্তব্য করছে।

জানা যায়, কুমিল্লা জেলার দক্ষিণ লাকসাম বাইপাস হাউজিংয়ের একটি ফ্লাট বাসা থেকে ১৪ জন জামায়াতে ইসলামীর মহিলা নেত্রীকে গতকাল শুক্রবার বিকালে আটক করে পুলিশ।

এলাকাবাসী বলছে, মুখ কাপড়ে ডাকা এসব নারীকে আমরা এই এলাকায় আগে কখনো দেখিনি। আর যে বাসা থেকে তাদের আটক করা হয়েছে সে বাসায় এতো মহিলা একসাথে বসবাস করছে তাও কখনো বুঝতে পারিনি। পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ফ্লাটটিতে অভিযান চালায় পুলিশ। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা জানতে পেরেছে জামায়াতের মহিলা নেত্রীরা বিভিন্ন এলাকা থেকে গরীব, অসহায়, অসচ্ছল মেয়েদের আর্থিক প্রলোভন দেখিয়ে এ বাসায় নিয়ে আসেন। ব্যক্তিগত ও পারিবারিকভাবে হতাশায় ভুগতে থাকা নারীদেরও টার্গেট করেন তারা। কয়েকদিন থাকা খাওয়ার সুযোগ সুবিধা দিয়ে অসহায়ত্বের সুযোগ বুঝে তাদের জামায়াতে ইসলামী নারী সংগঠনের সদস্য করা হয়। তারপর বিভিন্ন জেলা উপজেলায় হতদরিদ্র নারীদের সংগঠনে যুক্ত করার জন্য অনুরুপ ট্রেনিং দেয়া হয়। মূলত থাকা খাওয়া আর্থিক সুবিধা ছাড়াও মানসিকভাবে প্ররোচিত ও প্রলুব্ধ করে নারীদের এমন গোপন আস্তানায় থাকতে আগ্রহী করা হয়।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিসিটিসি) দপ্তরের এক উদ্ধর্তন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ঘটনাগুলো খুবই উদ্বেগজনক। সাধারন মানুষ জামায়াতের নারী সংগঠনের ঘটনাগুলোকে খালি চোখে স্বাভাবিক মনে করলেও এর শিকড় অনেকদূর বিস্তৃত। ইতিপূর্বে সিরাজগঞ্জ থেকে আটক ৪ জন জেএমবি’র নারী সদস্য, রাজধানী ঢাকার আরামবাগ থেকে আটক ২ নারী জেএমবি সদস্য, নরসিংদী থেকে আটক ২ নারী জেএমবি সদস্যকে আটকের পর বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেছিলাম। তারা প্রত্যেকেই ছাত্রশিবিরের ছাত্রীসংস্থা সংগঠন অথবা জামায়াতে ইসলামীর নারী সংগঠনের সদস্য হওয়ার পর একসময় জেএমবি’তে যোগদান করে। মূলত জামায়াত শিবিরের নারী নেত্রীরা গোপন আস্থানা বা গোপন বৈঠকের নামে কিশোরী ও নারীদের মধ্যে  সংকোচিত মানসিকতা তৈরীর প্রাথমিক কাজটি করে। একটা সময় এসকল নারী কিংবা কিশোরীরা মানসিক ভাবে তাদের মতবাদের সাথে সম্পূর্ন একমত পোষন করেন। আর এতে করে তারা নিজেরাও নতুনভাবে যখন এককেন্দ্রীক চিন্তা ভাবনা করতে শুরু করে তখনি জেএমবি সহ অন্যান্য জঙ্গী সংগঠনের পক্ষ থেকে তাদের দাওয়াত দেয়া হয়।

এ বিষয়ে মনোরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. সাইফউদ্দিন রশিদ বলেন, বিশ্বায়নের এ যুগে নারী পুরুষ সবার চিন্তা চেতনা উন্মুক্ত করার জন্য উদ্বুদ্ধ করা উচিত। কিন্তু যারা মানসিকতাকে সংকীর্ন করার কাজে উদ্বুদ্ধ করেন তারা আপনার আমার এমনকি কারো মঙ্গল কামনা করতে পারেন না। এটা আমাদের বুঝতে হবে।

 

SHARE