জামায়াত নেতাদের কয়েকশো কোটি টাকা লুটপাটে দেউলিয়া ‘দিগন্ত মিডিয়া’

301

।।সোলায়মান বাদশা, বিশেষ প্রতিনিধি।। 

অবশেষে দেউলিয়া হয়েছে জামায়াতে ইসলামীর নিয়ন্ত্রণাধীন দিগন্ত মিডিয়া কর্পোরেশন লিমিটেড। পরিচালক ও কর্মকর্তাদের সীমাহীন লুটপাটে সর্বস্বান্ত হয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। হাজার হাজার বিনিয়োগকারীকে ঘুমে রেখে পানির দামে রাতারাতি বিক্রি হয়েছে আলরাজি কমপ্লেক্সে অবস্থিত দিগন্ত মিডিয়ার দুটি ফ্লোর। সর্বশেষ দিগন্ত পত্রিকার লাইসেন্স বিক্রির অভিযোগ উঠেছে দিগন্ত মিডিয়ার পরিচালক পর্ষদ সহ পত্রিকার প্রকাশক শামসুল হুদা এবং উপ সম্পাদক মাসুমুর রহমান খলিলীর বিরুদ্ধে।

দীর্ঘদিন যাবৎ অভিযুক্তদের লুটপাট ও সর্বশেষে ফ্লোর ও লাইসেন্স বিক্রির ঘটনায় স্থবির হয়ে পড়েছে জামায়াতে ইসলামের প্রকাশিত পত্রিকা দৈনিক নয়া দিগন্ত। বেতন ভাতার দাবীতে সাংবাদিক, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে বিরাজ করছে অসন্তোষ। অন্যদিকে সবচেয়ে বেশী ক্ষতির সম্মুখিন হয়েছে প্রতিষ্ঠানটির শেয়ার হোল্ডাররা। প্রায় ৮ হাজার বিনিয়োগকারী দিগন্ত মিডিয়ার কয়েকশো কোটি টাকার শেয়ার কিনে পথে বসেছেন।

জানা গেছে, বিএনপি জামায়াত ৪ দলীয় সরকার আমলে ২০০৩-০৪ সালে জামায়াতে ইসলামীর নিয়ন্ত্রণাধীন দিগন্ত মিডিয়া কর্পোরেশন লিমিটেড যাত্রা শুরু করে। যুদ্ধাপরাধ মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত জামায়াত নেতা মীর কাসেম আলী ছিলেন উদ্যোক্তা। বাংলা ও ইংরেজি সংবাদপত্র, টেলিভিশন, রেডিও, পেপারমিল এই ৫টি প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য ঐ সময় জামায়াতে ইসলামের মতাদর্শে বিশ্বাসী ২০ জন শিল্প উদ্যোক্তা পরিচালক ও কয়েকজন প্রতিনিধি পরিচালক নিয়ে যাত্রা শুরু করে দিগন্ত মিডিয়া। পরবর্তী সময়ে অর্থ সংগ্রহের জন্য উদ্যোক্তা পরিচালকের বাইরেও শেয়ার ছাড়ে দিগন্ত মিডিয়া কর্পোরেশন লিমিটেড। প্রায় ৮ হাজার বিনিয়োগকারীর সর্বনিম্ন ৫০ হাজার টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ১০ লাখ টাকার শেয়ার রয়েছে এই প্রতিষ্ঠানটিতে। যার মধ্যে বিশাল একটি সংখ্যা প্রবাসী শেয়ারহোল্ডার ও উদ্যোক্তা পরিচালক রয়েছেন দিগন্ত মিডিয়ায়।

দিগন্ত মিডিয়া কর্পোরেশনের তত্ত্বাবধানে ২০০৪ সালে যাত্রা শুরু করে নয়াদিগন্ত পত্রিকা। আর ২০০৮ সালের আগস্ট মাসে সম্প্রচার শুরু করে দিগন্ত টেলিভিশন। একই সময়ে কাজ শুরু হয় দি এশিয়ান পোস্ট-এর ডামি বা গৃহপ্রকাশ সংখ্যার কাজ। এসময় পেপারমিলের জন্য জায়গা কেনা হয় কালীগঞ্জে। তবে শুরু করা যায়নি দিগন্ত রেডিও।

সেসময়ে সবকিছুর মূল কেন্দ্রে ছিল উদ্যোক্তা মীর কাসেম আলী ও তার সাথে বেশ ক’জন পরিচালক। যারা সবাই ছিলেন জামায়াতে ইসলামির মতাদর্শে বিশ্বাসী এবং সংগঠনটির বিভিন্ন পর্যায়ে দায়িত্বশীল। এসময় দৈনিক নয়াদিগন্তের প্রকাশক করা হয় কেয়ারি লিমিটেডের প্রতিনিধি হয়ে থাকা পরিচালক শামসুল হুদাকে। শামসুল হুদার নেতৃত্বে দেশবিদেশে থাকা জামায়াত শিবিরের নেতাকর্মীদের পত্রিকা ও টেলিভিশনের জন্য প্রতিনিধি হিসাবে নির্বাচন করা হয়। পরবর্তীতে প্রতিনিধিরা শেয়ার কেনার জন্য বিনিয়োগকারীদের উৎসাহ দেওয়ার কাজে নামেন।

মানবতাবিরোধী অপরাধে মীর কাসেম আলী জেলে যাওয়ার পর দিগন্ত টেলিভিশনের সম্প্রচার বন্ধ হয় ২০১৩ সালের ৬ মে। ২০১৬ সালে মীর কাসেম আলীর মৃত্যুদন্ড কার্যকর হওয়ার পর প্রতিষ্ঠানের পরিচালক পর্ষদ ও শীর্ষ কর্মকর্তাদের মধ্যে লুটপাটের বিষয়টি প্রকাশ্যে আসতে থাকে। এসময় জামায়াতে ইসলামের কয়েকজন কেন্দ্রীয় নেতা দিগন্ত মিডিয়া কার্যালয়ে নিয়মিত আসা যাওয়া শুরু করেন। এসব কারনে ধীরে ধীরে অধিকাংশ কর্মী চাকরি ছেড়ে অন্যত্র যোগ দিয়েছেন।

অভিযোগ আছে, কোম্পানীর উদ্যোক্তা পরিচালক না হয়েও নয়াদিগন্তের প্রকাশক দোহাই দিয়ে পত্রিকার মালিকানা পুরোপুরি পেতে তখন থেকে উঠেপড়ে লাগেন শামসুল হুদা। আর তাকে সহযোগিতা করেন প্রতিষ্ঠানটির পরিচালনা পর্ষদের কয়েকজন সদস্য সহ কর্মরত এক শ্রেণীর কর্মচারী। এসময় প্রতিষ্ঠানে জামায়াত নেতাদের নিয়মিত আসা যাওয়ার কারনে কর্মরত কোন সাংবাদিক এসব অনিয়মের প্রতিবাদ করেনি। ২০১৮ সালের দিকে কোম্পানির হাজার হাজার শেয়ারহোল্ডারদের কিছু না জানিয়ে দিগন্ত মিডিয়া কর্পোরেশন তার বিজয়নগরের আল রাজি কমপ্লেক্সের ৩টি ফ্লোরের একটি বিক্রি করেন।

সম্প্রতি দিগন্ত মিডিয়া ছেড়ে যাওয়া নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক শীর্ষ কর্মকর্তা দেশরিভিউকে বলেন, করোনা মহামারি দেখা দিলে নয়া দিগন্তের বিদ্যমান কাঠামো ভেঙে দেওয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হয়। বোর্ড চেয়ারম্যান জনাব শাহ আব্দুল হান্নান ও এমডি জনাব কাজী হারুনকে সাথে নিয়ে এ সিদ্ধান্ত গ্রহনে কাজ করেন দৈনিক নয়া দিগন্তের উপ সম্পাদক মাসুমুর রহমান খলিলী। এমনকি ফ্লোর বিক্রির জন্য ক্রেতাও নিয়ে আসেন মাসুমুর রহমান খলিলী। বর্তমানে পত্রিকার লাইসেন্স বিক্রির জন্য অগ্রিম টাকা গ্রহন করেছে এ চক্রটি।

এ বিষয়ে দৈনিক নয়া দিগন্তের এক সিনিয়র সাংবাদিক দেশরিভিউকে বলেন, মীর কাসেম আলী জীবিত থাকতে তেমন কোনো পরিচালক এখানে আসতো না, নাকও গলাতো না। এখন যারা আছেন তারা প্রায় সবাই সম্পদ ভাগ-বাটোয়ারায় ব্যস্ত ছিলেন। এখন মিডিয়া দেউলিয়া হওয়ার পর সাংবাদিক-কলাকুশলীদের না খেয়ে মরতে হবে।

দিগন্ত টেলিভিশনের উপ নির্বাহী পরিচালক এবং ছাত্রশিবিরের সাবেক সভাপতি ও বর্তমানে ‘আমার বাংলাদেশ পার্টি’ (এ বি পার্টি) মহাসচিব মুজিবুর রহমান মঞ্জু ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেছেন, সাংবাদিকদের বেতনের অযুহাত দেখিয়ে ফ্লোর ও লাইসেন্স বিক্রি করা হয়েছে। হাজার বিনিয়োগকারীর শত কোটি টাকা পাওনার কথা তারা ভাবলেন না। তারা কি এই ফ্লোর লাইসেন্সর মালিক? লাইসেন্স কি তাদের নামে?

এদিকে বিনিয়োগকারীদের না জানিয়ে ফ্লোর ও লাইসেন্স বিক্রির ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন অনেকে। জানা গেছে, প্রায় ৮ হাজার বিনিয়োগকারী দিগন্ত মিডিয়া কর্পোরেশন লিমিটেডের শেয়ার হোল্ডার হিসাবে আছেন। যাদের বিনিয়োগের পরিমান কয়েকশো কোটি টাকার বেশী। আরাফ মোহাম্মদ নামের এক বিনিয়োগকারী ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া প্রকাশ করে দেশরিভিউকে বলেন, আমি গরিব মানুষ। এখানে আমার স্ত্রীর শেয়ার আছে দুই লক্ষ টাকার। এখন আমার টাকা কই? টাকা না পেলে আমিতো মামলা করব।

প্রবাসী বিনিয়োগকারী হাফিজ সিদ্দিকি বলেন, আমার হাত ধরে জেদ্দাবাসির অনেকেই শেয়ার কিনেছেন। এখন সবাই জ্বালাতন করছে। অনেক আত্মীয় পরিজনও আমার হাত ধরে শেয়ার কিনেছে। দিগন্ত মিডিয়া দেউলিয়া হওয়ায় এখন আমার আত্মহত্যা করতে হবে।

SHARE