জামায়াত নেতার ক্যারিশমা: পরকিয়া প্রেমের জাদুতে গৃহবধূ ভাগিয়ে নিলেন

2933
জামায়াতের সাবেক আমির ও যুদ্ধাপরাধী গোলাম আযমের সাথে ইউসুফ হারুন ভূঁইয়া

।।দেশরিভিউ এক্সক্লুসিভ, লক্ষীপুর।। 
জামায়াত নেতা ও হামদর্দ ফাউন্ডেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মো. ইউসুফ হারুন ভূঁইয়ার বিরুদ্ধে প্রলোভন দেখিয়ে এক গৃহবধূকে ভাগিয়ে নেওয়ার অভিযোগে লক্ষ্মীপুর আদালতে মামলা দায়ের করা হয়েছে। এ মামলায় গৃহবধূ কামরুন নাহার পলিনকেও আসামি করেন তার স্বামী নাজিম উদ্দিন।

বৃহস্পতিবার (১৬ মে) দুপুরে গৃহবধূর স্বামী নাজিম উদ্দিন রিপন বাদী হয়ে লক্ষ্মীপুর সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এ মামলা দায়ের করেন। এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে গত ১২ এপ্রিল স্বামীর বাসায় আপত্তিকর অবস্থায় আশপাশের লোকজন এসে তাদের হাতেনাতে একবার আটক করেছিলো।

এদিকে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ আবদুল কাদেরের আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে নোয়াখালী পুলিশ ব্যুরো ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন। বাদীপক্ষের আইনজীবী মোছাদ্দেক হোসেন চৌধুরী সবুজ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

জানা গেছে, কামরুন নাহার পলিনও একসময় ছাত্রীসংস্থার নেত্রী ছিলেন। পরে হামদর্দ ফাউন্ডেশন পরিচালিত লক্ষ্মীপুর সদরের দত্তপাড়া রৌশন জাহান ইস্টার্ন মেডিকেল কলেজের (ইউনানি) সহকারী অধ্যাপক পদে যোগ দেন। গত ২২ এপ্রিল ব্যক্তিগত কারণ দেখিয়ে তিনি কলেজ থেকে অবসরে যাওয়ার আবেদন করেন।

যুদ্ধাপরাধী ও জামায়াত নেতা আলী আহসান মুজাহিদের সাথে পারিবারিক অনু্ষ্ঠানে ইউসুফ হারুন ভূইয়া।

নাজিম উদ্দিন রিপন বলেন, আমার স্ত্রীর পলিনের সঙ্গে হামদর্দ ফাউন্ডেশনের এমডি ও জামায়াত নেতা ইউসুফ হারুনের পরকিয়া প্রেমের সম্পর্ক ছিল। গত ১৫ এপ্রিল প্রলোভন দেখিয়ে তিনি আমার স্ত্রীকে ভাগিয়ে নিয়ে যান। তাকে ফিরিয়ে আনতে মোবাইল ফোনে কল করলে হারুন আমাকে হত্যাসহ মিথ্যা মামলা জড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দেয়।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, ২০১৭ সালে বিয়ের পর থেকে বাদী রিপন স্ত্রী পলিনকে নিয়ে লক্ষ্মীপুর পৌরসভার দক্ষিণ মজুপুর এলাকায় একটি ভাড়া বাসায় বসবাস করতেন। পরবর্তীতে হামদর্দ ফাউন্ডেশনের এমডি ইউসুফ হারুনের সঙ্গে স্ত্রী পলিনের পরকিয়া প্রেমের সম্পর্কের বিষয়টি আঁচ করতে পারেন রিপন।

গত ১২ এপ্রিল ওই বাসায় আপত্তিকর অবস্থায় দেখে রিপনের চিৎকারে আশপাশের লোকজন এসে তাদের হাতেনাতে আটক করে। পরে গত ১৫ এপ্রিল প্রলোভন দেখিয়ে পলিনকে ভাগিয়ে নিয়ে যান হারুন। এসময় দুই লাখ টাকাসহ মূল্যবান স্বর্ণালংকার নিয়ে যায়।

জামায়াত নেতা হারুন ইউছুফের ‘বিস্ময়কর’ উত্থান:
মুক্তিযুদ্ধের সময় তেজগাঁও থানা শান্তি কমিটির চেয়ারম্যান মৌলভী ফরিদ উদ্দিনের সহায়তায় তিনি শান্তি কমিটির পুলিশে যোগ দেন। রাজধানীর মোহাম্মদপুর ফিজিক্যাল ট্রেনিং ইনস্টিটিউশনে প্রশিক্ষণ শেষে এএসআই হিসেবে নিয়োগ পান। তার কর্মস্থল ছিল তেজগাঁও থানায়। মৌলভী ফরিদের নেতৃত্বে তিন মুক্তিযোদ্ধাকে হত্যায় সরাসরি অংশ নেন ইউছুফ। জামায়াতের তৎকালীন ছাত্র সংগঠন ইসলামী ছাত্রসংঘের সাবেক কর্মী হিসেবে তৎকালীন ছাত্রসংঘের সভাপতি মোহাম্মদ মাঈনুদ্দিনের সঙ্গে ইউছুফের ঘনিষ্ঠতা ছিল। মাইনুদ্দিন বর্তমানে লন্ডনে বসবাস করেন।
দেশ স্বাধীন হওয়ার পর ১৯৭২ সালে হামদর্দের গুলিস্তান শাখায় কাউন্টার সেলসম্যান হিসেবে যোগ দিয়ে শত শত কোটি টাকার মালিক হওয়া হারুন ইউছুফ ভুঁইয়ার উত্থান। স্বাধীনতাবিরোধী গোলাম আযম, মতিউর রহমান নিজামী, আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের সাথে পারিবারিক ঘনিষ্ঠতা ছিলো তার।

জানা গেছে সম্প্রতি হামদর্দের দুর্নীতি ও নানা অনিয়মের খবর যায় প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়, দুর্নীতি দমন কমিশন ও ধর্ম মন্ত্রণালয়সহ সরকারি বেশ কয়েকটি দপ্তরে। আল্লাহর নামে দান করা বিপুল সম্পত্তি একটি পরিবার ভোগ করা, যুগের পর যুগ এক ব্যক্তিই প্রতিষ্ঠানটির শীর্ষ পদ দখল করে থাকাসহ নানা অনিয়মের দালিলিক প্রমাণসহ অভিযোগ জমা দেন লিগ্যাল এইড হিউম্যান ডেভলপমেন্ট ফাউন্ডেশনের উপদেষ্টা ড. সুফি সাগর সামস্। এরপরই নড়াচড়া শুরু হয় প্রশাসনে। এরই মধ্যে তদন্ত কমিটিও গঠন করে ধর্ম মন্ত্রণালয়।

তদন্ত কমিটি সূত্র বলছে, যুদ্ধাপরাধে সহযোগিতায় তার বিরুদ্ধে বেশ কিছু নথি তদন্ত করতে গিয়ে হাতে এসেছে।যুদ্ধাপরাধে সহযোগিতায় তাকে বিচারের আওতায় আনতে সুপারিশ করা হবে বলেও তদন্ত কমিটি সূত্রটি নিশ্চিত করেছে।

SHARE