জামায়াত- বিএনপি ক্ষমতায় আসলে বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত পরিবর্তন করা হবে: ইলিয়াস

372

।। দেশরিভিউ , সংবাদ ।।

মহান জাতীয় সঙ্গীতের বিকৃতি ও অবমাননা করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিন্দা ও ঘৃনা কুড়িয়েছেন সাজাপ্রাপ্ত একাধিক মামলার আসামি বিদেশ পলাতক ইলিয়াস হোসেন।

ইলিয়াস তার ফেসবুক লাইভে এসে বলেন বাংলাদেশে জাতীয় সংগীত চলবে না। বিএনপি জামায়াত ক্ষমতায় আসলে বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত পরিবর্তন করা হবে।

১৯৭১ সালে বাংলাদেশ স্বাধীন হলেও বাংলাদেশের জাতীয় সংগীতের রচনা তারও প্রায় ছয় দশক পূর্বে। ১৯০৫ সালে মুসলিম ও হিন্দু সংখ্যাগরিষ্ঠের ভিত্তিতে বাংলাকে দুটি ভাগে বিভক্ত করা হলে বঙ্গভঙ্গ রোধের জন্য সোচ্চার হয়ে ওঠা স্বদেশী আন্দোলনকে সমর্থন করে ‘আমার সোনার বাংলা। গানটির রচনা করেন বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর।

একটি স্বাধীন দেশের জন্যে অন্যতম প্রধান এক অঙ্গ ‘জাতীয় সংগীত’। প্রতিটি ছোট-বড় জাতীয়/রাষ্ট্রীয় অনুষ্ঠানের প্রারম্ভে বাজানো জাতীয় সংগীতের রয়েছে অন্তর্নিহিত তাৎপর্য। একটি দেশ ও দেশের মানুষের আবেগ, গৌরব এবং ঐতিহ্যকে তুলে ধরে জাতীয় সংগীত।

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ কালে জয়বাংলা শ্লোগান এবং আমার সোনার বাংলা গান জাতীয় স্বীকৃতি পায়। জয়বাংলা মুক্তিযুদ্ধের শ্লোগান ও আমার সোনার বাংলা- জাতীয় সংগীতের মর্যাদা পায়। কিন্তু এরও একটি গুরুত্বপূর্ণ ইতিহাস রয়েছে।
১৯৪৮-১৯৫২ ভাষা আন্দোলনের সময় থেকে পূর্ব বাংলার বাঙালিরা ভাষা ও সংস্কৃতিভিত্তিক জাতিসত্ত্বার প্রশ্নটি সামনে নিয়ে আসে। এ সময়ে ‘আমার সোনার বাংলা’ গানটির চর্চা দেশভাগ পূর্বকালের চেয়ে অনেক বেশি হতে থাকে।

প্রখ্যাত সংগীতজ্ঞ ছায়ানটের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সানজিদা খাতুনের ভাষ্যমতে, ১৯৫৬ সালে ঢাকায় পাকিস্তান গণ পরিষদের অধিবেশন বসেছিল। পশ্চিম পাকিস্তান থেকে আগত গণপরিষদ সদস্যদের সম্মানে কার্জন হলে আয়োজন করা হয়েছিল সংবর্ধনা অনুষ্ঠান। উদ্যোক্তা ছিলেন গণ পরিষদ সদস্য বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তিনি সানজিদা খাতুনকে ‘আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালোবাসি’ গানটি গাইতে অনুরোধ করেছিলেন এবং সানজিদা খাতুন পুরো গানটি গেয়েছিলেন।

এখানে স্মরণ হয় যে, ১৯৫৬-৫৭ সালে পূর্ব বাংলার নাম পাকিস্তান শাসকগোষ্ঠী পূর্ব পাকিস্তান করার প্রস্তাব করলে তরুণ সাংসদ শেখ মুজিবুর রহমান গণপরিষদের সদস্য হিসাবে করাচিতে পাকিস্তান  অ্যাসেম্বলিতে দাঁড়িয়ে এর তীব্র প্রতিবাদ করেন এবং বলেন যে, “যদি পূর্ব বাংলার নাম পরিবর্তন করতে হয় তবে পূর্ব পাকিস্তান নয়, পূর্ববাংলার নাম ‘বাংলাদেশ’ রাখা হোক।”
এই প্রথম রাজনৈতিকভাবে ‘বাংলাদেশ’ নামটি সামনে চলে আসে। ১৯৬০ পরবর্তী বছরগুলোর আইয়ুব বিরোধী আন্দোলনে এই গান এক মহা উদ্দীপক হিসাবে প্রায় সকল জনসভা ছাত্র, শ্রমিক, কৃষক সভায় পরিবেশিত হতো। অবশ্য সাথে আরো গান সম্মিলিতভাবে গাইতো জনতা। তারমধ্যে ‘ধনে ধান্যে পুষ্পেভরা’ গানটি, ‘আমার সোনার বাংলা’-র পাশাপাশি জনপ্রিয়তা লাভ করে। গ্রামে-গঞ্জে যাত্রাপালায় যাত্রা শুরুর আগে হ্যাজাকের আলোয় যাত্রার সকল পাত্র-পাত্রী ‘আমার সোনার বাংলা, আমি তোমায় ভালোবাসি’ গানটি ও ‘ধনে ধান্যে পুষ্পেভরা’ গানটি দর্শকের সামনে পরিবেশন করতেন। বাঙালি কিশোর ও যুবক হিসাবে সেই হীরন্ময় সময়ের অভিজ্ঞতা নেয়ার সৌভাগ্য আমার হয়েছিল।
৬৯’র গণঅভ্যুত্থানে এই দেশাত্মবোধক গানগুলো আন্দোলন সংগ্রামের মূল শক্তি হয়ে ওঠে।

১৯৭০ এ নির্বাচনের প্রতিটি জনসভায় এ গানটি নিয়মিত গাওয়া হতো। ১৯৭১’র অসহযোগ ও মুক্তিযুদ্ধে এই গানটি বাঙালির মানস গঠনে এক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। ১৯৭১ এর ৩ মার্চ পল্টন ময়দানে বঙ্গবন্ধুর উপস্থিতিতে ‘আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালোবাসি’ গানটিকে জাতীয় সংগীত হিসাবে ঘোষণা দেওয়া হয়।

তারপর মুক্তিযুদ্ধের কালে মুক্তিযোদ্ধারা প্রতি সকালে এ গানটি গেয়ে দেশের জন্য জীবন উৎসর্গ করার ব্রত নিতেন। কত হাজার হাজার মুক্তিযোদ্ধা মুখে ‘জয়বাংলা’ আর বুকে আমার সোনার বাংলা’র অবিনাশী সুর, হাতে অস্ত্র নিয়ে দেশ মাতৃকাকে মুক্ত করতে লড়াই করেছে, জীবন দিয়েছে। তাই আমার সোনার বাংলা জাতীয় সংগীতটি শুধু সংগীত নয়, মুক্তিযুদ্ধের রক্তাক্ত রণাঙ্গণে জীবন মৃত্যুর লড়াইয়ের সন্ধিক্ষণে মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য এক তুলনাহীন প্রেরণা। দেশপ্রেমের পরাকাষ্ঠা।
১৯৭০ এ বঙ্গবন্ধুর নির্দেশনায় শিল্পী জাহিদুর রহিম, কলিম শরাফী, আব্দুল আহাদ এবং সানজিদা খাতুনের আয়োজনে ছায়ানটের পরিবেশনায় এ গানটি রের্কড করা হয়। এর আগে ১৯৬৯ জহির রায়হান গানটি ‘জীবন থেকে নেয়া’ চলচ্চিত্রে দৃশ্যায়ন করেন, যা সাংস্কৃতিক আন্দোলনে এক নতুন মাত্র যোগ করেন।

পুরো গানটি পরিপূর্ণ,মায়ের প্রতি সন্তানের ভালবাসার নিবেদনে। আমরাতো প্রকৃতির সন্তান । বাংলা মা আমাদের মাতৃস্বরূপা । তাই মায়ের প্রতি সন্তানের আবেগ মথিত ভালোবাসা প্রকাশিত এই সঙ্গীতে।ভক্তিরসে জারিত এই অপূর্ব সঙ্গীতটি।
প্রেম ভালবাসার অসাধারণ সাবলাইম-টি এই গানটিকে পৃথিবীর অন্য সব দেশের জাতীয় সঙ্গীত থেকে আলাদা করেছে। এটি তুলনাহীন একটি জাতীয় সঙ্গীত।
এই গানটি রক্তাক্ত মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে অর্জিত বাংলাদেশ রাষ্ট্রের সত্যিকার স্পিরিট ধারণ করে। শান্তি ও সৌহার্দ্য আমাদের মুক্তিযুদ্ধের মূলমন্ত্র ছিল। আর সোনার বাংলা ছিল অলিখিত দৃশ্যকাব্য, যা দখলমুক্ত করতে ৩০ লাখ মানুষ শহীদ হয়েছেন, ২ লাখ নারী ধর্ষিত হয়েছেন।
আমাদের জাতীয় সঙ্গীত বিশ্বের তাবৎ জাতীয় সংগীতের মাঝে সম্পূর্ণ আলাদা বৈশিষ্ট্য নিয়ে বিশ্বনন্দিত।আমরা গর্বিত এরকম এক জাতীয় সংগীতের গৌরবদীপ্ত উত্তরাধিকার হতে পেরে।

SHARE