জেএমসেন হলে হামলা: যুব অধিকার পরিষদের ৪ নেতাসহ গ্রেফতার ৯

217


দেশরিভিউ সংবাদ।।
চট্টগ্রামের জেএমসেন হলের পূজামণ্ডপে হামলার চেষ্টা ও মন্ডপের বাইরে পূজার ব্যানার-পোস্টার ছেঁড়াসহ পুলিশের ওপর হামলার অভিযোগে আরও ৯ জনকে গ্রেফতার করেছে নগরীর কোতোয়ালি থানা পুলিশ।
আটককৃতদের মধ্যে ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুরের সংগঠন ‘বাংলাদেশ যুব অধিকার পরিষদ’ এর চট্টগ্রাম মহানগরের নেতৃত্বে থাকা ৪ জন নেতাও আছেন। তারা হলেন, বাংলাদেশ যুব অধিকার পরিষদ, চট্টগ্রাম মহানগরের আহ্বায়ক এন এম নাছির উদ্দিন, সদস্য সচিব ইঞ্জিনিয়ার মিজানুর রহমান, দপ্তর সম্পাদক ইমন মোহাম্মদ এবং
বায়েজিদ থানার আহ্বায়ক ডা: রাসেল।

জানা গেছে, জেএমসেন হলের পূজামন্ডপে হামলার চেষ্টার পর বিভিন্ন ছবি এবং সিসি ক্যামেরার ফুটেজ বিশ্লেষন করতে গিয়ে বাংলাদেশ যুব অধিকার পরিষদের নেতাদের সামনে থেকে নেতৃত্ব দেওয়ার বিষয়টি ধরা পড়ে। ঘটনার পরে আটককৃতদের জিজ্ঞাসাবাদেও উঠে আসে, চট্টগ্রাম সহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় পূজা মন্ডপে হামলার সাথে ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুরের সংগঠনের নেতাকর্মীরা সক্রিয় ভাবে অংশ নেওয়ার তথ্য। আটককৃতদের তথ্য এবং বিভিন্ন ফুটেজ বিশ্লেষন শেষে অভিযুক্তদের ধরতে অভিযানে নামে নগর পুলিশের কয়েকটি টিম। সর্বশেষ বৃহস্পতিবার সারাদিন নগরীর বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে বাংলাদেশ যুব অধিকার পরিষদ, চট্টগ্রাম মহানগরের চার নেতাকে আটক করা হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নেজাম উদ্দীন।

ছবিতে (বা থেকে) আহ্বায়ক এন এম নাছির উদ্দিন, সদস্য সচিব ইঞ্জিনিয়ার মিজানুর রহমান, দপ্তর সম্পাদক ইমন মোহাম্মদ এবং বায়েজিদ থানার আহ্বায়ক ডা: রাসেল।

ওসি নিজাম উদ্দিন দেশরিভিউ’কে বলেন, ভিডিও ফুটেজ দেখে বৃহস্পতিবার রাত ৮টা থেকে রাত ১টা পর্যন্ত নগরীর বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৯ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এর মধ্যে ঘটনার দিন মিছিলে নেতৃত্ব দেওয়া কয়েকজন রয়েছেন। গ্রেফতার হওয়াদের মধ্যে বাংলাদেশ যুব অধিকার পরিষদ, চট্টগ্রাম মহানগরের আহ্বায়ক মো. নাছির, সদস্য সচিব মিজানুর রহমান, দপ্তর সম্পাদক ইমন এবং বায়েজিদ থানার সভাপতি ডা. রাসেলও রয়েছেন। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তারা অতীতে ছাত্রশিবিরের রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত থাকার কথা স্বীকার করেছে। এছাড়াও আটক হওয়া মো. নাছির শিবিরের ফেসবুক পেইজ বাশেরকেল্লা’র এডমিন পরিষদেও কাজ করে আসছে।

এর আগে ১৬ অক্টোবর চট্টগ্রামের জেএমসেন হলে পূজামণ্ডপে হামলা চেষ্টার ঘটনায় ৮৩ জনের নাম উল্লেখ করে কোতোয়ালি থানায় মামলা দায়ের করা হয়। মামলা অজ্ঞাতনামা আরও অন্তত ৫০০ জনকে আসামি করা হয়েছে। কোতোয়ালি থানার এসআই আকাশ মাহমুদ ফরিদ বাদী হয়ে বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলাটি দায়ের করেন। ঘটনার পর পুলিশ অভিযান চালিয়ে ৮৩ জনকে গ্রেফতার করার তথ্য গণমাধ্যমে জানিয়েছিল।

SHARE