জেনে নিন প্রস্রাবে জ্বালাপোড়া করলে কি করবেন

29

চলছে মাহে রমজান। এ মাসে মুসলমানের পবিত্রতা রক্ষায় সব সময় আন্তরিক থাকে। রোজা পালনে সুবহে সাদিক থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত সকল প্রকার পানাহার থেকে বিরত থাকেন। কিন্তু ইফতার থেকে সেহরি পর্যন্ত খাবারের গড়মিল এবং পর্যাপ্ত পানি পানের অভাবে অনেকেরই প্রস্রাবে জ্বালাপোড়া দেখা দিতে পারে। বিশেষ করে গরমের দিনে এই সমস্যা বেশি দেখা দেয়। প্রস্রাবে জ্বালাপোড়ার সমস্যাটি নারী-পুরুষ উভয়েরই হতে পারে।

তবে নারীদের ক্ষেত্রে প্রসাবের জ্বালাপোড়া হওয়ার প্রবণতা একটু বেশি দেখা যায়। প্রস্রাবে জ্বালাপোড়া হলে যে সমস্যাগুলো হতে পারে,

১। তা হলো প্রস্রাব গাঢ় হলুদ বা লালচে হয়।
২।প্রস্রাবে বাজে গন্ধ আসে। একটু পর পর প্রস্রাবের বেগ আসে কিন্তু পরিমাণে খুব কম হয়। প্রস্রাব করার সময় জ্বালাপোড়া বা ব্যথা হয়।
৩। তলপেটে বা পিঠে তীব্র ব্যথা হয়।
৪। সারাক্ষণ জ্বর জ্বর ভাব বা কাঁপুনি দিয়ে জ্বর আসতে পারে।
৫।বমি বমি ভাব বা বমি হয়।

এসমস্যা ঘরোয়া উপায়ে নিস্তার পাওয়া সম্ভব। প্রস্রাবের এ জ্বালাপোড়া থেকে নিস্তার পেতে পর্যাপ্ত পানি পান করতে হবে। প্রস্রাবে জ্বালাপোড়া বা ইউরিন ইনফেকশন হলে কিংবা ঘন ঘন ইনফেকশন হওয়ার প্রবণতা থাকলে প্রতিদিন কমপক্ষে ২ থেকে ৩ লিটার পানি পান করতে হবে।

এ সমস্যা হতে মুক্তি পেতে যা করবেন।
১। তরল জাতীয় খাবার।
২। ইসপগুলের ভুসি-মিছরির শরবত।
৩। অ্যালোভেরার শরবত।
৪। আখের গুঁড়।
৫। ফলের ফ্রেস জুস।
৬। ডাবের পানি বা লেবুর শরবত পান করতে হবে।
৭। কর্যকরী সমাধান পেতে ভিটামিন-সি জাতীয় খাবার খেতে হবে। ভিটামিন-সি ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস করতে সহায়তা করে। ভিটামিন-সি মূত্রথলি ভালো রাখে এবং প্রস্রাবের জ্বালাপোড়া ভাব কমাতে সহায়তা করে।
৮। একজন রোজাদারের জন্য আনারস খুব উপকার করে। কারণ এতে আছে ব্রোমেলাইন নামক উপকারী এঞ্জাইম। তাই ইউরিন ইনফেকশন হলে প্রতিদিন এক কাপ আনারসের রস খান। ইউরিন ইনফেকশন সাধারণত দুদিনের বেশি সময় থাকে। আর এ সময়ে ইনফেকশন কিডনিতে ছড়িয়ে যাওয়ার ঝুঁকি থাকে। তাই যত দ্রুত সম্ভব ইউরিন ইনফেকশন সারিয়ে ফেলা উচিত।
৯। বেকিং সোড়া দ্রুত ইউরিন ইনফেকশন সারিয়ে তুলতে সাহায্য করে। আধা চা চামচ বেকিং পাউডার এক কাপ পানিতে ভালো করে মিশিয়ে দিনে একবার করে খেলে প্রস্রাবের জ্বালাপোড়া কমে এবং ইউরিন ইনফেকশন দ্রুত ভালো হয়।

প্রসঙ্গত, একজন মানুষ ২৪ ঘণ্টায় সাধারণত ২ দশমিক ৫ থেকে তিন লিটার পানি বা পানীয় পান করে। কিডনির কাজ করার ক্ষমতা স্বাভাবিক থাকলে, আবহাওয়ার খুব বড় তারতম্য না হলে প্রতি ২৪ ঘণ্টায় এক হাজার ৫০০ সিসি প্রস্রাব কিডনি তৈরি করে থাকে। আমাদের শরীর থেকে কিছু পানি ঘাম আকারে, আবার কিছু পানি শ্বাস-প্রশ্বাসের সঙ্গে, কিছু পানি মলের সঙ্গে বের হয়ে যায়। তায় আমাদের প্রস্রাবের থলির স্বাভাবিক ধারণক্ষমতা ৩০০ সিসি, তাই স্বাভাবিকভাবে একজন মানুষ ২৪ ঘণ্টায় পাঁচবার প্রস্রাব করে থাকে। সাধারণত দিনে চারবার আর রাতে একবার।

 

দেশরভিউ / আ রিফুল ইসলাম

SHARE