ঝুঁকি নিয়ে শ্বাসকষ্টের মুমূর্ষ রোগীকে বাঁচালো তরুনদের ‘করোনা আইসোলেশন সেন্টার’

393

।।আরিফ হোসেন, দেশরিভিউ।।
শ্বাসকষ্ট বাড়লে অনেকক্ষেত্রেই মৃত্যু নিশ্চিত রোগীর। কারণ শ্বাসকষ্ট রোগী দুয়ারে হাজির হলেই তাড়িয়ে দিচ্ছে চট্টগ্রামের অনেক হাসপাতাল। মিলছে না অক্সিজেন সাপোর্ট। চট্টগ্রামের একদল স্বপ্নবাজ তরুনদের উদ্যোগে নগরীর হালিশহরের প্রিন্স অব চিটাগং কমিউনিটি সেন্টারে গড়ে উঠা ‘করোনা আইসোলশন সেন্টার চট্টগ্রাম’ ঝুকি নিয়ে এমন এক রোগীর প্রান বাঁচিয়েছেন। সম্পূর্ন বেসরকারী উদ্যোগে গড়ে উঠা এই আইসোলেশন সেন্টারে মৃদু ও মাঝারী পর্যায়ের করোনা পজেটিভ রোগীদের চিকিৎসা দেওয়ার কথা বলছেন উদ্যোক্তারা। কিন্তু শ্বাসকষ্টের মতো উপসর্গ নিয়ে নগরীর বিভিন্ন হাসপাতালে সিট না পেলেও ৬২ বছর বয়সী মূমূর্ষ এক রোগী এই আইসোলেশন সেন্টারে আসার পর প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে জীবন রক্ষা করেছে প্রতিষ্টানটি। এ বিষয়ে করোনা আইসোলেশন সেন্টারের অফিসিয়াল ফেসবুক পেইজ থেকে একটি স্ট্যাটাস দেশরিভিউ পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো।

করোনা উপসর্গের ( প্রচন্ড শ্বাস কষ্ট, তিন দিন আগে জ্বর, পায়খানা) ৬২ বছর বয়সী পিতাকে নিয়ে তার সন্তান নগরীর সরকারী ও বেসরকারী হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য সিট না পেয়ে অবশেষে সোমবার সন্ধা ৬টার দিকে ‘করোনা আইসোলেশন সেন্টার চট্টগ্রাম’ এ আসেন। এসময় রোগীর শরীরে মাত্র ৭২ শতাংশ অক্সিজেনের মাত্রা ছিল। করোনা উপসর্গের এমন মূমূর্ষ রোগীকে আইসোলেশন সেন্টারে রেখে চিকিৎসা দেওয়া সম্পূর্ন ঝুকিপূর্ন। নগরীর যে কোন একটি ভালো ক্লিনিক বা হাসপাতালে এ রোগীকে অতিসত্বর এডমিট করানোর বিকল্প নেই বিষয়টি আমরা রোগীর সন্তানকে বুঝিয়ে বললাম। রোগীর স্বজন এবং সন্তান এসময় মোবাইল ফোনে হাসপাতালের খোঁজে আবারও নামলেন। এদিকে সংকটাপন্ন রোগীকে প্রাথমিক চিকিৎসা হিসাবে আমরা দ্রুত অক্সিজেনের ব্যবস্থা করি।

ঘড়ির কাটায় তখন রাত ৮টা; কোন হাসপাতাল বা ক্লিনিকে সিটের ব্যবস্থা হয়নি। এদিকে রোগীর অক্সিজেনের মাত্রা তখন বৃদ্ধি পেয়ে ৮৫ পর্যন্ত উঠেছে। কিন্তু শ্বাসকষ্ট তখনো রোগীকে কাবু করে রেখেছে। আমরা প্রার্থনা করছি রোগীর অবস্থা কোনভাবেই যেন আর খারাপের দিকে না যায়।

রাত তখন ৯টা; রোগীর শরীরে অক্সিজেনের মাত্রা ৯০ তে গিয়ে ঠেকেছে। আমাদের চোখে মুখে তখন সামান্য হলেও স্বস্থি ফিরে এসেছে। একটু পর রোগীর সন্তান এ্যাম্বুলেন্স নিয়ে করোনা আইসোলেশন সেন্টারের গেইটে এলেন, নগরীর অন্য একটি হাসপাতালে সিটের ব্যবস্থা করেছেন তিনি। আমরাও দেরী না করে রোগীকে এ্যাম্বুলেন্সে তুলে দিলাম, পাশাপাশি একটি পুরো অক্সিজেনের সিলিন্ডার গাড়িতে তুলে দিলাম যেন ঐ হাসপাতালে গিয়ে অপেক্ষারত থাকাকালীন সময়েও রোগীকে অক্সিজেন সুবিধা দেয়া যায়।

উল্লেখ্য কোভিড আক্রান্ত রোগীদের আইসোলেটড করার জন্য ‘করোনা আইসোলেশন সেন্টার চট্টগ্রাম’ নির্মিত হয়েছে। তবু করোনা ভাইরাসের এই মহাদূর্যোগে মানবিক বিপর্যয়ের সামনে কোন মূমূর্ষ রোগীকে অক্সিজেনের অভাবে মরতে দিতে পারিনা। ডাক্তার, সেচ্ছাসেবীদের পরিচর্যার কমতি না থাকলেও স্বল্প সামর্থ্যের এ প্রতিষ্ঠানে নার্স সংকটের কারনে বর্তমানে শতভাগ চিকিৎসা সেবা দিতে হিমশিম খাচ্ছি আমরা। তবু আপনাদের ভালোবাসা ও অনুপ্রেরনা এবং পাশে থাকার মধ্য দিয়ে আমরা সকল সংকট ও প্রতিকূলতাকে জয় করবো ইনশাহ্ আল্লাহ।

‘করোনা আইসোলেশন সেন্টার চট্টগ্রাম’ ফেসবুক লিংকে যেতে ক্লিক করুন।

 

 

SHARE