ট্রাম্প-কিমের ঐতিহাসিক বৈঠক সম্পন্ন

16

সিঙ্গাপুরে ঐতিহাসিক এক বৈঠক করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন। মঙ্গলবার সকালে সিঙ্গাপুরের স্যান্তোসা দ্বীপের হোটেল দ্য ক্যাপেলাতে এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। প্রথমে এই দুই নেতা একান্ত বৈঠক করেন। পরে নিজ নিজ দেশের কর্মকর্তাদের নিয়ে তারা দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে মিলিত হন।

বৈঠক শেষ ট্রাম্প এবং কিম একটি চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন। এখন পর্যন্ত এই চুক্তির বিষয়বস্তু সম্পর্কে জানা যায়নি। তবে ট্রাম্প জানিয়েছেন, শিগগিরই এ সম্পর্কে বিস্তারিত জানানো হবে। খবর: সিএনএন, রয়টার্স, বিবিসি ও আলজাজিরা।

বৈঠক শেষে দু’জন হাসিমুখে হোটেল থেকে বের হন। এটাকে ইতিবাচক সূচনা হিসেবে দেখছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

বৈঠক শেষে সকাল ১০টার কিছু আগে দু’নেতা সিঙ্গাপুরের স্যান্তোসা দ্বীপের ক্যাপেলা হোটেলের লাইব্রেরি থেকে বেরিয়ে আসেন। বারান্দায় তারা হাসিমুখে হাঁটতে থাকেন। এরপর উপস্থিত গণমাধ্যমকর্মীদের উদ্দেশে হাত নাড়েন।

বৈঠক শেষে মার্কিন প্রেসিডেন্ট তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় সাংবাদিকদের বলেন, ‘সবাই যেমনটি প্রত্যাশা করেছিলেন, তার চেয়েও ভালো বৈঠক হয়েছে।’

বৈঠক কেমন হলো— প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, ‘খুব, খুবই ভালো।’ ট্রাম্প বারবার বলেন, ‘তাদের দু’জনের মধ্যে দারুণ সম্পর্ক তৈরি হতে পারে।’

বৈঠক শুরুর আগে ট্রাম্প বলেছিলেন, বৈঠক শুরুর কয়েক মিনিটের মধ্যেই এর গতিপ্রকৃতি বোঝা যাবে।

অন্যদিকে কিম বলেছেন, ট্রাম্পের সঙ্গে একান্ত সহযোগিতা করতে ইচ্ছুক তিনি। তবে তাতে চ্যালেঞ্জ রয়েছে।

অবশ্য বৈঠক শুরুর আগে উত্তর কোরীয় নেতা বলেছিলেন, ‘ট্রাম্প একমত হলে এই বৈঠক শান্তির মহান বার্তা বয়ে আনবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আজকের এই বৈঠকে আসার পথ মোটেও সহজ ছিল না। পুরোনো পূর্বধারণা ও অভ্যাস আমাদের অগ্রগতিতে বাধা হিসেবে কাজ করেছে। কিন্তু, আমরা সেসবকে পরাজিত করে আজ এখানে আসতে পেরেছি।’

বৈঠক শেষে ট্রাম্প এবং কিম ক্যাম্পেলা হোটেলের চত্বরে এক সঙ্গে হেঁটে আসেন। এ সময় দোভাষীর মাধ্যমে ট্রাম্প কিমের উদ্দেশে বলেন, ‘আমার মনে হয়, গোটা বিশ্ব এই মুহূর্তটি দেখেছে। অনেক মানুষের কাছে এটি বেশ রহস্যময় এবং অনেকটা বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনীর সিনেমার মতো লেগেছে।’

স্থানীয় সময় সকাল নয়টা তিন মিনিটে ট্রাম্প ও কিম ক্যাপেলা হোটেলের আঙিনায় আলাদা দু’দিক থেকে বের হয়ে আসেন এবং মুখোমুখি হন। যুক্তরাষ্ট্র ও উত্তর কোরিয়ার পতাকা পেছনে রেখে দু’জন প্রথমবারের মতো ১২ সেকেন্ড করমর্দন করেন।

এরপর প্রায় ৪৫ মিনিট দু’জন একান্ত বৈঠক করেন। এ সময় দু’জনের পক্ষে অনুবাদক ছাড়া আর কেউ ছিলেন না। এরপর তারা দু’জন পৃথক ঘরে চলে যান।

এরপর সকাল ১০টা থেকে দুই দেশের শীর্ষ পর্যায়ের কর্মকর্তারা দ্বিপক্ষীয় আলোচনা করেন।

দু’দেশের অতিথিরা যে টেবিলে আলোচনায় বসেছেন, সেটি ৮০ বছরের পুরোনো এবং ৪ দশমিক ৩ মিটার দীর্ঘ সেগুন কাঠের টেবিল। এটি আগে সিঙ্গাপুরের প্রধান বিচারপতি ব্যবহার করতেন।

শীর্ষ কর্মকর্তাদের বৈঠকে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও, হোয়াইট হাউসের প্রধান কর্মকর্তা জন কেলি, জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টন, হোয়াইট হাউসের প্রেস সচিব সারাহ স্যান্ডার্স, ফিলিপাইনে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত সুং কিম, জাতীয় নিরাপত্তা কাউন্সিলের এশিয়া অঞ্চলের জ্যেষ্ঠ পরিচালক ম্যাট পটিংগার উপস্থিত ছিলেন।

উত্তর কোরিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী রি ইয়ং-হো, কোরিয়ার ওয়ার্কার্স পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান রি সু ইয়ং উপস্থিত ছিলেন। তবে গত এপ্রিলে দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে আলোচনায় অংশ নেয়া কিমের বোন কিম ওহ জংকে বৈঠকে দেখা যায়নি।

বিশ্লেষকরা মনে করছেন, কোরীয় উপদ্বীপে শান্তি প্রতিষ্ঠায় সুযোগ তৈরি করছে ট্রাম্প ও কিমের মধ্যকার বৈঠক। বৈঠকে উত্তর কোরিয়ার পারমাণবিক অস্ত্র থেকে শুরু করে দু’দেশের মধ্যে সম্পর্ক স্বাভাবিক করার মতো গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে কথা বলবেন এই দু’নেতা।

ওয়াশিংটন পরিপূর্ণ, যাচাইযোগ্য ও অপরিবর্তনীয় পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণের (সিভিআইডি) নিশ্চয়তা চায় উত্তর কোরিয়ার কাছ থেকে। ট্রাম্প বলছেন, পিয়ংইয়ংকে পারমাণু কর্মসূচি ত্যাগ করতে হবে। যদি তারা সেটা না করে, তবে আলোচনা গ্রহণযোগ্য হবে না।

বৈঠক সামনে রেখে পিয়ংইয়ংও পরমাণু নিরস্ত্রীকরণের প্রতিশ্রুতির কথা বলছে। তবে কোন শর্তে কিম পরমাণু নিরস্ত্রীকরণের পথে যাবেন, তা এখনো স্পষ্ট করেননি।

বিগত দেড় বছর ধরে দু’নেতার মধ্যে সম্পর্কের উন্নয়ন-অবনয়ন চলছে। একজন আরেকজনকে নানা উপাধি দেয়া ছাড়া যুদ্ধের হুমকিও দিয়েছেন। পরমাণু কর্মসূচি ও ক্ষেপণাস্ত্র উৎক্ষেপণ নিয়ে তাদের মধ্যে একটা সময়ে ব্যাপক বাতচিৎ হয়।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প সে সময়ে উত্তর কোরীয় নেতা কিম জং উনকে ‘খুদ রকেট মানব’ ও ‘খাটো মোটকু’ আখ্যায়িত করেছিলেন। জবাবে কিমও ট্রাম্পকে ‘ভীত কুকুর’ ও ‘মানসিক ভারসাম্যহীন বুড়ো’ বলেছিলেন।

অবশেষে চলতি বছরের শুরুর দিকে উভয়ই আলোচনায় বসার ব্যাপারে একমত হন। এরই ধারাবাহিকতায় দক্ষিণ কোরিয়া সফর করেন কিম। তবে বৈঠক ঘিরে অনেক সংশয়ও ছিল। গত ২৪ মে হঠাৎ করে ট্রাম্প বৈঠক বাতিল করেন। পরে দু’পক্ষের কর্মকর্তারা আলোচনা করে আবার দুই নেতাকে আলোচনার টেবিলে ফিরিয়েছেন।

বৈঠক ঘিরে অভূতপূর্ব নিরাপত্তাব্যবস্থা গ্রহণ করেছে সিঙ্গাপুর। ১০ জুন দুই নেতা দেশটিতে পৌঁছানোর পর তাদের হোটেলের দিকের প্রধান সড়ক বন্ধ করে দেয়া হয়।

প্রায় পাঁচ হাজার হোম টিম অফিসারকে নিরাপত্তার কাজে লাগিয়েছে দেশটি। এ বৈঠক আয়োজন করতে দুই কোটি মার্কিন ডলার খরচ করছে সিঙ্গাপুর। এর মধ্যে হোটেলের বিলও রয়েছে।

বৈঠক আয়োজন করার জন্য সিঙ্গাপুরকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন কিম ও ট্রাম্প। আজই বৈঠক শেষে দুই নেতা সিঙ্গাপুর ছাড়বেন।

দেশরিভিউ/শিমুল

SHARE