ডা. ফয়সালের নেতৃত্বে বায়োমেট্রিক হাজিরা মেশিন অকেজো

407


।।দেশরিভিউ চট্টগ্রাম।।
একের পর এক বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের জন্ম দিয়েই যাচ্ছেন বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন (বিএমএ) চট্টগ্রাম শাখার সাধারণ সম্পাদক ডা. ফয়সাল ইকবাল।

চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ও চিকিৎসক নেতা ডা. ফয়সাল ইকবাল এবার সরাসরি আন্দোলনে নেমেছেন বায়োমেট্রিক হাজিরা (বৃদ্ধাঙ্গুলির ছাপ দিয়ে) পদ্ধতি বাতিলের দাবীতে।

অভিযোগ উঠেছে, নানা সময়ে বিতর্কিত চিকিৎসক নেতা ফয়সাল ইকবালের নেতৃত্বে বুধবার চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ সহ চট্টগ্রামের সব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে, চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের কোন চিকিৎসক বায়োমেট্রিক মেশিনে হাজিরা দেননি। এমনকি বায়োমেট্রিক হাজিরা বিষয়টিকে ‘বৈষম্যমূলক’ দাবি করে মঙ্গলবার রাত ১২টার দিকে ফয়সাল ইকবাল নিজের বেশকিছু নেতাকর্মী নিয়ে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের বায়োমেট্রিক হাজিরার মেশিন বিকল করে দেয় ও মেশিনের উপর ফেস্টুন টাঙিয়ে দেয়।

এ ব্যাপারে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. সেলিম জাহাঙ্গীর সাংবাদিকদের বলেন, গতকাল মধ্যরাতে বিএমএর কিছু নেতা এর বিরোধিতা করে মেশিনের উপর ফেস্টুন টাঙিয়ে দেয় ও মেশিনের ক্ষতিসাধন করে। বিষয়টি আমি স্বাস্থ্য সচিব ও মহাপরিচালককে জানিয়েছি। আর তাছাড়া বায়োমেট্রিক হাজিরার বিরোধিতা করা মানে তো সরকারের বিরোধিতা করা।

অন্যদিকে ডা. ফয়সাল ইকবাল বায়োমেট্টিক হাজিরা পদ্ধতিকে সরকারের বৈষম্যমূলক একটি সিদ্ধান্ত দাবী করে বলেন, পদোন্নতির ক্ষেত্রে এটি কেন আসলো? প্রশ্ন হচ্ছে এই নিয়ম কি শুধুমাত্র স্বাস্থ্য ক্যাডারের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য? তাহলে অন্য কোন ক্যাডারের পদোন্নতির ক্ষেত্রে কেন বায়োমেট্রিক হাজিরার প্রতিবেদন চাওয়া হয় না। এটা সম্পূর্ণ বৈষম্যমূলক একটি সিদ্ধান্ত।

এদিকে সরকারদলীয় এই চিকিৎসক নেতা চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদকের দায়িত্বে রয়েছেন। নগর রাজনীতিতে তিনি সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিনের অতি-ঘনিষ্ট হিসাবে পরিচিত। চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নানা রকম অনৈতিক কাজ ও অনিয়মের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে অতীতে গণমাধ্যমে বারবার শিরোনাম হয়েছেন এই ফয়সাল ইকবাল। চিকিৎসকদের সংগঠন বিএমএ এবং সরকারদলীয় রাজনৈতিক সংগঠন আওয়ামী লীগের ব্যানারে বিভিন্ন বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের জন্ম দিলেও তার বিরুদ্ধে কখনোই শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহন করার নজির নেই।

SHARE