ডিসি সুলতানাসহ ৪ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা, বেতন বন্ধ

147

।।দেশরিভিউ নিউজডেস্ক।।

কুড়িগ্রামে সাংবাদিক আরিফুল ইসলাম রিগানকে তুলে নিয়ে জেল-জরিমানা ও নির্যাতনের ঘটনায় কুড়িগ্রামের সাবেক জেলা প্রশাসক (ডিসি) সুলতানা পারভীনসহ জড়িত চার কর্মকর্তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা হয়েছে।

এর সাথে ‘কেন তাদের সাময়িক বরখাস্ত করা হবে না’- জানতে চেয়ে তিন কর্মদিবসের মধ্যে জবাব চাওয়া হয়েছে।

মামলায় অভিযুক্ত অপর তিনজন হলেন জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সিনিয়র সহকারী কমিশনার (আরডিসি) নাজিম উদ্দীন, সহকারী কমিশনার রিন্টু বিকাশ চাকমা এবং এসএম রাহাতুল ইসলাম।

পাশাপাশি ওই অভিযানে নেতৃত্ব দেয়া আরডিসি নাজিম উদ্দীনের সম্পদের হিসাব চেয়েছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। তাদের জবাব পাওয়ার পর সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে সরকার। খবর সংশ্লিষ্ট সূত্রের।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সচিব শেখ ইউসুফ হারুন বলেন, আমরা অলরেডি প্রত্যাহার হওয়া ডিসি সুলতানা পারভীনসহ চারজনের বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা করেছি। তাদের কেন সাময়িক বরখাস্ত করা হবে না- জানতে চেয়ে তিন কর্মদিবসের মধ্যে জবাব দিতে বলা হয়েছে। যাতে তারা আদালতে গিয়ে বলতে না পারে তাদের আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ দেয়া হয়নি। তাদের জবাব পাওয়ার পর এ বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ওদিকে সাংবাদিক নির্যাতনে নেতৃত্বদানকারী আরডিসি নাজিম উদ্দীনের সম্পদের হিসাব চেয়েছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। শোকজের জবাবের সঙ্গে তার সম্পদের হিসাব বিবরণী দিতে বলা হয়েছে।

তিনি এর আগে কক্সবাজারে কর্মরত থাকাকালে নানা অনিয়ম, দুর্নীতি ও বিতর্কিত কর্মকাণ্ডে জড়িত ছিলেন। গ্রামের বাড়িতে বিশাল ইমারত নির্মাণ, স্ত্রী ও শ্বশুরের নামে জায়গা-জমি কেনার বিষয়টিও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সচিব শেখ ইউসুফ হারুন বলেছিলেন, নাজিম উদ্দীনের বিরুদ্ধে এর আগে বেশ কয়েকবার অভিযোগ এসেছে। তবে কারও বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হলে আনুষ্ঠানিক অভিযোগ করতে হয়।

এখন তার বিরুদ্ধে যে ব্যবস্থা নেয়া হবে, সেটি খুবই কঠিন। এটা তার এবং তার চাকরি, পরিবার ও সামাজিক অবস্থার জন্য বেদনাদায়ক ও অপমানজনক হবে। প্রয়োজনে তাকে বরখাস্ত করা হবে। জনপ্রশাসনের এক কর্মকর্তা জানান, আরডিসি নাজিমের বিরুদ্ধে নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির প্রমাণ পেয়েছে মন্ত্রণালয়। তাকে বরখাস্ত করতেই তার সম্পদের হিসাববিবরণী চাওয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য বিসিএস ২০তম ব্যাচের কর্মকর্তা সুলতানা পারভীন ২০১৮ সালের ৩ মার্চ থেকে কুড়িগ্রামে ডিসির দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। কুড়িগ্রাম শহরের একটি সরকারি পুকুর সংস্কারের পর তিনি ওই পুকুরের নাম ‘সুলতানা সরোবর’ রাখতে চেয়েছিলেন উল্লেখ করে বাংলা ট্রিবিউনে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।

এর জেরে বাংলা ট্রিবিউনের কুড়িগ্রাম জেলা প্রতিনিধি আরিফুল ইসলাম রিগানকে ১৩ মার্চ গভীর রাতে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে মাদক রাখার অভিযোগ এনে এক বছরের কারাদণ্ড এবং ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। গভীর রাতে সাংবাদিককে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে সাজা দেয়ার ঘটনায় সাংবাদিকসহ বিভিন্ন মহল তীব্র প্রতিবাদ জানায়। এ পরিস্থিতিতে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ রংপুরের বিভাগীয় কমিশনারকে এ ঘটনা তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেয়। তদন্ত প্রতিবেদন হাতে পাওয়ার পর জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন ১৫ মার্চ সাংবাদিকদের জানান, ‘তদন্তের মধ্যে আমরা অনেক অনিয়ম দেখেছি এবং সে অনুযায়ী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছি। তার (ডিসি) বিরুদ্ধে ডিপার্টমেন্টাল প্রসিডিউর অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

১৫ মার্চ জামিনে মুক্তি পাওয়ার পর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আরিফুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, আরডিসি নাজিম উদ্দীন বাড়িতে ঢুকে আমাকে পেটান। এনকাউন্টারের হুমকি দেন। হাত ও চোখ বাঁধা অবস্থায় নিয়ে বিবস্ত্র করে অমানুষিক নির্যাতন করা হয়।

১৬ মার্চ জেলা প্রশাসক (ডিসি) সুলতানা পারভীনকে প্রত্যাহার করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব মোহাম্মদ রেজাউল করিমকে নতুন ডিসি নিয়োগ দেয় সরকার। জেলা প্রশাসনের সিনিয়র তিন সহকারী সচিব নাজিম উদ্দীন, রিন্টু বিকাশ চাকমা ও এসএম রাহাতুল ইসলামকে প্রত্যাহার করা হয়।

SHARE