ড্রোনে করে মশা ছাড়ছে ব্রাজিল

16

মশা বাহিত রোগ নিয়ন্ত্রনে আনতে এবার ব্রাজিল ব্যবহার করছে ড্রোন ৷ দূর দূরান্তে ড্রোন উড়িয়ে কোটি কোটি পুরুষ মশা ছেড়ে দিচ্ছে ব্রাজিল ৷ এভাবেই মশা বাহিত রোগ কমাতে সচেষ্ট হয়েছে ব্রাজিল সরকার ৷

এই পদ্ধতিতে কাজ শুরুর আগে বিস্তর গবেষণা করেই এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে ব্রাজিল ৷ মশা বাহিত রোগ জাইকার প্রভাবে গুরুতর ক্ষতির মুখে পড়ে ব্রাজিল ৷ ২০১৫-১৬ সালে হাজার হাজার দুধের শিশু এই জাইকা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়  ৷ মায়েরা হাজার হাজার অসুস্থ শিশু জন্ম দিতে থাকে ৷

গবেষণাগারে প্রজনন করা এই পুরুষ মশাগুলো এলাকায় ছড়িয়ে দেওয়ার পর এই সমস্যা থেকে রেহাই মিলবে বলে আশা ব্রাজিল সরকারের ৷ পুরুষ এডিস মশা গুলিকে ল্যাবরেটরিতেই তৈরি করে এলাকায় ড্রোন মারফত ছেড়ে দেওয়া হচ্ছে  ৷ তারা গিয়ে মহিলা মশাদের সঙ্গে মিলিত হবে ৷ কিন্তু জাইকা ডেঙ্গুর মত মরণ রোগ ছড়ানো মেয়ে মশারা ডিম পাড়লেও সেই ডিম নষ্ট হয়ে যাবে ৷ এমন তথ্য জানিয়েছে ইউনাইটেড নেশনের ইন্টারন্যাশনাল অটোমিক এনার্জি এজেন্সি  ৷

পুরুষ মশাগুলোকে পরিবেশে ছড়িয়ে দেওয়া খুব সময়সাপেক্ষ ব্যাপার ও খুব কষ্টসাধ্যও ছিল ৷ ট্রাকে করে এগুলোকে ছড়াতে খুব সমস্যা হত । সব এলাকায় পৌছানো সম্ভব হোতো না ।

আইএইএ, ইউনাইটেড নেশনের খাদ্য ও কৃষি দফতর এবং অলাভজনক সংস্থা উই রোবোটিকস মিলিতভাবে এলাকার উন্নয়নে এই প্রযুক্তির ব্যবহার করছে৷ ড্রোন মারফত ২৮০,০০০ মশা পরীক্ষামূলকভাবে ড্রোনে ভরে উত্তর ব্রাজিলে ছাড়া হয় গত মাসে৷ বয়ার জানিয়েছেন ” এই ড্রোন ব্যবহার করে ২০ হেক্টর এলাকায় মশা ছড়াতে সময় খরচ হয় মাত্র পাঁচ মিনিট৷”

এক সপ্তাহের মধ্যেই এক মিলিয়ন মশা ছড়িয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে ব্রাজিলের৷ তিন মাস ধরে এইভাবে মশা ছড়ানো হবে৷ মশা ঠিক যে সময় সবথেকে বেশি জন্ম নেয় সেই সময়ই জুয়াজেইরো এবং রিসিফির উত্তরপূর্ব শহর গুলিতে ড্রোন উড়িয়ে ছেড়ে দেওয়া হবে এই মশা  ৷

দেশরিভিউ / আরিফুল ইসলাম

SHARE