তরুণদের দক্ষতা উন্নয়নে কাজ করছে ‘স্কুল অব ইন্সপিরেশন’

130


।।দেশরিভিউ সংবাদ।।

প্রায় ৩ বছর আগে কয়েকজন তরুণ উদ্যোক্তার একান্ত প্রচেষ্টায় যাত্রা শুরু হয় স্কুল অব ইন্সপিরেশনের। হাঁটি হাঁটি পা পা করে প্রতিষ্ঠানটি বর্তমানে তিন শতাধিক তরুণকে একসাথে নিয়ে কাজ করছে। রাজধানীর কল্যানপুরে তিন শতাধিক শিক্ষার্থীকে আত্মনির্ভরশীল করার কাজটি করা হচ্ছে ভিন্ন ভিন্ন চারটি টিম।

স্কুল অব ইন্সপিরেশন মূলত একটি ইয়ুথ অরগানাইজেশন। প্রতিষ্ঠানটির জন্মলগ্ন উদ্দেশ্যই হল চাকরি ক্ষেত্রের জন্য দক্ষ কর্মী তৈরি করা। আলাপকালে জানা যায়, শহরে এমন অনেক স্কুল এবং কলেজ আছে যেখানে অনেক শিক্ষার্থীরাই একাডেমিক শিক্ষার বাহিরে স্কিল ডেভেলপমেন্ট করার জন্য সহজেই কোন গাইডলাইন পায় না৷ সেই সকল শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে স্কিল ডেভেলপমেন্ট ট্রেনিং দেওয়া সহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের গ্রুমিং করিয়ে তাদের দ্বারা অন্যদের অনুপ্রাণিত করার কাজটি করছে ‘স্কুল অব ইন্সপিরেশন’।

বর্তমানে প্রায় তিন শতাধিক বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী ‘স্কুল অব ইন্সপিরেশন’ এ নিজেদের দক্ষতার স্কিল ডেভেলপমেন্টের জন্য কাজ করছেন। একাডেমিক শিক্ষার বাহিরে বাস্তবমুখী শিক্ষা গ্রহন করে বিভিন্ন ইন্টারেক্টিভ ওয়ার্কশপের মাধ্যমে চাকরি ক্ষেত্রের নিজেকে একজন দক্ষ কর্মী হিসেবে গড়ে তুলার জন্য প্রতিষ্ঠানটি কাজ করে যাচ্ছে তারা।

প্রতিষ্ঠানে দায়িত্বরতদের সাথে আলাপকালে জানা গেছে,
প্রতিনিয়ত বিভিন্ন এক্সপার্ট দ্বারা বিভিন্ন স্কিল ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রাম আয়োজন করা হচ্ছে। এ প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের জন্য শুরু থেকে কাজ করছেন সাইদুর রহমান (টিম মেম্বার,প্যাডক্স জিন্স লিমিটেড), আরিফ জামান (ডিরেক্টর, একাডেমিক অ্যাফেয়ার্স, কানাডিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ) সহ আরও অনেকেই।

এছাড়া প্রোগ্রাম কোর্ডিনেটর হিসেবে তাসফিয়া বিনতে ফারুক, পাবলিক রিলেশন অফিসার হিসেবে সুমাইয়া বিনতে এরশাদ এবং রিসার্চ এন্ড ডেভেলপমেন্ট ডিরেক্টর হিসেবে জুহানা হোসেইন প্রতিনিয়ত কাজ করছে। এদের সবাইকে গাইড করছে প্রতিষ্ঠানটির সিআইও।

প্রতিষ্ঠানটির চিফ ইন্সপিরেশনাল অফিসারের সাথে আলাপকালে তিনি জানান, “তেলে মাথায় তেল দেওয়া এই প্রবাদটি প্রতিফলন না ঘটিয়ে আমরা যারা এখনো একাডেমি শিক্ষার বাহিরে অন্য কোন শিক্ষা পাচ্ছে না তাদের নিয়ে ভাবছি। তাদের জন্য কাজ করাই আমাদের উদ্দেশ্য। বিভিন্ন অফলাইন/অনলাইন সেমিনার/ওয়ার্কশের মাধ্যমে আমরা এই চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। খুব অল্প সময়ের মধ্যে আমরা বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে SOI Skill Club প্রতিষ্ঠা করার বিষয়ে চিন্তা ভাবনা করছি।”

SHARE