তারেকের ৭ নির্দেশনা: নৌকার ব্যাজ ব্যবহারের নির্দেশ

75

বিএনপির তৃণমূলের কাছে ৭ টি নির্দেশনা বার্তা পাঠানো হয়েছে। লন্ডন থেকে এই বার্তা এসেছে বলে বিএনপির দায়িত্বশীল সূত্রগুলো জানিয়েছে।

গোপন বার্তায়, যেকোনো মূল্যে নির্বাচনে থাকার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। বলা হয়েছে, মাটি কামড়ে নির্বাচনে থাকতে হবে। গোপন বার্তায়, ‘বিএনপি নির্বাচনে থাকবে না’ এই গুজবে কান না দিয়ে ভোট কেন্দ্র পাহারা দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। গোপন বার্তায় যে ৭ দফা নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে, সেগুলো হলো:

১. শেষ পর্যন্ত যাঁকে বিএনপি/ধানের শীষ প্রার্থী চূড়ান্ত করা হবে, তার পক্ষে বিএনপিকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে।

২. গ্রেপ্তার/ আটক প্রার্থীর পক্ষে ভোট চাওয়ার জন্য তাঁর পরিবারের সদস্যদের মাঠে নামাতে হবে। প্রার্থীর স্ত্রী বা কন্যা থাকলে, তাদের নেতৃত্বে প্রচারণা এগিয়ে নিতে হবে।

৩.গ্রেপ্তার/ আটক প্রার্থীর পক্ষে ভোট চাওয়ার জন্য তাঁর পরিবারের সদস্যদের মাঠে নামাতে হবে। প্রার্থীর স্ত্রী বা কন্যা থাকলে, তাদের নেতৃত্বে প্রচারণা এগিয়ে নিতে হবে।

৪. প্রত্যেক নির্বাচনী এলাকায় দলের বাইরে, কিন্তু বিএনপির প্রতি সহানুভূতিশীল ব্যক্তিদের নিয়ে নাগরিক কমিটি করতে হবে। একটি নির্বাচনী এলাকায় যদি একজন কর্মীও বাইরে না থাকে, সেক্ষেত্রে নাগরিক কমিটি থেকে পোলিং এজেন্ট দিতে হবে।

৫. নির্বাচন উপলক্ষে প্রতিটি নির্বাচনী এলাকায় একটি করে আইন সহায়তা টিম করতে হবে। আটকদের দ্রুত জামিনের ব্যবস্থা করতে হবে। নতুন যাঁরা গ্রেপ্তার হবে তাদেরও দ্রুত জামিনের ব্যবস্থা করতে হবে।

৬. বেশির ভাগ ভোটারদের ভোট কেন্দ্রে নিতে হবে। ভোট কেন্দ্রে যাবার সময় কারও ধানের শীষের ব্যাজ পরার দরকার নেই। প্রয়োজনে নৌকার ব্যাজ পরেও ভোট কেন্দ্রে ভোটারদের যেতে হবে। ভোট কেন্দ্রে যেতে হবে ভোট গ্রহণের শুরুতে। ভোট দেওয়ার পর ভোট কেন্দ্রের আশেপাশে থেকে কেন্দ্র পাহারা দিতে হবে।

৭. নির্বাচনে একটি কথাই বলতে হবে ‘আপনার একটি ভোট বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্তি দেবে।’ স্থানীয় পর্যায়ে কোন প্রতিহিংসা এবং প্রতিশোধ গ্রহণের কথা বলা যাবে না।

বিএনপির দায়িত্বশীল সূত্রগুলো বলছে, লন্ডন থেকে তারেক প্রতিটি নির্বাচনী এলাকার জন্য আলাদা প্রতিনিধি মনোনয়ন দিয়েছে। এদের সঙ্গে তারেক জিয়া ব্যক্তিগতভাবে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখছেন। নির্বাচনের সব কৌশলই চূড়ান্ত করা হচ্ছে লন্ডন থেকে।

দেশরিভিও —

SHARE