তারেক রহমানের সাথে মতবিরোধ: ভাইস চেয়ারম্যান এম মোরশেদ খানের পদত্যাগ

151


।।দেশরিভিউ ঢাকা।।
বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সাথে দীর্ঘ মতবিরোধের পরিসমাপ্তি টানলেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী এম মোরশেদ খান। দলের সকল পদবীসহ সাধারণ সদস্যপদ থেকে নিজেকে প্রত্যাহার করে নিলেন বিএনপি থেকে তিনবারের নির্বাচিত এই সাবেক সাংসদ।

মঙ্গলবার রাত পৌনে ১০টায় নয়াপল্টনের দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে তার ব্যক্তিগত সহকারী আতাউলের মাধ্যমে নিজের পদত্যাগপত্র পৌছে দিয়েছেন এম মোরশেদ খান। এসময় দলীয় কার্যালয়ে থাকা সংগঠনটির দফতর প্রধান রুহুল কবীর রিজভী আহমেদ বিএনপি নেতা এম মোর্শেদ খানের পদত্যাগ পত্র গ্রহন করেন।

দলীয় সূত্রে জানা গেছে, দূর্নীতির মামলায় খালেদা জিয়া কারাগারে যাওয়ার পর থেকে বিএনপির এই সিনিয়র নেতা দলের মধ্যে কোনঠাসা হয়ে পড়েন। সর্বশেষ একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলের মনোনয়ন বঞ্চিত হন বিএনপির প্রভাবশালী নেতা এম মোরশেদ খান।

চট্টগ্রামের চান্দগাঁও-বোয়ালখালি আসন থেকে বারবার সাংসদ নির্বাচিত হওয়া মোরশেদ খানের বদলে মনোনয়ন পেয়েছিলেন অপেক্ষাকৃত তরুন বিএনপি নেতা আবু সুফিয়ান। মোরশেদ খানের পরিবর্তে ভোটের মাঠে একেবারে নতুন আবু সুফিয়ানের মনোনয়ন নিশ্চিত হওয়ার পর বিএনপি’র অনেক সিনিয়র নেতাও সেসময় উম্মা প্রকাশ করেন। বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সাথে মতের অমিলের কারনে মোরশেদ খান মনোনয়ন বঞ্চিত হয়েছেন এমন গুঞ্জনও উঠে তখন।

এদিকে দলীয়সূত্র বলছে, পদত্যাগপত্রে মোরশেদ খান লিখেছেন, ‘আজ অনেকটা দুঃখ ও বেদনাক্লান্ত হৃদয়ে আমার এই পত্রের অবতারণা। মানুষের জীবনের কোনো না কোনো সময়ে কঠিন সিদ্ধান্ত নিতেই হয়, যার প্রভাব সুদূরপ্রসারী। আমার বিবেচনায়, সে ক্ষণটি বর্তমানে উপস্থিত এবং উপযুক্তও বটে।’

পদত্যাগপত্রে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে মোরশেদ খান আরও লিখেছেন, বিএনপি এবং আপনার যোগ্য নেতৃত্বের কাছে কৃতজ্ঞ। তবে বর্তমানে দৃঢ় বিশ্বাস দেশের রাজনীতি এবং দলের অগ্রগতিতে নতুন কিছু সংযোজনের সঙ্গতি নেই। আমার উপলব্ধি সক্রিয় রাজনীতি থেকে অবসর নেওয়ার এখনই উপযুক্ত সময়। বহু বিচার-বিশ্লেষণে বিএনপির রাজনীতি থেকে অবসরের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। প্রাথমিক সদস্যসহ ভাইস চেয়ারম্যান পদ থেকে পদত্যাগ করছি। অব্যাহতি দিয়ে বাধিত করবেন।

মোরশেদ খানের ঘনিষ্ঠ এক নেতা দেশরিভিউকে বলেন, মোরশেদ খান বিগত নির্বাচনের পরেই পদত্যাগ করতে চেয়েছিলেন। তবে দলীয় নেতাকর্মীদের চাপে তখন পদত্যাগ না করলেও এবার তিনি পদত্যাগ করলেন।

SHARE