তিন মাসে কমল ২২ হাজার কোটি টাকার খেলাপি ঋণ

154

।।দেশরিভিউ,ঢাকা।।

ঋণখেলাপিদের গণছাড় দিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক যে নীতিমালা জারি করেছিল, বছরের শেষ সময়ে সেটির সদ্ব্যবহার ভালোই হয়েছে।

এতে টানা বাড়তে থাকা খেলাপি ঋণেও লাগাম দেওয়া সম্ভব হয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য বলছে, ২০১৯ সালের ডিসেম্বর শেষে খেলাপি ঋণ দাঁড়িয়েছে ৯৪ হাজার ৩৩১ কোটি টাকা, যা ওই সময় পর্যন্ত বিতরণ করা ঋণের ৯.৩২ শতাংশ। তবে অক্টোবর থেকে ডিসেম্বর এই তিন মাসে ২২ হাজার কোটি টাকা খেলাপি ঋণ অমিয় ফেলেছে ব্যাংকগুলো।

মূলত বিদ্যমান নীতিমালার পাশাপাশি বিশেষ সুবিধার আওতায় বিপুল পরিমাণ ঋণ নিয়মিত হওয়ায় খেলাপি ঋণের এই উন্নতি হয়েছে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। তবে সার্বিক ব্যাংকিং খাতে ২০১৮ সালের সঙ্গে তুলনা করলে ২০১৯ সালে পরিমাণের দিক থেকে খেলাপি ঋণ কিছুটা বেড়েছে। এ সময়ে সরকারি ব্যাংকগুলোর কমলেও বেড়েছে বেসরকারি ব্যাংকের।

এর অর্থ সরকারি ব্যাংকগুলো গণছাড়ে বেশি সাড়া দিয়েছে। এদিকে বাংলাদেশ ব্যাংকের বিষেষ পুনঃ তফসিল ও এককালীন এক্সিট নীতিমালার আওতায় গণছাড় সুবিধার সময়সীমা গতকাল সোমবার শেষ হয়েছে।

সরকারের অর্থমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার পর ২০১৯ সালের ১০ জানুয়ারি অর্থমন্ত্রী ঘোষণা দিয়েছিলেন ‘খেলাপি ঋণ এক টাকাও বাড়বে না’।

কিন্তু জানুয়ারি-মার্চ এ তিন মাসে খেলাপি ঋণ ১৬ হাজার ৯৬২ কোটি টাকা বেড়ে প্রথমবারের মতো এক লাখ কোটি টাকা ছাড়িয়েছিল। পরবর্তী তিন মাস অর্থাৎ এপ্রিল-জুন পর্যন্ত এক হাজার ৫৫২ কোটি টাকা এবং সর্বশেষ জুলাই-সেপ্টেম্বর পর্যন্ত খেলাপি ঋণ বেড়েছে তিন হাজার ৮৬৩ কোটি টাকা

অর্থমন্ত্রীর ঘোষণার পরও সব মিলিয়ে ব্যাংকিং খাতে খেলাপি ২২ হাজার ৩৫০ কোটি টাকা বেড়ে দাঁড়ায় এক লাখ ১৬ হাজার ২৮৮ কোটি টাকা, যা ওই সময় পর্যন্ত বিতরণকৃত ঋণের ১১.৯৯ শতাংশ ছিল। তবে অক্টোবর থেকে ডিসেম্বর এই তিন মাসে ২২ হাজার কোটি টাকা খেলাপি ঋণ কমিয়ে ফেলেছে ব্যাংকগুলো। এতে আবার খেলাপি ঋণ এক লাখ কোটি টাকার নিচে নেমে এসেছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তারা বলছেন, বিশেষ নীতিমালার আওতায় ২ শতাংশ ডাউন পেমেন্টে বড় অঙ্কের ঋণ পুনঃ তফসিলের মাধ্যমে নিয়মিত করেছে ব্যাংকগুলো। বিদ্যমান নীতিমালার আওতায়ও কিছু পরিমাণ খেলাপি ঋণ নিয়মিত হয়েছে। এ ছাড়া বছরের শেষ প্রান্তিকে নগদ আদায় কিছুটা বেড়েছে।

কিছু ঋণ অবলোপন করে মূল হিসাব থেকে আলাদা করা হয়েছে। ফলে কমে এসেছে খেলাপি ঋণ।

SHARE