থানা হাজতে নির্ঘম রাত কাটিয়েছেন ডা. সাবরিনা

73

।।দেশরিভিউ সংবাদ।।

করোনার নমুনা সংগ্রহ করার পর পরীক্ষা না করে ভুয়া রিপোর্ট প্রদান করার অভিযোগে গ্রেপ্তারকৃত জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের চিকিৎসক ডা. সাবরিনা এ চৌধুরী নির্ঘম রাত কাটিয়েছেন। হাজতে সারারাত জেগে ছিলেন তিনি। মাঝেমধ্যে পায়চারি করেছেন। কথা বলেছেন নারী প্রহরীর সঙ্গে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তেজগাঁও থানার এক কর্মকর্তা এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, থানায় নেয়ার পর সাবরিনাকে কিছুক্ষণ একজন পুলিশ কর্মকর্তার কক্ষে বসানো হয়েছিল। এর পর তাকে হাজতে রাখা হয়। রাতে থানা হাজতেই কাটে তার সময়। আমাদের দুজন নারী প্রহরী সেখানে ডিউটিতে ছিলেন। তাদের সঙ্গে মাঝে মাঝে কথা বলেছেন।

সোমবার সকাল সোয়া ১০টার দিকে তাকে পুলিশ পাহারায় আদালতে নেয়া। সেখানে অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য চার দিনের রিমান্ড আবেদন করে পুলিশ। এই চিকিৎসকের আইনজীবীরা তার জামিন চান। আদালত জামিন আবেদন খারিজ করে তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

রোববার দিনভর আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে ছিলেন ডা. সাবরিনা। তিনি গ্রেফতার এড়াতে ফন্দি আটছিলেন। তবে দুপুরে ডা. সাবরিনাকে গ্রেফতারের পর তার সব প্রচেষ্টা ভেস্তে যায়।

বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে সাবরিনাকে তেজগাঁও থানায় নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে নিয়ে যাওয়ার পর তাকে প্রথমে একজন পুলিশ কর্মকর্তার কক্ষে বসানো হয়। এর পর হাজতে রাখা হয়।

থানায় সাবরিনার স্বজন ও একজন গৃহকর্মী ছিলেন। থানা থেকে সরবরাহ খাবারই রাতে খেয়েছেন তিনি। হাজতখানায় তাকে পায়চারি করতে দেখেছেন পুলিশ কর্মকর্তারা।

জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের কার্ডিয়াক সার্জারি বিভাগের রেজিস্ট্রারের দায়িত্ব পালন করে আসা ডা. সাবরিনা জেকেজি হেলথকেয়ারের প্রধান নির্বাহী আরিফুল হক চৌধুরীর স্ত্রী। সে কারণে সাবরিনা আরিফ চৌধুরী নামেই তিনি পরিচিত। ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট প্রতিষ্ঠান ওভার গ্রুপ লিমিটেডের চেয়ারম্যান ডা. সাবরিনা এ চৌধুরী।

SHARE