দরপতনেও চাঙ্গা শেয়ার বাজার

21

বিনিয়োগকারীদের বিক্রয় চাপে সদ্য সমাপ্ত সপ্তাহে পুঁজিবাজারের তালিকাভুক্ত ৬২.৭৯ শতাংশ শেয়ারের দরপতন হয়েছে। তবুও সপ্তাহের ব্যবধানে ডিএসই’র দৈনিক গড় লেনদেন বেড়েছে ৩০.৭৪ শতাংশ।

ডিএসই’র সপ্তাহিক বাজার পর্যালোচনায় দেখা যায়, সদ্য সমাপ্ত সপ্তাহে (৩-৬ সেপ্টেম্বর) ডিএসইতে লেনদেন হওয়া ৩৪৪টি কোম্পানি ও ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ১০৮টির, দর কমেছে ২১৬টির ও দর অপরিবর্তিত ছিল ১৫টি প্রতিষ্ঠানের। অর্থাৎ এসময় লেনদেন হওয়া কোম্পানিগুলোর প্রায় ৬৩ শতাংশেরই শেয়ার দর কমেছে।

এর আগের সপ্তাহে ডিএসইতে লেনদেন হওয়া কোম্পানি ও ফান্ডগুলোর ১৮১টির দর বেড়েছিল। ওই সময় দর কমেছিল ১৩৮টির ও দর অপরিবর্তিত ছিল ১৯টি প্রতিষ্ঠানের।

গত সপ্তাহে ডিএসইতে ৪ কার্যদিবস লেনদেন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এর আগের সপ্তাহে ৫ কার্যদিবসে লেনদেন অনুষ্ঠিত হয়েছিল। কিন্তু, সদ্য সমাপ্ত সপ্তাহে ডিএসইতে ৩ হাজার ৫৩ কোটি ৮৭ লাখ ৬৯ হাজার ৫৬৬ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে।

এর আগের সপ্তাহে ডিএসইতে ২ হাজার ৯১৯ কোটি ৭০ লাখ ৯৪ হাজার ৩৩৫ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছিল।
গত সপ্তাহে ডিএসইতে দৈনিক গড় লেনদেন হয়েছে ৭৬৩ কোটি ৪৬ লাখ টাকা।

এর আগের সপ্তাহে ডিএসইতে দৈনিক গড় লেনদেন হয়েছে ৫৮৩ কোটি ৯৪ লাখ টাকা। অর্থাৎ সপ্তাহের ব্যবধানে গড় লেনদেন বেড়েছে ৩০.৭৪ শতাংশ।

বিনিয়োগকারীদের অব্যাহত বিক্রয় চাপে গত সপ্তাহে ডিএসই’র সার্বিক মূল্য সূচক কমেছে ২৬.৩৯ পয়েন্ট। সপ্তাহের শুরুতে ডিএসই’র সার্বিক মূল্য সূচক ছিল ৫৬০০.৬৪ পয়েন্ট। সপ্তাহের ব্যবধানে তা ৫৫৭৪.২৫ পয়েন্টে নেমে এসেছে। এ সময় শরীয়াহভিত্তিক কোম্পানির মূল্য সূচক ৯.০৫ পয়েন্ট বাড়লেও ডিএস-৩০ সূচক বেড়েছে ২.১৯ পয়েন্ট।

সপ্তাহ শেষে ডিএসইতে টার্নওভার তালিকায় শীর্ষে উঠে এসেছে খুলনা পাওয়ার কোম্পানি। এ সময় কোম্পানিটির ২৫৪ কোটি ৭৪ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। কোম্পানিটির শেয়ার দর বেড়েছে ২৯.৯১ টাকা। এ সময় কোম্পানিটির ২ কোটি ৮৪ লাখ ৮৯ হাজার ২৩৪টি শেয়ার লেনদেন হয়েছে।

টার্নওভার তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে ছিল বিবিএস ক্যাবলস। কোম্পানিটির ৯৪ কোটি ৭৮ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। ৮৯ কোটি ২৬ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেনের মধ্যে দিয়ে টার্নওভার তালিকায় তৃতীয় অবস্থানে ছিল কনফিডেন্স সিমেন্ট।

টার্নওভার তালিকায় থাকা অন্যান্য কোম্পানিগুলো হলো— আমান ফিড, পেনিনসুলা চিটাগং, ইউনাইটেড পাওয়ার, একটিভ ফাইন কেমিক্যাল, নাহি অ্যালমুনিয়াম, ইউনিক হোটেল ও সামিট পাওয়ার।

দেশরিভিউ/এস এস

SHARE