দশ বছর ধরে চট্টগ্রামের একমাত্র নারী চালক রাসেদা

168

দশ বছর ধরে চট্টগ্রামের একমাত্র নারী চালক রাসেদা

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) আড়াইশ চালকের মধ্যে নারী চালক একজনই। তিনি রাসেদা। এটা নিয়ে গর্ব করতেই পারেন তিনি। ১০ বছর ধরে চালাচ্ছেন চসিকের অ্যাম্বুল্যান্স ।
শুরুর গল্পটা ২০০৮ সালের। তার মুখে শোনা যাক-এখন নারীরা উড়োজাহাজ চালাচ্ছে, ট্রেন চালাচ্ছে, জাহাজ চালাচ্ছে। কিন্তু আমি যখন গাড়ি চালানো শিখি তখন খুব বেশি হলে এনজিওর দুই-একজন নারীকে দেখা যেত মোটরসাইকেল চালাচ্ছেন। চিটাগাং উইম্যান চেম্বারের প্রতিষ্ঠাতা মনোয়ারা হাকিম আলীর অনুপ্রেরণায় ২০০৮ সালে বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটিতে (বিআরটিএ) হালকা মোটরযান চালানোর প্রশিক্ষণ নিই। এরপর আনসার ভিডিপি, মনোয়ারা আপা, শওকত মোস্তফার সহায়তায় লাইসেন্সের জন্য আবেদনের যে স্লিপ-তা জমা দিয়ে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনে চাকরিটা নিই।
১০ বছর ধরে চালকের চাকরি করছি। প্রাইভেট কার, মাইক্রোবাস চালানোর সুযোগ থাকলেও আমি চালাচ্ছি না। শুধু অ্যাম্বুল্যান্সই চালাই। কারণ মুমূর্ষু রোগী ও ডাক্তারদের আনা-নেওয়াটা আমার কাছে কাজের ফাঁকে সেবার মতো মনে হয়, যোগ করেন রাসেদা।
চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ড উপজেলার ছোট কুমিরা এলাকার মৃত মাহবুবুল হকের মেয়ে রাসেদা। ২ ভাই ৪ বোনের মধ্যে তিনি পঞ্চম। পড়াশোনা করেছেন অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত। এখন প্রতিদিন কাজ শেষে গ্রামের বাড়িতেই ফিরে যান তিনি।
এ প্রসঙ্গে রাসেদা বলেন,  শুরুতে আমার মাসিক বেতন ছিল ৫ হাজার টাকা। এখন পাই ১১ হাজার ৮৮০ টাকা। এখানে বাসা ভাড়া করে থাকার উপায় নেই। আগে যদি আমার বাড়িতে আসা-যাওয়াতে দিনে ৫০ টাকা খরচ হতো এখন তা ৮০ টাকায় দাঁড়িয়েছে। তবুও আমি সঠিক সময়ে কর্মস্থলে উপস্থিত হতে সচেষ্ট থাকি। কাজটা আমার ভালো লাগে।
কোনো ধরনের সমস্যায় পড়েন কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ঝড়-বৃষ্টি, রোদ, কুয়াশা, জলজট সব কিছুতে অ্যাম্বুল্যান্স চালানোর অভিজ্ঞতা আছে আমার। দায়িত্ব বুঝে নেওয়ার সময় গাড়ির সব কিছু ঠিকঠাক আছে কিনা দেখে নিই। কারণ এরসঙ্গে শুধু আমার জীবন নয়, রোগী-ডাক্তারদের ভাগ্যও জড়িত।

SHARE