দেশবাসীর প্রশংসায় ভাসছেন এসপি শহিদুল্লাহ

47

সমাজের ধারণা সরকারি চাকরি মানেই টাকার ছড়াছড়ি! আর তা যদি হয় পুলিশে চাকরি, তাহলেতো কথাই নেই। কিন্তু এবার ব্যতিক্রমী ঘটনার জন্ম দিলেন রাজশাহীর নতুন পুলিশ সুপার মো. শহিদুল্লাহ

সদ্য সমাপ্ত হওয়া পুলিশ কন্সটেবল নিয়োগ বোর্ডের সভাপতি ছিলেন পুলিশ সুপার শহিদুল্লাহ। পুলিশে সৎ, দক্ষ ও মেধাবী জনবল নিয়োগের ক্ষেত্রে বিষয়টি চ্যালেঞ্জ হিসেবে গ্রহণ করেছিলেন তিনি। শেষ পর্যন্ত সফল হয়েছেন শহিদুল্লাহ। যে কারণে এখন দেশবাসীর প্রশংসায় ভাসছেন এ পুলিশ কর্মকর্তা

এবারের কন্সটেবল নিয়োগে রাজশাহী জেলার এমন অনেকেই চাকুরী পেয়েছেন যাদের পরিবারের পরীক্ষার খরচ বহন করার মত সাধ্য ছিল না। তারাও পুলিশে চাকুরী পেয়েছেন কোন রকম তদবির ছাড়াই।

গেল সোমবারে এসব পরিবার থেকে নিয়োগ পাওয়া ছেলেমেয়েদের নিজ কার্যালয়ে ডেকে মিষ্টিমুখ করাতেও ভুল করেননি পুলিশের এ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা

তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো, রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার মাঝগ্রামের পঙ্গু কৃষক শুকুর আলীর ছেলে আসাতুল আলী, গোদাগাড়ী উপজেলার শ্রীমন্তপুর গ্রামের ট্রাক চালক হাবিবুরের ছেলে রাকিবুল ইসলাম, চারঘাট উপজেলার মিয়াপুর গ্রামের চা দোকানদার মকবুলের ছেলে সবুর আলী, একই উপজেলার আস্করপুর গ্রামের দৃষ্টি প্রতিবন্ধী জাহাঙ্গীর হোসেনের ছেলে রফিকুল্লাহ, মোহনপুর উপজেলার তশোপাড়া গ্রামের ভ্যানচালক জনাব আলীর ছেলে জাকারিয়া হোসেন, বাঘা উপজেলার উত্তর মিলিক বাঘার চা দোকানদার আজিজুলের ছেলে আশরাফুল, রাজশাহী মহানগরের মতিহার থানার নওদাপাড়া এলাকার রড মিস্ত্রী আব্দুল মালেকের মেয়ে বৃষ্টি খাতুন, চারঘাটের অনুপমপুর গ্রামের ভটভটি চালক জিল্লুরের মেয়ে প্রিয়া খাতুন, গোদাগাড়ীর আলীপুর গ্রামের কাঠমিস্ত্রী সুশান্ত শর্মার মেয়ে তুলসী শর্মা ও মতিহার থানার সুচরণ এলাকার শহিদুলের মেয়ে আয়েশা আক্তার।

এবারের নিয়োগ পরীক্ষার ভাইভা বোর্ডে পুলিশ সুপার মো. শহিদুল্লাহর সাথে আরও দায়িত্ব পালন করেছেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. মাহবুব আলম খান পিপিএম ও নওগাঁর মান্দা সার্কেলের সিনিয়র এএসপি হাফিজুল ইসলাম।

জানতে চাইলে পুলিশ সুপার মো. শহিদুল্লাহ বলেন, শুরু থেকেই চেষ্টা ছিলো একটি স্বচ্ছ পদ্ধতির মাধ্যমে বাংলাদেশ পুলিশে মেধাবী ও সৎ মানুষদের নিয়ে আসা। সেই কারণে এবারের পুলিশ কন্সটেবল নিয়োগের বিষয়টি চ্যালেঞ্জিং ছিল। মেধা তালিকা অনুযায়ী নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। কারো তদবিরের প্রার্থীকে গুরুত্ব দেওয়া হয়নি। যার ফলে এবার অনেক দরিদ্র পরিবারের সন্তানরা পুলিশে চাকুরী পেয়েছে।

উল্লেখ্য, এবার রাজশাহী জেলায় পুলিশ কন্সটেবল পদে ২০০ জন নিয়োগ পেয়েছে। এর মধ্যে পুরুষ সাধারণ কোটায় ৮৪ জন, মুক্তিযোদ্ধা কোটায় ৭১ জন, পোষ্য কোটায় ১৩ জন, উপজাতি কোটায় ৮ জন, এতিম কোটায় ২ জন ও নারী সাধারণ কোটায় ১৮ জন, মুক্তিযোদ্ধা কোটায় ৩ জন ও উপজাতি কোটায় ১ জন।

দেশরিভিউ/শিমুল