দেশে আবারও এক-এগারো সৃষ্টির ষড়যন্ত্র হচ্ছে: হাছান মাহমুদ

33

আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, দেশে আবারও এক-এগারো সৃষ্টির ষড়যন্ত্র হচ্ছে। ষড়যন্ত্রের সব তথ্য সরকারের কাছে আছে। সরকার আবারও ক্ষমতায় আসবে বুঝতে পেরেই এই ১/১১ এর ষড়যন্ত্র হচ্ছে।

রোববার (১৯ আগস্ট) চট্টগ্রাম নগরীর দেওয়ানজী পুকুর পাড় লেইনে নিজ বাসায় এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন সাবেক মন্ত্রী হাছান মাহমুদ।

এক-এগারোর কুশীলবরা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে রাজনৈতিকভাবে মোকাবিলায় ব্যর্থ হয়ে ষড়যন্ত্র করছেন বলে অভিযোগ করে তিনি বলেন, ‘রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ, যুদ্ধাপরাধী, স্বাধীনতা বিরোধীরা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানকে রাজনৈতিকভাবে মোকাবিলায় ব্যর্থ হয়ে হত্যা করেছিলো। জননেত্রী শেখ হাসিনাকেও রাজনৈতিকভাবে মোকাবিলা করতে ব্যর্থ হয়েছে। এজন্য তারা নানা ষড়যন্ত্রে লিপ্ত।’

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রিজভী আহমেদের বক্তব্যের সূত্র ধরে হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‘গতকাল রিজভী আহমেদ বলেছেন, আমাদের কর্মকাণ্ডেই নাকি এক-এগারোর পথ প্রশস্ত হচ্ছে। এই কথা বলার মাধ্যমে রিজভী আহমেদ প্রকারান্তরে স্বীকার করে নিয়েছেন, তারা এক-এগারোর মত পরিস্থিতি সৃষ্টির জন্য ষড়যন্ত্রের সাথে যুক্ত আছেন। প্রকৃতপক্ষে এই ধরনের ষড়যন্ত্র করে লাভ হবে না। ষড়যন্ত্র কোথায় হচ্ছে, কিভাবে হচ্ছে সেগুলোর সব খবরই সরকারের কাছে আছে।’

প্রস্গত, ২০০৭ সালের ১১ জানুয়ারি জরুরি অবস্থা ঘোষণার মধ্য দিয়ে সেনাসমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের ক্ষমতা গ্রহণের সময়কাল গণমাধ্যম এবং সাধারণের মাঝে ‘ওয়ান ইলেভেন বা এক-এগারো’ হিসেবে পরিচিত। সম্প্রতি আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরও দেশের আবারও এক-এগারোর পরিস্থিতি সৃষ্টির ষড়যন্ত্র হচ্ছে বলে বক্তব্য দিয়েছেন।

সংবাদ সম্মেলনে হাছান মাহমুদ বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদকে নোয়াখালীর বাড়িতে অবরুদ্ধ করে রাখার অভিযোগেরও জবাব দিয়েছেন। তাঁর দাবি, দলের ভেতরে আস্থা হারিয়ে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানের দৃষ্টি আকর্ষণের জন্য মওদুদ আহমেদ ‘অবরুদ্ধ নাটক’ সাজিয়েছেন।

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘মওদুদ আহমেদকে কোনোভাবেই অবরুদ্ধ করে রাখা হয়নি। মওদুদ আহমেদ কখনো ঈদের ৫-৭ দিন আগে গ্রামের বাড়ি যেতেন না। তিনি সচরাচর সবসময় যত দিন ধরে রাজনীতি করছেন, ক্ষমতায় থাকাকালীন এবং কয়েক বছর ধরে ঈদের পর দিন গ্রামের বাড়ি যেতেন। কিন্তু গত রমজানের ঈদে ঈদের আগে গ্রামের বাড়ি গেছেন। এবার পাঁচ দিন আগে গ্রামের বাড়ি গেছেন।’

সংবাদ সম্মেলনে আওয়ামী লীগের উপ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান ও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের ভারপ্রাপ্ত মেয়র চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী উপস্থিত ছিলেন।

দেশরিভিউ/এস এস

SHARE