ধূমপান ছাড়লে সেরে উঠবে ফুসফুস

290

ধূমপানের ফলে ফুসফুসের পরিবর্তন হয়ে ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়। আর ফুসফুসে ক্যান্সার হয়ে প্রতি বছরই অনেক মানুষ মারা যায়।ধূমপান ফুসফুসের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর।তাই ফুসফুস রক্ষায় সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন হলো ধূমপান ছেড়ে দেয়া।

আগে মনে করা হতো যে, ধূমপানের কারণে ফুসফুসের যে ক্ষতি হয়, তা আর পুষিয়ে নেয়া সম্ভব নয়। তবে এখন বিজ্ঞানীরা ভাবছেন অন্য কথা। বিজ্ঞানীরা দাবি করেছেন, ধূমপান ছাড়ার পর ফুসফুস আবারও সুস্থ পরিস্থিতিতে ফিরে আসবে। তবে তার আগে অবশ্যই ধূমপান ছাড়তে হবে।

নেচার পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদনে উঠে এসেছে– ধূমপানের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত না হওয়া ফুসফুসের কয়েকটি কোষই পরে ফুসফুসকে আবারও স্বাভাবিক অবস্থায় নিয়ে আসতে পারে।

টানা ৪০ বছর ধরে প্রতিদিন এক প্যাকেট সিগারেট খাওয়ার পর যারা ধূমপান ছেড়েছেন, তাদের ফুসফুসের ক্ষেত্রেও এই বিষয় দেখা গেছে। সিগারেটে থাকা হাজার ধরনের রাসায়নিক ফুসফুসের কোষের ডিএনএকে পরিবর্তন করে ধীরে ধীরে সুস্থ থেকে ক্যান্সার আক্রান্ত কোষে পরিবর্তন করে।

কেউ যখন ধূমপান ছেড়ে দিলে অপরিবর্তিত কোষগুলো সংখ্যায় বাড়তে থাকে। আর ফুসফুসের ক্ষতিগ্রস্ত কোষগুলোকে প্রতিস্থাপিত করতে থাকে। যেসব মানুষ ধূমপান ত্যাগ করে, তাদের ৪০ শতাংশ পর্যন্ত কোষের গঠন কখনও ধূমপান না করা মানুষের কোষের গঠনের মতো হয়ে যায়।

স্যাঙ্গার ইনস্টিটিউটের ড. পিটার ক্যাম্পবেল বলেন, কিছু কোষ রয়েছে, যা অনেকটা জাদুকরীভাবেই শ্বাসনালির প্রান্তগুলোকে পুনর্গঠন করে। তিনি বলেন, ৪০ বছর ধূমপান করার পরও যারা ধূমপান ছেড়েছেন, তাদের ক্ষেত্রেও অপরিবর্তিত কোষের মাধ্যমে সুস্থ কোষ পুনঃনির্মাণের ঘটনা ঘটেছে।

SHARE