নড়াইলের চার চিকিৎসক ওএসডি; সারাদেশে চিকিৎসা বন্ধের হুংকার দিলেন ডা. ফয়সাল

87149

।।আরিফ নয়ন-দেশরিভিউ।।
নড়াইলের সাংসদ মাশরাফি বিন মুর্তজার আকস্মিক জেলা সদর হাসপাতালে গিয়ে চিকিৎসক না পাওয়ার পর ওই হাসপাতালের চার চিকিৎসকের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় সূত্র বলছে, চার চিকিৎসককে বিনা অনুমতিতে হাসপাতালে অনুপস্থিতির কারণ দর্শানোর নোটিশের পাশাপাশি তাদের ওএসডি করে বর্তমান দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দিয়েছে মন্ত্রনালয়।

এদিকে চার চিকিৎসককে ওএসডি করার খবরে ক্ষিপ্ত হয়ে চিকিৎসকদের সংগঠন বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশন-বিএমএ, চট্টগ্রামের সাধারণ সম্পাদক ডা. ফয়সাল ইকবাল চৌধুরী সারা দেশে চিকিৎসা সেবা বন্ধ করে দেওয়ার ইঙ্গিত করে রীতিমত হুংকার দিয়েছেন। ডা. ফয়সাল চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদকও। এর আগেও সরকারী বিভিন্ন সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করার পাশাপাশি স্বাস্থ্যখাতকে জিম্মি করার অভিযোগ রয়েছে এই বিতর্কিত চিকিৎসক নেতার বিরুদ্ধে।

রোববার (২৮ এপ্রিল) সন্ধ্যায় ফেসবুকে দেওয়া এক পোস্টে তিনি সারাদেশের চিকিৎসকদের ধর্মঘটের প্রয়োজনীয়তা নিয়ে উস্কানিমূলক এক পোস্টে লিখেছেন, ‘চলেন না একদিন সারাদেশের চিকিৎসকরা ওয়াকওভার ওয়াকওভার খেলি, তাহলে বুঝত চিকিৎসক কি? তার প্রয়োজন আছে কিনা?’ চিকিৎসকনেতা ফয়সাল ইকবালের ধর্মঘটে যাওয়ার ইঙ্গিতকে সমর্থন জানিয়ে দেশের বিভিন্ন প্রান্তের চিকিৎসকরাও এসময় সমর্থন জানাতে দেখা গেছে।

ডা. ফয়সালের ফেসবুক স্ট্যাটাস

রোববার স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের এক প্রজ্ঞাপনে নড়াইল সদর হাসপাতালের সার্জারির বিভাগের সিনিয়র কনসালটেন্ট ডা. মো. আখতার হোসেন, কার্ডিওলজির জুনিয়র কনসালটেন্ট ডা. মো. শওকত আলী ও ডা. মো. রবিউল আলম এবং মেডিকেল অফিসার ডা. এ এসএম সায়েমকে ওএসডি করে সাত কর্মদিবসের মধ্যে মহাখালীতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে যোগ দিতে বলা হয়েছে।

সম্প্রতি মাশরাফির নিজ নির্বাচনী এলাকার সরকারী হাসপাতাল পরিদর্শনের একটি ভিডিও ফেইসবুকে ভাইরাল হয়। ঐ হাসপাতালে গিয়ে চিকিৎসকদের না পেয়ে তিনি হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়কের সঙ্গে ফোনে কথা বলেন।

SHARE