নয় বছরে হয়নি ছাত্রলীগ নেতা হত্যার বিচার। পঙ্গুত্ব ও অন্ধত্বে ৪ নেতা আজো দিশেহারা

813

॥ রাবি সংবাদদাতা ॥ আজ ৮ ফেব্রুয়ারী। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে (রাবি) শিবির ক্যাডারদের নৃশংসতার শিকার ছাত্রলীগ কর্মী ফারুক হোসেন হত্যাকান্ডের নয় বছর পেরিয়ে গেলেও বিচার কাজ শেষ না হওয়ায় এখনও শাস্তি হয়নি হত্যাকারী শিবির ক্যাডারদের। মামলার অধিকাংশ আসামি রয়েছে পলাতক। হত্যাকান্ডের পর দায়েরকৃত মামলাটি তদন্তে করতে গিয়ে পুলিশ বের করে এনেছিলো জামায়াতে ইসলামের কেন্দ্রীয় হাইকমান্ডের নির্দেশনা মোতাবেক ছাত্রশিবিরের তৎকালীন কেন্দ্রীয় কমিটির তত্বাবধানে রাতের আঁধারে নারকীয় এই হত্যাকান্ড চালানো হয়।

জানা গেছে, হত্যাকাণ্ডে অংশ নেয়া ছাত্রশিবিরের অধিকাংশ আসামীকে বিদেশে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে সংগঠনটির পক্ষ থেকে। এ ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয়ে গঠিত তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনেও শিবির ক্যাডারদের নাম উঠে এলেও তাদের বিরুদ্ধে কোন শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়নি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। এদিকে নয় বছরেও ফারুক হত্যা মামলার বিচার কাজ শেষ না হওয়ায় হতাশ তার স্বজনরা। হতাশা ব্যাক্ত করেছেন ছাত্রলীগের বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মীরাও।

পরিবারের একমাত্র সন্তানের মৃত্যুর পর অসহায় ফারুকের পরিবারকে দেখারও কেউ নেই। নিহত ফারুকের বোন আসমা আক্তার বলেন, নয় বছর পরও ভাই হত্যার বিচার না পেয়ে আমরা হতাশ। আমাদের পরিবারের এমন অবস্থা যে মামলার খোঁজ নেয়ার মতো কেউ নেই। ভাইয়ের মৃত্যুর পর বাবা অসুস্থ হয়ে আছেন, হাঁটাচলা করতে পারেন না। টাকার অভাবে চিকিৎসাও করাতে পারছি না। 

উল্লেখ্য ২০১০ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি আবাসিক হলে ছাত্রলীগের ঘুমন্ত নেতাকর্মীদের ওপর হামলা চালায় শিবিরের ক্যাডাররা। তারা রাবি ছাত্রলীগের কর্মী ও গণিত বিভাগের মেধাবী শিক্ষার্থী ফারুক হোসেনকে নির্মমভাবে খুন করে লাশ শাহ মখদুম হলের পেছনের একটি ম্যানহোলে ফেলে রাখে। একই রাতে শিবির ক্যাডাররা ছাত্রলীগ কর্মী সাইফুর রহমান বাদশা, ফিরোজ আরিফুজ্জামান ও রুহুল আমীন লেলিনের হাত ও পায়ের রগ কেটে দেয়। এরপর থেকে তারা পঙ্গু অবস্থায় দিন কাটাচ্ছেন। আরেক ছাত্রলীগ কর্মী আসাদুর রহমানের মাথায় হাতুড়ি দিয়ে আঘাত করে শিবির ক্যাডাররা। এ ঘটনার পর থেকে তিনি অন্ধ। ঘটনার পর কিছুদিন খোঁজ খবর রাখলেও বর্তমানে সংগঠনের পক্ষ থেকে কেউ খবর রাখে না বলে জানা গেছে।

জানা যায়, ঘটনার পরদিন রাবি ছাত্রলীগের তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক মাজেদুল ইসলাম অপু বাদী হয়ে শিবিরের ৩৫ নেতাকর্মীর নাম উল্লেখ করে নগরীর মতিহার থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলার পর সন্দেহভাজন হিসেবে জামায়াতের কেন্দ্রীয় নেতা আলী আহসান মুহাম্মদ মুজাহিদ, মতিউর রহমান নিজামী, দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী, মহানগর জামায়াতে ইসলামীর আমির আতাউর রহমান, শিবিরের রাবি শাখার তৎকালীন সভাপতি শামসুল আলম ওরফে গোলাপ, বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব আব্দুল লতিফ হল শাখা শিবিরের সভাপতি হাসমত আলী, শহীদ হবিবুর রহমান হল শিবিরের সভাপতি রাইজুল ইসলাম, মার্কেটিং বিভাগের ছাত্র ও শিবিরকর্মী রুহুল আমিন এবং শিবির ক্যাডার বাপ্পীসহ ২৫ জনকে গ্রেফতার করা হলেও অধিকাংশ  জামিন পেয়ে যান।

SHARE