‘নাগরিকপঞ্জি আন্দোলনে শহীদ’ পরিবারের সদস্যরাও তালিকায় বাদ পড়েছেন

45


।।দেশরিভিউ স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট।।

ভারতের উত্তর–পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্য আসামের চূড়ান্ত জাতীয় নাগরিকপঞ্জি (এনআরসি) প্রকাশ করা হয়েছে। এই তালিকা থেকে বাদ পড়েছেন প্রায় ১৯ লাখ ৬ হাজার ৬৫৭ জন। যার মধ্যে ১১ লাখেরও বেশি হিন্দু ও ছয় লাখের কিছু বেশি মুসলমান রয়েছে যারা বাংলা ভাষায় কথা বলে। বাকি দুই লাখের মধ্যে রয়েছে বিহারী, নেপালী, লেপচা প্রভৃতি।

ভারতীয় গণমাধ্যম সূত্রে জানা গেছে, নাগরিকপঞ্জি করার দাবীতে দীর্ঘ সময় যারা আন্দোলন করেছেন এবার তাঁরাই এর বিরোধিতা করছেন। তাদের অভিযোগ, বাদ পড়ার সংখ্যাটা দেখে তারা অবাক হয়েছেন। তারা বলছে, এই সংখ্যা নূন্যতম ৬০ লাখ হতে পারতো।

তাদের আরো একটি অভিযোগ হচ্ছে, আসামে ভাষা আন্দোলনের শহিদ পরিবার, ভূমিপুত্র এবং হিন্দু বাঙালিদের একটা বড় অংশ বাদ পড়েছে। এমতাবস্থায় গোটা পদ্ধতিটাই অস্বচ্ছ বলে মনে করছে তারা।

তাদের অভিযোগ, বিদেশি বিতাড়নের জন্য আন্দোলনে ৮৫৫জন ভাষা শহিদদের অনেকের পরিবারের নাম নেই।
প্রথম শহিদ খড়গেশ্বর তালুকদার থেকে শুরু করে মদন মল্লিক বা মৃণাল ভৌমিক, অসমবাসী বাঙালি শহিদদের পরিবারের সকলেই বলছেন, ‘এ কেমন এনআরসি? যাঁরা বিদেশি তাড়ানোর জন্য প্রাণ দিয়ে গেল, তাঁরাই আজ বিদেশি প্রতিপন্ন হচ্ছে! আর যাদের থাকার কথা নয়, তারা দেশের নাগরিকের স্বীকৃতি পাচ্ছে! এমন এনআরসি আর আমরা চাই না।’ কার্বি আংলঙের শহিদ মদন মল্লিকের পরিবারের কারও নাম নেই নাগরিকপঞ্জিতে। নাম নেই কামরূপের মৃণাল ভৌমিকের পরিবারের ৬ জনেরও।

SHARE