নাগেশ্বরীতে প্রধান শিক্ষক ও বিদ্যালয় কমিটির স্বাক্ষর জাল করে রাজাকার পুত্রের প্রতারনা

70


কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি: ভুয়া মামলায় গ্রামবাসীকে হয়রানী, গ্রামবাসীর স্বাক্ষর জাল করে বিভিন্ন দপ্তরে ভুল অভিযোগ, গ্রামবাসীর ছবি চুরি ও এডিট করে মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ, সাজানো স্বাক্ষী বানিয়ে সরকারী বিভিন্ন দপ্তরে বিভ্রান্তিকর তথ্য প্রেরণ এবং ভুয়া সাংবাদিক হিসেবে নিজেকে পরিচয় দিয়ে চাঁদাবাজীসহ বিভিন্ন দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে কুটিপয়ড়াডাঙ্গার রাজাকার পুত্র হাফিজুর রহমান বাবুর বিরুদ্ধে।

হাফিজুর রহমান বাবুর অপকর্মের একান্ত সহযোগী আবুল হাসেম, ফারুক ও আপেল। প্রতারনা ও হয়রানী থেকে রক্ষা পেতে গ্রামবাসী নাগেশ^রী থানায় সাধারণ ডায়রীসহ বিভিন্ন দপ্তরে একাধিকবার অভিযোগ করেছেন। তার অপকর্মের প্রমাণও পেয়েছে নাগেশ^রী থানা পুলিশ। নাগেশ^রী উপজেলার কুটিপয়ড়াডাঙ্গা বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের ব্যবস্থাপনা কমিটির সকল কাগজপত্র লুট করে এবং প্রধান শিক্ষক শামসুল আলমের স্বাক্ষর জাল করে জেলা শিক্ষা অফিসার, কুড়িগ্রাম বরাবর চাকুরী হতে অব্যহতি প্রদান সম্পর্কিত একটি পত্র প্রেরণ করেন যার প্রেক্ষিতে প্রধান শিক্ষক দীর্ঘদিন বেতন-ভাতা গ্রহণ করতে পারেননি।

এ বিষয়ে প্রধান শিক্ষক শামসুল আলম (০১৭১৬-৮৮৪৩০৮) জানান, হাফিজুর রহমান বাবুর নিজ বাড়ীর ট্র্যাংক হতে নাগেশ^রী থানা পুলিশের সহায়তায় উক্ত বিদ্যালয়ের সকল কাগজপত্রাদি উদ্ধার করা হয় এবং হাফিজুর রহমান বাবুর বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করা হয়। পরবর্তীতে তদন্তের মাধ্যমে প্রমাণিত হয় যে, হাফিজুর রহমান বাবু নিজেই বিদ্যালয়ের ভুয়া রেজুলেশন বহি তৈরিসহ ব্যবস্থাপনা কমিটি ও প্রধান শিক্ষকের স্বাক্ষর জাল করে বিভিন্ন ভুয়া কাগজপত্র তৈরি করেন। এছাড়াও রেজুলেশনে দেখান যে, প্রধান শিক্ষক শামসুল আলম চাকুরী হতে অব্যহতি দিয়েছেন। হাফিজুর রহমান বাবু এতই ধূর্ত যে, স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যক্তিবর্গের নাম ভাঙ্গিয়ে প্রধান শিক্ষক শামসুল আলমকে হুমকি দেয়াসহ মোটা অংকের চাঁদাদাবি করে আসছে এবং বিভিন্নভাবে হয়রানী করছে। হাফিজুর রহমান বাবু তার অপকর্ম ঢাকার জন্য ভুয়া সাক্ষী বানিয়ে ও বিভিন্ন জনের স্বাক্ষর জাল করে স্থানীয় সাংবাদিক ও প্রশাসনকে বিভ্রান্তিকর তথ্য প্রদান করে ভুল অভিযোগ করছে যাতে গ্রামে সর্বদা বিশৃঙ্খংলা লেগে থাকে।

গ্রামবাসীরা জানান, হাফিজুর রহমান বাবু দীর্ঘদিন যাবত গ্রামের সহজ সরল মানুষকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানী করে আসছে, গ্রামের শিক্ষার পরিবেশ নষ্ট করছে, সরকারের উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডে প্রতিনিয়ত বাধার সৃষ্টি করছে। এছাড়াও তার প্রতারনার ফলে গ্রামের গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের সুনাম নষ্ট হচ্ছে এবং গ্রামে অস্থিরতার তৈরি হচ্ছে। এ বিষয়ে গ্রামবাসী স্থানীয় প্রশাসনের সহযোগিতা কামনা করে হাফিজুর রহমান বাবুকে অতিদ্রুত আইনের আওতায় এনে গ্রেফতার করার দাবি জানাচ্ছে। কিন্তু নাগেশ^রী থানা পুলিশের সাথে হাফিজুর রহমান বাবুর এতটাই সু-সম্পর্ক যে বাবুর নামে কেউ সাধারণ ডাইরী বা মামলা করতে গেলে সকল প্রকার প্রমাণ থাকা সত্ত্বেও নাগেশ^রী থানার অফিসার ইনচার্জ কোন রকম জিডি বা মামলা গ্রহণ না করে কোর্টে মামলা করার পরামর্শ দেয় এবং নানাভাবে গ্রামবাসীকে হয়রানী করে। কিছু দিন আগে অতিষ্ঠ গ্রামবাসী তার বিরুদ্ধে থানায় সাধারণ ডাইরী করতে গেলে প্রায় একদিন হয়রানী করার পর গ্রামবাসীর চাপের মুখে অবশেষে নাগেশ^রী থানা অফিসার ইনচার্জ জিডি গ্রহণ করেন। রাজাকার পুত্র হাফিজুর রহমান বাবু ও তার চক্রটির অপকর্ম ও দূর্ণীতি নিয়ে বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় অনেকবার সংবাদ প্রকাশিত হয়। নাগেশ^রী থানা পুলিশের সাথে উক্ত সন্ত্রাসী চক্রটির একটি অদৃশ্য সু-সম্পর্ক রয়েছে বলে অনেকের ধারণা এবং এর কারণেই উক্ত চক্রটির আরো বেপরোয়া হয়েছে এবং প্রতিনিয়ত গ্রামবাসীকে হয়রানী করছে। স্থানীয় প্রশাসনের কাছে প্রতারক হাফিজুর রহমান বাবুর নামে নানা অভিযোগ থাকা সত্ত্বেও নাগেশ^রী থানার অফিসার ইনচার্জের প্রশ্নবিদ্ধ ভুমিকার কারণে এলাকায় অস্থিরতা বিরাজ করছে এবং যে কোন সময় এলাকায় বড় ধরনের অঘটন ঘটতে পারে। তাই গ্রামবাসী জানান হাফিজুর রহমান বাবুকে অতিদ্রুত আইনের আওতায় আনা উচিত।

SHARE