নাজিমখান স্কুল এন্ড কলেজ ধ্বংসের নেপথ্যে বিএনপিপন্থী শিক্ষকরা

172

।।এজি লাভলু, কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি।।

উত্তরাঞ্চলের ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নাজিমখান উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ আজ বিভিন্ন কুচক্রীমহলের ষড়যন্ত্রে ধংশের পথে। জানা যায় ১৯৬২ সালে স্কুল ও ১৯৯৬ সালে কলেজ শাখা প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পরে যোগ্য শিক্ষক মন্ডলী ও দক্ষ ম্যানেজিং কমিটির মাধ্যমে অত্র প্রতিষ্ঠান জেলার অন্যতম শ্রেষ্ঠ প্রতিষ্ঠানে পরিনিত হয়েছিলো।

প্রতিষ্ঠানটি থেকে পাশ করে বিশ্বব্যাংকের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা এমনকি দেশের বিভিন্ন প্রশাসনের মধ্যে উচ্চপদেও অনেকে চাকুরিরত ছিলেন। প্রতিষ্ঠানটি থেকে পাশ করা অনেকেই প্রতি বছর বিসিএস ক্যাডার, ইঞ্জিনিয়ার ও এমবিবিএস ডাক্তারসহ অগণিত বিশ্ববিদ্যালয় গ্র্যাজুয়েট বের হয়, যারা প্রত্যেকেই স্ব-স্ব ক্ষেত্রে দেশের সামগ্রিক উন্নয়নে ব্যাপক ভূমিকা পালন করে আসছে।

কিন্তু ৯০ এর পর গতকাল(রোববার) ঘটে গেল স্কুলের ইতিহাসে এক জঘন্যতম ঘটনা। বর্ণিত সিন্ডিকেটের যোগসাজশে স্কুলের কোমলমতী বিশেষ করে ছাত্রীদের হাতে শিক্ষকদের লিখে দেয়া প্লাকার্ড ধরিয়ে দিয়ে রাস্তায় দাঁড় করানো হলো, আর ছাত্রদের উষ্কে দিয়ে রাস্তায় পোড়ানো হলো প্রাক্তন এক ছাত্রের অনুদানে কিছুদিন আগে কেনা আসবাবপত্র। খুবই চমৎকার একটি ইস্যুকে পুঁজি করে এই আন্দোলন- ক্লাস নিয়মিত হয় না ও ভারপ্রাপ্ত প্রিন্সিপাল স্যার এর বিরুদ্ধে ৫০,০০,০০০ টাকার দুর্নীতির অভিযোগ।

সরেজমিন তদন্তে জানা যায় বিগত বিএনপি জামায়াত জোট ক্ষমতায় থাকার সময় তৎকালীন সভাপতি বর্তমানে নাজিমখান ইউনিয়ন বিএনপি সভাপতি সাদেক সরকার প্রধান শিক্ষক জয়নাল আবেদীন সরকারকে জিম্মি করে ক্ষমতার দাপটে একচেটিয়া নিয়োগ বানিজ্য করে কোটি টাকার বিনিময়ে অযোগ্য প্রার্থীদের মধ্য থেকে শিক্ষক নিয়োগ করেন, যে শিক্ষকরা বর্তমানে তাদের অর্পিত ক্লাসে ক্লাস নিতে ভয় করে দক্ষতা, যোগ্যতা ও মেধার অভাবে। ভারপ্রাপ্ত প্রিন্সিপাল বিভিন্ন পদক্ষেপের মাধ্যমে ক্লাস পরীক্ষা নিয়মিতভাবে অনুষ্ঠানের চেষ্টা করে আসছেন। তার এই অক্লান্ত পরিশ্রম ও বিষয় ভিত্তিক অযোগ্য শিক্ষকদের অসহযোগিতা সত্বেও গত এসএসসি পরীক্ষায় ১২০ জন পরীক্ষার্থীর মধ্যে ০৭ জন গোল্ডেন সহ এ প্লাস পায়। উল্লেখ্য, ইতিপূর্বে অব্যবস্থাপনা ও শিক্ষকের অদক্ষতার কারনে শিক্ষার বিপর্যয় ঠেকাতে এলাবাসী অত্যন্ত সৎ ও মেধাবী শিক্ষক মোস্তাফিজার রহমান বিজুকে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষের দায়িত্ব প্রদান করে। মোস্তাফিজার রহমান অধ্যক্ষ হয়েই শিক্ষার পরিবেশ ফিরিয়ে আনার উদ্যাগ গ্রহণ করেন তাতেই বেধে যায় বিপত্তি।

বিএনপি পন্থী সহকারী প্রধান শিক্ষক আইয়ুব আলী, রনজু সরকার, সবুজ আহমেদ সহ জোট করে অধ্যক্ষকে শায়েস্তা করার জন্য মরিয়া হয়ে ওঠেন আর তাদের সাথে যুক্ত হন এলাকার বিতর্কিত আওয়ামীগ নেতা আমিনুর রহমান আমিন।

জানা যায় আমিন এলাকায় ভুমিদুস্যু নামে পরিচিত, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতির সাইনবোর্ড ব্যবহার করে এমন কোন অপকর্ম নেই যা তিনি করেন না। বাজারের ১৫০ শতকেরও বেশী জমি দখল, শ্রদ্ধাভাজন শিক্ষক সাইফুলের দোকান প্রকাশ্য দিবালোকে দখল করে তার ছোট ভাই মমিন উপরে আওয়ামী লীগের সাইনবোর্ড টাঙ্গিয়ে ভিতরে কর্নফুলি বাসের কাউন্টার বানিয়েছে। এ ছাড়া চাঁদাবাজী, মাস্তানী ও নিরীহ মানুষদের উপর অত্যাচারে সাধারণ মানুষতো দুরের কথা প্রবীন আওয়ামী লীগ নেতারাও আজ অসহায়।

বিএনপি নেতা আইয়ুব ও আওয়ামী লীগ নেতা আমিন জোট বদ্ধ হয়ে মরিয়া হয়েছে স্কুলের দখল নেবার, সেজন্য গত ২০ তারিখ ক্লাস হয়না সে অভিযোগ তুলে কয়েকটা ক্লাসের ছাত্র/ছাত্রীদের রাস্তা অবরোধ করে শিক্ষার্থীদের উত্তেজিত করে ব্রেঞ্চে আগুন ধরিয়ে, ম্যানেজিং কমিটির সদস্য আমিনের ছোট ভাই মমিন ও আরেক ছোট ভাই আওলাদ অধ্যক্ষ মোস্তাফিজারকে তিন তলা হতে মারতে মারতে নিচে নামিয়ে এনে একটা আতঙ্ক পরিবেশ তৈরী করেন এরই সাথে বিএনপি জামায়াত শিক্ষকদের আস্ফালন তো আছেই। এমনভাবে অধ্যক্ষকে জীবন নাশের হুমকি দেয়া হয় যে বাধ্য হয়ে জীবন বাঁচার স্বার্থে আগামী মাসে অব্যাহতি দিবেন মর্মে স্থানীয় প্রশাসনের উপস্থিতিতে সাদা কাগজে লিখে দিতে বাধ্য করা হয়েছে। এই ঘোষনার জন্যই এই চক্র এ সব নাটক করেছে কারন ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ চলে গেলে তারা আবারো নিয়োগ বাণিজ্য করতে পারবে এবং কোটি টাকা হাতিয়ে নিবে। এর পরেও মনের ক্ষোভ যায়না ম্যানেজিং কমিটির সদস্যদের। ম্যানেজিং কমিটির সদস্য মমিন ও তার ছোট ভাই অত্র প্রতিষ্ঠানের ক্লার্ক আওলাদ হুট করেই প্রবীন আওয়ামী লীগ নেতা আকবর আলীর সুযোগ্যপুত্র মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সহকারী প্রেস সচিব জনাব এবিএম সরওয়ার-ই-আলম সরকার জীবন সম্পর্কে অত্যন্ত ন্যক্কারজনক ভাষায় গালি- গালাজ করেন এবং তার পদ এনএসআইয়ের মাধ্যমে খাবেন বলে দম্ভক্তি করে “কাছে পাইলে দেখে নিবেন বলে হুশিয়ারী প্রদান করেন”।

উল্লেখ্য জনাব এবিএম সরওয়ার-ই আলম সরকার জীবন এই স্কুলের ছাত্র এবং শিক্ষার পরিবেশ উন্নত করন নিয়ে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন জনকে পরামর্শ দিয়ে থাকেন।

এলাকাবাসীর কাছে প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে জানতে চাওয়া হলে নাম প্রকাশ না করার শর্তে তারা জানান “ভাই হামরা আমিন-মমিনের দাপটে কোনঠাসা হয়ে আছি ওরা যা ইচ্ছা তাই করছে” এত বড় প্রতিষ্ঠান দেখেন না ম্যানেজিং কমিটি কাকে বানিয়েছে? ম্যানেজিং কমিটির খোজ নিয়ে জানা যায় জেলা যুবলীগের যুগ্ন আহবায়ক রেদোয়ানুল হক দুলাল সভাপতি হিসাবে যোগ্য হলেও বাকি সদস্যরা একবারেই অযোগ্য!
যেমন- মোটর শ্রমিক নেতা হাফিজ (জারুয়া হাফিজ), প্রাক্তন মেম্বার ভবেশ (সাবেক কুলি), কর্নফুলি বাস কাউন্টারের চেইন মাষ্টার মমিন, বিস্কুট ফ্যাক্টরির কারিগর রানা, গৃহিণী গোলাপী বেগম এরা কেউ অষ্টম শ্রেনী পাশ করতে পারেনি অনেকে নামও লিখতে পারে না।

এলাকার প্রবীণ এক নেতা আক্ষেপ করে বলেন “ভাই কি বলি এখন ওমরায় আওয়ামী লীগ ওমরায় বিএনপি হামরা কিছু না। দেখেন না এত বড় স্কুল আর কমিটির লোকজন শ্রমিক, জেলে, কুলি, যারা নিজের নামটাও লিখতে পারে না তারা আর কি শিখাবে? মোস্তাফিজার যতটুকু উদ্যেগ নিলো তাওতো এমরা আওলি দিলো, মোস্তাফিজার গেলে স্কুলটা একে বারে শেষ হয়ে যাবে।

তবে এ ব্যপারে আমিনুর রহমান আমিন এর সাথে যোগাযোগ করতে চাইলে তার মুঠোফোন বন্ধ পাওয়া যায়। এলাকাবাসী স্কুলটি বিতর্কিত আওয়ামী লীগ, বিএনপি- জামায়াত সিন্ডিকেট থেকে যেন মুক্ত হয় এবং যারা এ সব করছে তাদের যেন দৃষ্টান্তমুলক শাস্তি হয় সেই দাবি তারা সরকারের কাছে জানান।

SHARE