নাটকীয় ফাইনাল ম্যাচে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স ১ রানে জয়ী

112


।।দেশরিভিউ।।
শেষ ওভারে ম্যাচ জিততে চেন্নাইয়ের প্রয়োজন দাঁড়ায় ৯ রানের। শেষ বলে সেই হিসেব কমে এল ২ রানে। অর্থাৎ এক বলে দুই রান করলেই ট্রফি চেন্নাইয়ের। এক রান হলে ম্যাচ টাই। লাসিথ মালিঙ্গা তার সেই শেষ ওভারের শেষ বলে ম্যাচের সেরা বল করলেন। পারফেক্ট ইয়র্কার! তাতেই এলবিডব্লু চেন্নাইয়ের ব্যাটসম্যান শার্দুল ঠাকুর। আম্পায়ার আঙ্গুল তুলে জানালেন আউট। সঙ্গে সঙ্গে ডাগআউট থেকে পুরো মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স বাধ ভাঙা স্রোতের মতো মাঠে ছুটল। ১ রানে ফাইনাল ম্যাচ জিতে নিয়েছে তারা। সেই সঙ্গে আরেকবার আইপিএলের ট্রফি। সবমিলিয়ে চতুর্থবারের মতো আইপিএল জিতল মুম্বাই।
চেন্নাই ওপেনার শেন ওয়াটসন প্রায় অসম্ভব অবস্থান থেকে ম্যাচের মোড় বদলে দেন। দুর্দান্ত ব্যাটিং করেন তিনি। কিন্তু ফিনিসিং যে দিতে পারলেন না। ম্যাচের শেষ ওভারের চতুর্থ বলে রান আউট হয়ে যান ওয়াটসন। ৫৯ বলে তার ৮০ রানের ইনিংসও দলকে জেতাতে পারল না।

শেষ বলের নায়ক হয়ে গেলেন মুম্বাইয়ের পেসার লাসিথ মালিঙ্গা। অথচ এই মালিঙ্গা তার তৃতীয় ওভারে বেদড়ক পিটুনি খান। তার করা ম্যাচের সেই ১৬ নম্বর ওভার থেকে চেন্নাই ২০ রান তুলে নেয়। ১ ছক্কা ও ৩ বাউন্ডারিতে আসা সেই ২০ রানের মধ্যে ১৯ রানই ওয়াটসনের। ভীষণ খরুচে সেই মালিঙ্গই শেষ ওভারে এসে ফাইনালের হিরো।
ক্রিকেট আসলে যতটুকু কেড়ে নেয়, ফিরিয়েও দেয় তার অনেক বেশি! মালিঙ্গা এখন নিশ্চয়ই তাই বলবেন!
ওয়াটসন ছাড়া চেন্নাইয়ের আর কোনো ব্যাটসম্যান ব্যাট হাতে যে কিছুই করতে পারেননি। ইনিংসের মাঝপথে মহেন্দ্র সিং ধোনি ২ রানে রানআউট হওয়ার পর চেন্নাই ম্যাচ থেকে ছিটকে যায়। তবে ওয়াটসনের ব্যাটিং কারিশমায় ম্যাচে ফিরে। কিন্তু লড়াইটা শেষ করে দিতে আসতে পারলেন না ওয়াটসন। শেষ ওভারের লড়াইয়ে ঠিকই ম্যাচের সব হিসেব বদলে দিলো মালিঙ্গার ম্যাজিক!

টসে জিতে ব্যাটিংয়ে যেভাবে শুরু করেছিল মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স তাতে মনে হচ্ছিল বিশাল যোগাড়ে নেমেছে তারা ফাইনালে। শুরুর চারটা বিগ শটের চারটাই ছক্কা! কুইন্টন ডি ককের ব্যাটে যেন ঝড়! দুঃশ্চিন্তার রেখা ধোনির মুখে। কিন্তু পাওয়ার প্লে’র মধ্যেই ফের ধোনির মুখে স্বস্তির হাসি ফিরে এল। দুই ওপেনারকে পাওয়ার প্লে’তে হারাল মুম্বাই। ১৭ বলে ২৯ রান করে প্রথমে আউট হলেন ডি কক। দীপক চাহার পাওয়ার প্লেতে উইকেট শিকারের অভ্যাসটা ধরে রাখলেন ফাইনালেও।
দুই ওপেনারকে ৪৫ রানে হারানোর পর মুম্বাইয়ের শুরুর ব্যাটিং ঝড় স্থিমিত হয়ে গেল। মিডলঅর্ডারও ব্যর্থ। সুর্যকুমার যাদব, ক্রুনাল পান্ডে ও ঈশান কিষান চটজলদি ফিরে এলেন। হার্দিক পান্ডেও সিঙ্গেল ডিজিটের স্কোরে ক্যাচ দিয়েছিলেন, কিন্তু সুরেশ রায়না সহজ সেই ক্যাচ হাতে নিয়েও ফেলে দিলেন! তবে সেই সুযোগটা বেশি কাজে লাগাতে পারেননি হার্দিক পান্ডে। ১০ বলে ২১ রানে দীপক চাহার তাকে তুলে নিলেন নিজের শেষ স্পেলে।
একমাত্র কাইরন পোলার্ড একপ্রান্ত থেকে আক্রমণাত্মক ব্যাটিং করায় মুম্বাইয়ের স্কোর গিয়ে পৌঁছায় ১৪৯ রানে। ৩ ছক্কা ও ৩ বাউন্ডারিতে ২৫ বলে অপরাজিত ৪১ রান করেন পোলার্ড। ফাইনালে সেটাই মুম্বাইয়ের সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত স্কোর।
ডেথ ওভারে দুর্দান্ত বোলিং করে চেন্নাই সুপার কিংস। দীপক চাহার ১৯ নম্বর ওভারে মাত্র ৪ রান দিয়ে দু’টি উইকেট তুলে নেন। ২৬ রানে ৩ উইকেট শিকারি দীপক চাহার ফাইনালে চেন্নাইয়ের সেরা বোলার।
ইমরান তাহির ও শার্দুল ঠাকুর দু’টি করে উইকেট নিয়ে নিজেদের কার্যকারিতা প্রমাণ করেন। হায়দরাবাদের এই মাঠে ১৩৭ রানের জমা নিয়েও এবারের আইপিএলে ম্যাচ জিতেছিল মুম্বাই। হারিয়েছিল তারা সানরাইজার্স হায়দরাবাদকে। তবে চেন্নাইয়ের ব্যাটিং যে একটু বেশি শক্তপোক্ত। কিন্তু এবারো রানরক্ষা করল মুম্বাই। ম্যাচ জিতল ১ রানে। তাও আবার ফাইনালে!
এই নিয়ে আইপিএলের ফাইনালে মুম্বাই-চেন্নাই মুখোমুখি হয়েছিল চারবার। তাতে তিনবারই জিতল মুম্বাই।
সংক্ষিপ্ত স্কোর: মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স: ১৪৯/৮ (২০ ওভারে, ডি কক ২৯, রোহিত ১৫, সুর্যকুমার ১৫, ঈশান ২৩, পোলার্ড ৪১*, হার্দিক ১৬, চাহার ৩/২৬, ঠাকুর ২/৩৭, তাহির ২/২৩)। চেন্নাই সুপার কিংস: ১৪৮/৭ (২০ ওভারে, দুপ্লেসি ২৬, ওয়াটসন ৮০, ব্রাভো ১৫, বুমরা ২/১৪, চাহার ১/১৪, মালিঙ্গা ১/৪৯)। ফল: মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স ১ রানে জয়ী।

SHARE