নারী দিয়ে ভয়ঙ্কর ফাঁদ। বিবস্ত্র করে নির্যাতন, মুক্তিপণ আদায় তাদের পেশা।

489

।।দেশরিভিউ/চট্টগ্রাম।। নারীদের দিয়ে ভয়ংকর ফাঁদে ফেলা তাদের কাজ। বিভিন্ন মানুষকে সে ফাঁদে ফেলে বিবস্ত্র করে নির্যাতন করে মুক্তিপণ আদায় করা ছিলো তাদের  পেশা। চট্টগ্রাম শহরেই তারা বীরদর্পে এই কাজ করলেও বিষয়টি জানতে পারেনি মানুষ। এলাকায় অভিযান চালিয়ে এমন ‘নারীদের দিয়ে ফাঁদা পাতা’ প্রতারক চক্রের পাঁচ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

শুক্রবার (৮ মার্চ) দিবাগত রাতে পাঁচলাইশ, হালিশহর ও বায়েজিদ বোস্তামি এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করেন কোতোয়ালী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. কামরুজ্জামানের নেতৃত্বে একটি টিম।

গ্রেফতার পাঁচজন হলেন- দিদারুল ইসলাম প্রকাশ দিদার (৩৫), ফাতেমা ইয়াছমিন নিশি (২৮), বিথিত মাহমুদ মোস্তাফা সিফা (২৩) আনোয়ার হোসেন আনু (৪৪) ও রাকিব আল ইমরান (২৬)। তাদের বাড়ি চট্টগ্রাম, ফেনী, নোয়াখালী ও কক্সবাজারের বিভিন্ন এলাকায়।

শনিবার (৯ মার্চ) দুপুরে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তাদের গ্রেফতারের বিষয়টি জানান চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) উপ-কমিশনার (দক্ষিণ) এসএম মেহেদী হাসান।

এসএম মেহেদী হাসান জানান, ‘নগরে দীর্ঘদিন ধরে কয়েকটি চক্র নারীদের ব্যবহার করে ফাঁদ পেতে মানুষের কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছিল। এমন একটি চক্রের পাঁচ সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের কৌশল ছিল নারীদের দিয়ে শহরের বিভিন্ন এলাকার ব্যবসায়ী ও বিত্তশালী লোকদের প্রথমে প্রেমের ফাঁদে ফেলা এবং পরে বাসায় ডেকে এনে অশ্লীল ছবি ও ভিডিও ফুটেজ ধারণ করে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেয়া। ওই চক্রের ফাঁদে পা দিয়ে অন্তত ৪০ থেকে ৫০ জন ব্যক্তি লাখ লাখ টাকা হারিয়েছেন।’ ‘স্বামী-স্ত্রী পরিচয়ে নগরের বিভিন্ন এলাকায় বাসা ভাড়া নিয়ে থাকেন এ চক্রের সদস্যরা। তাদের বাসার ড্রইং রুমে হালকা আসবাবপত্র থাকলেও বাকি রুমগুলোতে কোন কিছু থাকে না। ২/৩ মাস পর পর তারা বাসা পরিবর্তন করেন।’ যোগ করেন এসএম মেহেদী হাসান।

কোতোয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহম্মদ মহসীন জানান, শুক্রবার মো. ইমরান নামের এক ব্যবসায়ী থানায় এসে অভিযোগ করেন- ২ মার্চ রাতে কাজীর দেউড়ি মোড় থেকে পুলিশ পরিচয়ে সিএনজি অটোরিকশা থামিয়ে তাকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়। চোখ বেধে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে পাঁচলাইশ থানাধীন চশমা হিল এলাকার একটি বাসায় নেয়া হয় তাকে। পরে সেখানে দুই নারীর সাথে জোর করে আপত্তিকর অবস্থায় ছবি তোলা হয়। এসব ছবি গণমাধ্যমে প্রকাশ করবে এবং প্রাণে মেরে ফেলবে এমন ভয় দেখিয়ে ২ লাখ টাকা দাবি করা হয়। বিকাশে ৫০ হাজার ৫০০ টাকা দিয়ে ৩ মার্চ বিকেল ৫টার দিকে ছাড়া পান ইমরান।’

SHARE