নাসিমের মৃত্যুতে বেরোবি শিক্ষিকার ব্যঙ্গাত্মক মন্তব্যঃ সমালোনার ঝড়

425

।।রংপুর প্রতিনিধি।।

সদ্য প্রয়াত সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ এর মুখপাত্র মোহাম্মদ নাসিমের মৃত্যু নিয়ে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) এক শিক্ষিকার ব্যাঙ্গাত্মক স্টাটাসে সমালোচনার ঝড় উঠেছে। সাধারণ শিক্ষার্থী এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকগণও নিন্দা জানিয়েছেন এ ব্যাপারে। অভিযুক্তের শাস্তি নিশ্চিত করা না হলে কঠোর আন্দোলনে যাওয়ার হুমকি ও মামলার কথাও জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের নেতা কর্মীরা।

অভিযুক্ত শিক্ষিকা সিরাজুম মুনিরা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগে প্রভাষক ও ছাত্রজীবনে বামপন্থী রাজনীতি করতেন।

জানা যায়, আজ ১৩ জুন লাইফ সাপোর্টে থাকা সাবেক সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর অন্যতম সদস্য মোঃ নাসিম মারা যান। তাঁর মৃত্যুতে নিয়েই ওই শিক্ষিকা ওনার ব্যক্তিগত ফেসবুক আইডিতে ব্যাঙ্গ কর”যোগ্য নেতৃত্বে দেশ নাসিম্যা মুক্ত হল” শিরোনামে পোস্ট দেন। কিছুক্ষণের মধ্যেই বিষয়টি বুঝতে পেরে তা ডিলিট করেন তিনি। কিন্তু ততক্ষণে পোস্টের স্ক্রিনশট ছড়লে স্থানীয় আওয়ামীলীগ ও এর অঙ্গসংগঠনগুলোর নেতা কর্মীদের পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বিষয়টির তীব্র সমালোচলা করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগ শাখার সভাপতি তুষার কিবরিয়া বলেন, সিরাজুম মুনিরা এর আগেও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে কটাক্ষ করে মন্তব্য করেছেন। আমরা এ বিষয়টি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে বলেছিলাম।তা সত্ত্বেও তাকে কেন নিয়োগ দেয়া হলো তা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে জানতে চাই এবং তিনি যে ঘৃণিত কাজটি করেছেন আমরা তার সর্বোচ্চ শাস্তি চাই।

ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নোবেল শেখ বলেন, করোনার পরিস্থিতি আর প্রিয় নেতার মৃত্য সব মিলে সকলেই কঠিন মুহুর্ত পার করছে। এমন মুহুর্তে একজন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষিকা হয়ে এমন স্টাটাস দেয়া খুবেই দুঃখজনক। এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। বিশ্ববিদ্যালয় খুললে আমরা এর প্রতিবাদ করব। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনের থেকে এই বিষয়ে যথাযথ পদক্ষেপ নেয়ার আহবান জানান তিনি।

এ বিষয়ে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান বলেন, এই ব্যাঙ্গাত্মক কাজের জন্য শুধু শাস্তি নয় তাকে বিচারের আওতায় এনে অতিদ্রুত এই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে চাকরিচ্যুত করার দাবি জানাচ্ছি। তার এই ধৃষ্টতার কারণে বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে প্রধানমন্ত্রীর কাছে তার শাস্তির দাবী করছি। অভিযুক্তের বিরুদ্ধে ডিজিটাল আইনে মামলা করার সকল প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলেও জানান মশিউর রহমান।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল ছাত্রলীগের সভাপতি পোমেল বড়ুয়া বলেন, বিগত সময়েও আমরা দেখেছি বামধারার রাজনীতির মিছিলে উনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নামে কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য দিয়েছিলেন। জাতীয় চার নেতার নেতার একজন শহীদ ক্যাপ্টেন মনসুর আলীর সন্তান সাবেক স্বাস্থ্য মন্ত্রী। আর তাছাড়াও একজন মৃত ব্যক্তিকে নিয়ে এমন মন্তব্য কোনভাবেই কাম্য নয়। আমাদের মনে প্রশ্ন জাগে এমন মনমানসিকতার একজন কিভাবে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হন? বিশ্ববিদ্যালয়ে কি আর কোন মেধাবী শিক্ষার্থী ছিল না?

বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সম্পাদক সুব্রত ঘোষ বলেন, জননেতা মোহাম্মদ নাসিমের মৃত্যুতে যখন হাজারো জনতা শোকাহত তখন এই বামাতি শিক্ষিকা প্রিয় নেতাকে নিয়ে কটুক্তি করার সাহস পায় কোথা থেকে? তার উৎসাহ দাতাই বা কে জানতে চাই। তাকে চাকরিচ্যুত না করলে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ তীব্র আন্দোলনে নামবে।

এ বিষয়ে জানতে অভিযুক্ত শিক্ষিকা সিরাজুম মুনিরাকে কয়েকবার ফোন করলে তিনি রিসিভ করেননি।

SHARE