নিজ এলাকার নদীভাঙন ঠেকাতে সচিবালয়ে সাংসদ মাশরাফি’র দৌড়ঝাপ

1184

।।দেশরিভিউ।।

নিজ এলাকার নদীভাঙন সমস্যা নিয়ে নড়াইল ২ আসনের সংসদ সদস্য ও জাতীয় ক্রিকেট দলের তারকা ক্রিকেটার মাশরাফি বিন মর্তুজা সচিবালয়ে যান মঙ্গলবার। এসময় পানিসম্পদ উপমন্ত্রী এনামুল হক শামিমের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন তিনি। নড়াইলের মধুমতি ও চিত্রা নদীর ড্রেজিং এবং মধুমতি নদীর তিনটি পয়েন্টে ভাঙনের ব্যাপারে ব্যবস্থা নিতে উপমন্ত্রীকে জানান মাশরাফি।

এ সময় উপমন্ত্রী পানি উন্নয়ন বোর্ডের ডিজিকে উপমন্ত্রীর কক্ষে ফোন করে ডেকে পাঠান। উপমন্ত্রী ডিজিকে মধুমতির তিনটি পয়েন্টে ভাঙনরোধে দ্রুত আপদকালীন ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেন। এছাড়া মাশরাফি অন্যান্য যেসব সমস্যা উল্লেখ করেছেন, সে ব্যাপারে দ্রুত প্রয়োজনীয় স্টাডি ও পরিকল্পনা করে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশনা দেন।’

পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. আবু নাছের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘উনি (মাশরাফি বিন মর্তুজা) দুটি ডিও লেটার (আধা-সরকারিপত্র) নিয়ে এসেছিলেন। একটি ছিল, ওনার নির্বাচনী এলাকা নড়াইলের মধুমতি ও চিত্রা নদী ড্রেজিং এবং নদীর পাড় সংরক্ষণের বিষয়ে। আরেকটি ডিও লেটার ছিল চিত্রা নদীর নড়াইল শহরের অংশে ঢাল সংরক্ষণের বিষয়ে। চিঠিতে তিনি মধুমতি নদীর শিয়ারপুর, মল্লিকপুর, ঘাঘা অংশে ভাঙন শুরু হয়েছে বলে উল্লেখ করে এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়ার অনুরোধ জানান। এর পরিপ্রেক্ষিতে উপমন্ত্রী পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দেন যে, যেখানে ভাঙন শুরু হয়েছে সেখানে দ্রুত আপদকালীন ব্যবস্থা নিন। এ ছাড়া স্টাডি করে ড্রেজিং ও নদীর পাড় সংরক্ষণের জন্য কীভাবে দ্রুত কাজ শুরু করা যায় সেই নির্দেশনাও দিয়েছেন উপমন্ত্রী’- বলেন আবু নাছের।

আবু নাছের বলেন, সচিবালয়ে সাধারণত অনেক ভিআইপি আসেন। কখনোই অফিসের সকল কর্মকর্তা, কর্মচারী, পিয়ন, গানম্যান; সবাই একসঙ্গে মন্ত্রীর রুমের সামনে দাঁড়ায় না। এটা নিয়মের মধ্যে পড়ে না। তবে মাশরাফি আসার পরে অফিসের সব স্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী মাশরাফিকে দেখতে উপমন্ত্রীর রুমের সামনে বিশাল লাইন করে দাঁড়ান। মাশরাফি বের হয়ে যাওয়ার সময় কেউ ছবি তুলেছেন, কেউ করমর্দন করেছেন।

দেশরিভিউ/নিউজরুম

SHARE