চট্টগ্রামে নিরাপদ সড়ক নিশ্চিতে প্রশংসিত নগর পুলিশ

894

।।স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট/দেশরিভিউ ॥

শিক্ষার্থীদের দীর্ঘদিনের দাবী, নিরাপদ সড়ক নিশ্চিতে আগের চাইতে অনেক বেশি উদ্দ্যেগী ভূমিকায় এখন চট্টগ্রাম নগর পুলিশ। তাদের পাশাপাশি সড়ককে নিরাপদ করতে এগিয়ে এসেছে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন ও চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষও। তবে এ ব্যাপারে অনেকটা নিষ্ক্রিয় ভূমিকায় রয়েছে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন। 

নিরাপদ সড়কের দাবী পূরণের অংশ হিসেবে চট্টগ্রাম নগরীর বিভিন্ন মোড় এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সামনে গেল সপ্তাহে সচেতনতামূলক সাইনবোর্ড স্থাপন করেছে নগর পুলিশ। নগরীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ও ব্যস্ত সড়কে এ সাইনবোর্ড লাগানোর কর্মসূচী হাতে নেয় তারা। এব্যাপারে নগর পুলিশ কমিশনার মাহবুবুর রহমান দেশরিভিউকে জানান, প্রাথমিকভাবে নগরীর কিছু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও সড়কের সামনে সচেতনতামূলক সাইনবোর্ড স্থাপন করা হয়েছে। ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরার স্থাপনের কাজও চলছে।ধীরে ধীরে নগরীর সব গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট তাদের এ কর্মসূচীর আওতায় আনার পরিকল্পনার কথা জানিয়ে তিনি বলেন, নগরীতে লাইসেন্স ও ফিটনেসবিহীন গাড়ির বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ সংখ্যক মামলা রেকর্ড করেছে নগর পুলিশের ট্রাফিক বিভাগ।

এর আগে গেল জানুয়ারিতে ট্রাকচাপায় নগরীর কোতোয়ালি মোড়ে এক ছাত্রী নিহত হওয়ার পর দিনেরবেলা নগরীতে ট্রাক ও কাভার্ড ভ্যান চলাচল নিষিদ্ধ করে সিএমপি। প্রায় প্রতিদিন নগরীর বিভিন্ন সড়কে পুলিশের উদ্ধর্তন কর্মকর্তাদের দেখা যাচ্ছে পথচারীদের নিরাপদ সড়ক ব্যবহারের জন্য সচেতন করতে। এছাড়াও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে নগর পুলিশের কর্মকর্তারা সচেতনামূলক সভা সমাবেশ করছেন।

গতবছর রাজধানী ঢাকার শহীদ রমিজ উদ্দিন ক্যান্টনমেন্ট কলেজের দুইজন শিক্ষার্থী নির্মম দূর্ঘটনায় প্রাণহারালে সারাদেশের শিক্ষার্থীরা রাজপথে আন্দোলনে নামে। রাজধানী ঢাকার পাশাপাশি চট্টগ্রামের শিক্ষার্থীরা টানা আন্দোলনে অংশ নিলেও বন্দরনগরীতে ছাত্রলীগ নেতাদের নিয়ন্ত্রন ছিলো চোখে পড়ার মতো। কোন সহিংসতা ছাড়াই আন্দোলন চলাকালে চট্টগ্রামের শিক্ষার্থীরা ছাত্রলীগ নেতাদের মধ্যস্থতায় জেলা প্রশাসন, নগর পুলিশ, সিটি কর্পোরেশন ও সিডিএ প্রধানদের সাথে বৈঠক করে নগরীর সড়ক নিরাপত্তা নিশ্চিতে বেশ কিছু দাবী জানিয়েছিলো।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে চট্টগ্রামের নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক মিনহাজ চৌধুরী রিফাত দেশরিভিউকে বলেন, আমাদের অনেক দাবী পূরন হয়েছে। ইতিমধ্যে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ(চউক) নগরীর দুইটি পয়েন্টে ফুটওভারব্রিজ নির্মানের কাজ শুরু করেছে। দিনের বেলাতে ট্রাক কাভার্ড ভ্যান বন্ধ সহ সচেতনামূলক সাইনবোর্ডও নগর পুলিশের পক্ষ থেকে বসানো হয়েছে। এসময় তিনি বলেন, ফুটওভারব্রিজ, গণপরিবহন অর্ধেক ভাড়া, সচেতনতামূলক সাইনবোর্ড নির্মাণের প্রতিশ্রুতি  চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আমাদের দিলেও তা রক্ষা করেনি। এরপরেও পুলিশ প্রশাসন ও চউক কর্তৃপক্ষ আমাদের সেই দাবীগুলো পূরনে এগিয়ে এসেছে এতেই  আমরা খুশি। নগরীতে নতুন বিআরটিসি বাস নামিয়ে তাতে হাফ ভাড়া নিয়ম চালুর জন্য জেলা প্রশাসনের সাথে আলোচনা অব্যাহত রয়েছে বলে জানান তিনি।

এদিকে সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে পুলিশের এসব উদ্দ্যেগকে শিক্ষার্থীদের পাশাপাশি সাধুবাদ জানিয়েছেন বিশিষ্ট নাগরিকরাও। এ ব্যাপারে শিক্ষাবিদ রেজাউল করিম মনে করেন সাইনবোর্ড স্থাপন করে নগর পুলিশ যেমন দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে তেমনি তাদের উচিত যানবাহন চালকদের সাইনবোর্ডে লেখা থাকা আইন মেনে চলতে উদ্বুদ্ধ করা।  এসব এলাকায় হর্ণ না বাজাতে ও ধীরে গাড়ি চলাচল নিশ্চিত করতে প্রচুর সংখ্যাক ট্রাফিক পুলিশ নিয়োগের দাবীও জানান তিনি। 

SHARE