নির্মম নিষ্ঠুর মানুষের কাতারে পিতা-মাতা: প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে নিজ সন্তানকে খুন

795

|দেশ রিভিউ নিউজ|

সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে শিশু তুহিন হত্যায় তার বাবাসহ সাতজনকে আটক করেছে পুলিশ। সোমবার বিকেলে তাদের আটক করা হয়।
আটকরা হলেন- তুহিনের বাবা আবদুল বাসির, চাচা আবদুল মসব্বির, নাসির উদ্দিন, খায়রুন নেছা, চাচাতো বোন তানিয়া, প্রতিবেশী আজিজুল ইসলাম।

রোববার রাতে ঘর থেকে তুলে নিয়ে তুহিনকে কান ও পুরুষাঙ্গ কাটার পর পেটে ছুরি ঢুকিয়ে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা।

তুহিনের চাচাতো বোন সাবিনা বেগম জানান, রোববার রাতে আমরা খাবার খেয়ে ঘুমিয়ে পড়ি রাত তিনটায় হঠাৎ ঘুম ভেঙে যায়। উঠে দেখি দরজা খোলা, তুহিন ঘরে নেই। পরে সবাইকে ডাকি। অনেকক্ষণ খোঁজাখুঁজির পর বাড়ি থেকে কিছু দূরে মসজিদের পাশে একটি গাছের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় তার মরদেহ পাই। এ সময় তুহিনের কান ও পুরুষাঙ্গ কাটা এবং পেটে দুটি ছুরি ঢোকানো ছিলো।

স্থানীয়রা জানায়, তুহিনের বাবা আবদুল বাসিরের ও তার ভাইদের সঙ্গে সাবেক ইউপি সদস্য আনোয়ার হোসেনের দীর্ঘদিন ধরে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে বিরোধ চলছে। আবদুল বাসিরের ভাগনি নিলুফা হত্যায় জেলও খাটেন আনোয়ার হোসেন। এছাড়া তুহিনের শরীরে গাঁথা ছুরি দুটিতে সালমান ও সালাতুল লেখা ছিলো। আনোয়ার হোসেনের দুজন নিকট আত্মীয়ের নাম সালামন ও সালাতুল।

দিরাই থানার এসআই আবু তাহের মোল্লা জানান, শিশু তুহিনের মরদেহ উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদে তার বাবা, চাচা ও চাচাতো বোনসহ সাতজনকে আটক করা হয়েছে।

SHARE