নুরু-রাসেদ-ফারুকের জন্য ছাত্রশিবিরের বিবৃতি

25818

:::অতীতে পাঁচটি ডাকসু নির্বাচনে বেনামে অংশগ্রহন

::১ম বারের মতো ঢাবি শিবির সভাপতি সেক্রেটারীর নামদেশরিভিউ।। বিতর্কিত ছাত্র সংগঠন ইসলামী ছাত্রশিবিরের কেন্দ্রীয় ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কমিটির পক্ষ থেকে ডাকসু নির্বাচন নিয়ে একটি বিবৃতি শুক্রবার(৮ই মার্চ) রাতে গণমাধ্যমে পাঠানো হয়েছে। বিবৃতিতে নাম উল্লেখ না করলেও পরোক্ষভাবে ‘বাংলাদেশ সাধারন ছাত্র অধিকার সংরক্ষন পরিষদ’ এর প্রার্থী নুরু-রাসেদ প্যানেলকে ভোট দিতে আহবান করেছেন শিবির নেতারা।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ছাত্রশিবিরের রাজনীতি নিষিদ্ধ হলেও এই প্রথমবারের মতো শিবিরের পাঠানো বিবৃতিতে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা কমিটির সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। এছাড়া বিগত সময়ে ৫টি ডাকসু নির্বাচনে ছাত্রশিবিরের অংশগ্রহন ছিলো বলেও বিবৃতিতে উল্লেখ করেছেন শিবিরের নেতারা।

শুক্রবার গণমাধ্যমে এই যৌথ বিবৃতিটি পাঠিয়েছেন ছাত্রশিবিরের কেন্দ্রীয় সভাপতি মোবারক হোসেন ও সেক্রেটারী জেনারেল সিরাজুল ইসলাম এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিবির সভাপতি মোহাম্মদ শরফুদ্দিন ও সাধারন সম্পাদক আহসান আব্দুল্লাহ। তারা বিবৃতিতে বলেছেন “প্রতিষ্ঠার পর থেকে ছাত্রশিবির ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিটি ছাত্র সংসদ নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করেছে এবং ছাত্রসমাজের ভোটে ভিপি, জিএস ও এজিএসসহ বিভিন্ন পদে বিপুল ভোটে বিজয়লাভ করেছে। ১৯৭৯ সালে তাহের-কাদের পরিষদ, ১৯৮০ ও ১৯৮২ সালে এনাম-কাদের পরিষদ, ১৯৮৯ সালে শামসুল-আমিন পরিষদ ও ১৯৯০ সালে আমিন-মুজিব পরিষদ নিয়ে ডাকসুর প্রতিটি নির্বাচনে ছাত্রশিবির অংশগ্রহণ করে এবং বিভিন্ন পদে বিজয় লাভ করে। অতীতের ধারাবাহিকতায় ভবিষ্যতেও(এবারের ডাকসু নির্বাচন) ডাকসুর নির্বাচনে ছাত্রশিবির ছাত্রসমাজের সমর্থনে বিজয় লাভ করবে বলে আমরা দৃঢ় ভাবে বিশ্বাস করি।

অতীতে ৫টি ডাকসু নির্বাচনে অংশ নেওয়ার দাবী করছে শিবির

অতীতে ডাকসু’র ৫টি নির্বাচনে ছাত্রশিবিরের অংশগ্রহণের বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর গোলাম রাব্বানী দেশরিভিউকে বলেন, ‘যুদ্ধপরাধ ও মানবতাবিরোধী কাজে অভিযুক্ত সংগঠন হিসাবে জামায়াতে ইসলামীর ছাত্রসংগঠন ইসলামী ছাত্রশিবির দলটি কখনো ডাকসু নির্বাচনে সরাসরি অংশগ্রহন করেনি। বিশ্ববিদ্যালয়ে তারা প্রথম থেকেই নিষিদ্ধ ছিলো। শিবিরের বিবৃতিতে অতীতের প্যানেলের  বিষয়টি উল্লেখ রয়েছে শুনে তিনি বলেন, নিষিদ্ধ থাকার কারনে অতীতে শিবির নেতারা ছদ্মবেশী হয়ে সাধারন শিক্ষার্থী দাবি করে বিভিন্ন  প্যানেলে নির্বাচনে অংশ নিলেও নিতে পারেন। 

এদিকে প্রথম থেকেই ছাত্রলীগ সমর্থিত প্যানেল সহ বিভিন্ন গনমাধ্যমের কাছে অভিযোগ ছিলো, ছাত্রশিবিরের সমর্থন নিয়ে ‘নুরু-রাসেদ’ প্যানেলটি ছদ্মবেশী একটি পরিষদ গঠন করেছেন। ‘বাংলাদেশ সাধারন ছাত্র অধিকার সংরক্ষন পরিষদ’ নামের এই প্যানেলর সব প্রার্থী বিতর্কিত ইসলামী ছাত্রশিবিরের সাইলেন্ট মেম্বার হিসাবে অতি গোপনে  বিশ্ববিদ্যালয়ে এতোদিন তাদের সাংগঠনিক কাজ করে আসছিলো। ছাত্রলীগ নেতারা বলছেন, শিবিরের বিবৃতিতে ছাত্রশিবিরের ঢাবি শাখা কমিটির সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকের নাম উল্লেখ করার মাধ্যমে ছাত্রশিবির ‘বাংলাদেশ সাধারন ছাত্র অধিকার সংরক্ষন পরিষদ’ ও তাদের প্রার্থী নুরু-রাসেদ প্যানেলকে স্বীকৃতি দিয়েছেন। ঢাবি শিক্ষার্থীরা ব্যালটের মাধ্যমে স্বাধীনতা বিরোধী অপশক্তি ও তাদের দোসর নুরু-রাসেদকে মুখ্য জবাব দিবেন বলেও আশাবাদী বলে জানিয়েছেন প্রগতিশীল বিভিন্ন ছাত্রসংগঠনের নেতারাও।

SHARE