নোবেলের বিরুদ্ধে কিশোরীর অভিযোগ: তোলপাড় ভারতীয় গণমাধ্যমে

372

।।দেশরিভিউ স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট।।
সা রে গা মা পা খ্যাত সঙ্গীতশিল্পী মাইনুল আহসান নোবেলের (নোবেলম্যান) বিরুদ্ধে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে প্রেম ও সর্বস্ব লুটের অভিযোগ এনেছিলো ১৬ বছর বয়সী এক ছাত্রী।

গত ১৩ আগষ্ট সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নোবেলের অসংলগ্ন কিছু ছবি ছড়িয়ে পড়ার পর বিষয়টি জানতে ভিকটিম শাহরিন সুলতানার (ছদ্মনাম) সাথে সর্বপ্রথম দেশরিভিউ ডট কমের পক্ষ থেকে যোগাযোগ করা হয়। দেশরিভিউতে এ নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ হওয়ার পর ভারতীয় গণমাধ্যমে নোবেলের বিরুদ্ধে তোলপাড় চলছে। পশ্চিমবঙ্গের প্রায় সবগুলো সংবাদমাধ্যমে নোবেলের বিরুদ্ধে আনা কিশোরীর অভিযোগটি গুরুত্বের সাথে প্রচার করেছে।

ভারতীয় শীর্ষ গণমাধ্যম সংবাদ প্রতিদিনের নিউজ

ভারতীয় শীর্ষ সংবাদমাধ্যম সংবাদ প্রতিদিন’র প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে সহবাস! নোবেলের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক অভিযোগ কিশোরীর।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ওয়ান ইন্ডিয়া’য় বলা হয়েছে, নাবালিকার সঙ্গে বিয়ের প্রতিশ্রুতিতে সহবাস গায়ক নোবেলের!

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ওয়ান ইন্ডিয়ার খবরটি প্রকাশ করে।

মহানগর টোয়েন্টিফোর হেডলাইন দিয়েছে, বিয়ে করবে বলে বহুজনের সঙ্গে সহবাস করেছে, শিকার আমিও! নোবেলের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক তরুণী

এশিয়ানেট নিউজ ডটকমের স্বরলিপি দাশগুপ্তা তার প্রতিবেদনের শিরোনামে লিখেছে, বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে নাবালিকার সঙ্গে সহবাস! নয়া অভিযোগ নোবেলের বিরুদ্ধে

এশিয়ানেট নিউজ ডটকমের স্বরলিপি দাশগুপ্তা এ বিষয়ে বিশেষ প্রতিবেদন তৈরী করেন।

নিউজ এইটিন বাংলা শিরোনাম করেছে, বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে সহবাস ! অভিযোগ গায়ক নোবেলের বিরুদ্ধে।

কলকাতা টিভি তাদের প্রতিবেদনে বলেছে,
বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে সহবাস নোবেলের, অভিযোগ কিশোরীর !

কলকাতা ২৪ ডট কম তাদের প্রতিবেদনের শিরোনামে বলেছে, নোবেলের বিরুদ্ধে সহবাসের অভিযোগ, দাবি বাংলাদেশের সংবাদমাধ্যমে।

ভারতীয় গণমাধ্যম ডেইলি হান্ট ডট কম নিজেদের সংবাদে শিরোনাম করেছে, বিয়ে করবে বলে বহুজনের সঙ্গে সহবাস করেছে, শিকার আমিও! নোবেলের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক তরুণী

বঙ্গনিউজ ২৪ ডট কমের শিরোনাম,
নোবেলের বিরুদ্ধে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে সহবাসের গুরুতর অভিযোগ!

সঙ্গীতশিল্পী নোবেলের ব্যক্তিগত ছবি ও বাসার কিছু ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ করেন ভিকটিম কিশোরী

এদিকে নিজের সম্পর্কে এমন ভয়াবহ অভিযোগের উঠার পরও নোবেলের নীরবতায় বিস্ময় প্রকাশ করেছেন শোবিজের মানুষরা। দেশরিভিউ ডট কমে সংবাদ প্রকাশের পর ১০ ঘণ্টা নোবেলের ফেসবুক পেইজও ডিঅ্যাক্টিভ ছিলো। আর এতেই শোবিজের অনেকের দাবি, নোবেলের বিপক্ষে আনা ওই কিশোরীর অভিযোগ সত্যি বলেই নোবেল নিজের পেজ ডিঅ্যাক্টিভ রেখেছিলেন। তারা মনে করেন নোবেল যদি নির্দোষ বা কোন ষড়যন্ত্রের শিকার হয়ে থাকে তবে তার এই প্রসঙ্গে পরিষ্কার বক্তব্য নেওয়া উচিত। নোবেলের এই নীরবতায় ঘটনার সত্যতা নিয়ে বিস্ময় বাড়ানো ছাড়া আর কিছুই হবে না।

(ভিকটিম কিশোরীর অভিযোগের অডিও রেকর্ড দেশরিভিউ ডট কমের কাছে সংরক্ষিত আছে)

SHARE